মেডিসিন নয়, কোঁকড়ানো চুল সোজা হবে প্রাকৃতিক উপায়েই

ঢাকা, শুক্রবার   ২৩ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ৮ ১৪২৭,   ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

মেডিসিন নয়, কোঁকড়ানো চুল সোজা হবে প্রাকৃতিক উপায়েই

লাইফস্টাইল ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:৫৫ ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০  

কোঁকড়ানো চুল সোজা করার উপায়

কোঁকড়ানো চুল সোজা করার উপায়

চুল সুন্দর রাখতে অনেকেই পার্লারে যেয়ে অনেক টাকা খরচ করেন। নানা রকম মেডিসিন দিয়ে চুল স্মুথনিং করেন। এতে যেমন টাকা খরচ হয়, তেমনি ক্ষতিকর রাসায়নিক ব্যবহারে চুল হয়ে যায় রুক্ষ।

এছাড়াও এসব ক্ষতিকর রাসায়নিক ব্যবহারের কারণে মাত্রাতিরিক্ত চুল ঝরা, চুলের আগা ফেটে যাওয়ার মতো একাধিক সমস্যাও দেখা দেয়। তবে আপনি চাইলে মেডিসিন নয়, প্রাকৃতিক উপাদান ব্যবহারের মাধ্যমে চুলের কোনো ক্ষতি না করেই পেতে পারেন স্বাস্থ্যোজ্জ্বল ও সোজা সুন্দর চুল।

তবে এই পদ্ধতিতে একটু ধৈর্য ধরতে হবে আপনাকে। টানা কয়েক সপ্তাহ ঘরোয়া মিশ্রণ কাজে লাগালে ফলাফল পাবেন হাতেনাতে। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক প্রাকৃতিক উপায়ে চুল স্মুথনিং করার সহজ পদ্ধতিটি-

মিশ্রণের জন্য যা যা লাগবে

২ চামচ কর্ণফ্লাওয়ার, ২ চামচ লেবুর রস, ১০০ মিলিলিটার পানি, ৬ চামচ অ্যালোভেরা জেল, ২ কাপ নারকেল কোড়ানো ও ২ চামচ ক্যাস্টর অয়েল।

আরো পড়ুন: দাগছোপ দূর করে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াবে পেঁয়াজ

তৈরি পদ্ধতি

২ কাপ কোড়ানো নারকেল, ১০০ মিলিলিটার পানি এবং ৬ টেবিল চামচ অ্যালোভেরা জেল ভালো করে মিশিয়ে নিন। বেশ ঘন একটা পেস্ট তৈরি করে পাতলা কাপড়ে মিশ্রণটা বেঁধে একটি পাত্রের উপর রেখে নিংড়ে নিন। এভাবে অ্যালোভেরা জেল মেশানো নারকেলের দুধ পেয়ে যাবেন। অন্য একটি পাত্রে ২ টেবিল চামচ লেবুর রস, ২ টেবিল চামচ কর্ণফ্লাওয়ার আর ১ টেবিল চামচ ক্যাস্টর অয়েল ভালো করে মিশিয়ে নিন। এবার সামান্য আঁচে কোনো ননস্টিক পাত্রে নারকেলের দুধ আর পরে বানানো কর্ণফ্লাওয়ার, লেবুর রস আর ক্যাস্টর অয়েলের মিশ্রণটি ঢেলে ভালো করে নাড়তে থাকুন। মিশ্রণটি ঘন হয়ে এলে আঁচ থেকে নামিয়ে অন্তত আধা ঘণ্টা ঠাণ্ডা হওয়ার জন্য রেখে দিন।

ব্যবহার পদ্ধতি

এবার পুরো মাথার চুলকে কয়েক ভাগে ভাগ করে চুলের গোঁড়া থেকে মাথায় ভালো করে মিশ্রণটি মেখে নিন। এভাবে ঘণ্টা দেড়েক রেখে দিন। কারণ মিশ্রণটি যত সময় রাখতে পারবেন, তত ভালো ফল পাবেন। এই অবস্থায় চুল ভুলেও বাঁধবেন না। চিরুনি দিয়ে সোজা করে আঁচড়ে নিয়ে বসে থাকুন। ঘণ্টা দেড়েক পর আপনার নিয়মিত ব্যবহারের শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন। ড্রায়ারে নয়, প্রয়োজনে ফ্যান চালিয়ে বা পারলে স্বাভাবিকভাবে চুল শুকিয়ে আঁচড়ে নিন। ব্যস আপনার ঢেউ খেলানো বা কোঁকড়ানো চুলগুলো অনেকটাই সোজা হয়ে যাবে। এরই সঙ্গে হয়ে যাবে সুন্দর ঝলমলে।

ভালো ফলাফল পেতে প্রতি সপ্তাহে এই ‘হেয়ার প্যাক’ অন্তত একবার ব্যবহার করুন। যাদের চুল কোঁকড়ানো, তাদের একটু বেশি সময় লাগবে স্বাভাবিকভাবে চুল স্মুথনিং-এর জন্য। সেই সঙ্গে চুলের স্বাস্থ্য আর স্টাইলিং একসঙ্গে পেতে শুধু একটু ধৈর্য ধরতে হবে। কিন্তু খরচ হবে নামমাত্র।

সূত্র: জি নিউজ

ডেইলি বাংলাদেশ/এএ