মাদক মামলায় তিনদিনের রিমান্ডে মডেল পিয়াসা 

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ১৩ ১৪২৮,   ১৯ সফর ১৪৪৩

মাদক মামলায় তিনদিনের রিমান্ডে মডেল পিয়াসা 

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:২৫ ২ আগস্ট ২০২১   আপডেট: ১৭:৩৭ ২ আগস্ট ২০২১

ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা

ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা

বিভিন্ন সময়ে নানা ঘটনায় আলোচনায় আসা গ্রেফতার মডেল ফারিয়া মাহবুব পিয়াসার মাদক মামলায় তিনদিনের রিমান্ডে মঞ্জুর করেছেন আদালত। 

সোমবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শহিদুল ইসলাম শুনানি শেষে রিমান্ডের আদেশ দেন। সংশ্লিষ্ট আদালতের সাধারণ নিবন্ধন শাখা সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এদিন মডেল পিয়াসাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। এরপর গুলশান থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে তাকে তিনদিনের রিমান্ডে নিয়ে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মো. আলমগীর সিদ্দিক৷

রিমান্ড আবেদনে বলা হয়, কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী অবৈধ অবৈধ মাদক ক্রয় বিক্রয় করার উদ্দেশ্যে নিয়ে বারিধারা ডিপ্লোম্যাটিক জোন গুলশানে অবস্থান করছে৷ এই সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে আসামি ফারিয়া মাহবুব পিয়াসাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এ সময় তার বাসা থেকে চারটি হুক্কা, ৭৮০ ইয়াবা, ফ্রুইস স্লাইস, ৮ লিটার মদ উদ্ধার করা হয়।

আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে জানান, ঢাকা শহরসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে মাদকদ্রব্য সংগ্রহ করে ওই বাসায় নাচ ও গানের আসর বসায় এবং লোকজন ডেনে অর্থের বিনিময়ে তাদের কাছে মদ, ইয়াবা, সিসাসহ অন্যান্য নেশা জাতীয় দ্রব্য বিক্রয় করে। আসামি অবৈধ মাদকদ্রব্য এবং ইয়াবা ট্যাবলেট, বিদেশি মদ ও বিয়ার, সিসা ও সিসা সেবন ও বিক্রয়ের কোন বৈধ কাগজপত্র দেখাতে পারেনি।

আসামির সঙ্গে ঢাকা শহরের আরো মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারীর সঙ্গে সম্পর্ক আছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা যায়। আসামির কাছ থেকে পাওয়া মাদকের উৎস, যোগাদাতা, মাদক সরবরাহকারীদের তথ্য সংগ্রহ ও তাদের গ্রেফতারের লক্ষে ঢাকাসহ বিভিন্ন অভিযান পরিচালনা করার জন্য ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করার লক্ষ্যে আসামি পিয়াসার ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা প্রয়োজন।

এর আগে, রোববার রাত ১০টার দিকে ঢাকা মহানগর পুলিশের সাইবার ক্রাইম বিভাগ বারিধারার বাসা থেকে পিয়াসাকে আটক করে। এ সময় পিয়াসার ঘরের টেবিল থেকে চার প্যাকেট ইয়াবা, রান্নাঘরের ক্যাবিনেট থেকে ৯ বোতল বিদেশি মদ, ফ্রিজে একটি আইসক্রিমের বাক্স থেকে সিসা তৈরির কাঁচামাল এবং বেশ কয়েকটি ই-সিগারেট পাওয়া যায়।

এছাড়া পিয়াসার কাছ থেকে ৪টি স্মার্টফোন উদ্ধার করে পুলিশ। অভিযান শেষে পিয়াসাকে ডিবি কার্যালয়ে নেওয়া হয়।

জানা গেছে, দুই মডেল পিয়াসা ও মৌ রাতে এসব কর্মকাণ্ড করেন। উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তানদের পার্টির নামে বাসায় ডেকে আনতেন তারা। বাসায় এলে তারা তাদের সঙ্গে আপত্তিকর ছবি-ভিডিও ধারণ করে রাখতেন। পরে তারা সেসব ভিডিও ও ছবি ভুক্তভোগীদের পরিবারকে পাঠাবে বলে ব্ল্যাকমেইল করে বিপুল পরিমাণ টাকা হাতিয়ে নিতেন।

এ বিষয়ে ডিবি পুলিশের যুগ্ম কমিশনার হারুন-অর-রশীদ বলেন, মডেল পিয়াসা ও মৌ একটি সংঘবদ্ধ চক্রের সদস্য। তাদের বিরুদ্ধে আমরা অনেক ব্ল্যাকমেইলের অভিযোগ পেয়েছি। সেসব ঘটনা তদন্ত করতে গিয়ে তাদের বাসায় অভিযান চালানো হয়। দুজনের বাসায় বিদেশি মদ, ইয়াবা ও সিসা পাওয়া গেছে। মৌয়ের বাড়িতে মদের বারও ছিল। তাদের বিরুদ্ধে মোহাম্মদপুর ও গুলশান থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে পৃথক মামলা করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের মে মাসে বনানীর রেইনট্রি হোটেলে ধর্ষণের শিকার হন দুই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী। ওই ঘটনায় করা মামলার এজাহারভুক্ত পিয়াসা। সেই ঘটনায় সারাদেশে তোলপাড় শুরু হয়। প্রথমে মামলা করতে ভুক্তভোগীদের সহযোগিতা করেছিলেন পিয়াসা। কিন্তু পরে পিয়াসার বিরুদ্ধেই মামলা তুলে নেওয়ার হুমকির অভিযোগে জিডি করেন ভুক্তভোগীদের একজন। সেই ঘটনার ৪ বছর পর ফের আলোচনায় মডেল পিয়াসা।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএইচ