অবৈধ সম্পদ অর্জন: পাসপোর্ট অধিদফতরের মোতালেব ও তার স্ত্রীর কারাগারে

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ১৩ ১৪২৮,   ১৯ সফর ১৪৪৩

অবৈধ সম্পদ অর্জন: পাসপোর্ট অধিদফতরের মোতালেব ও তার স্ত্রীর কারাগারে

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:০৫ ১৮ জুলাই ২০২১   আপডেট: ১৬:০৫ ১৮ জুলাই ২০২১

ছবি: প্রতীকী

ছবি: প্রতীকী

প্রায় চার কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জন ও সম্পদের তথ্য গোপন রাখার অভিযোগে দুদকের করা মামলায় পাসপোর্ট অধিদফতরের উপ-সহকারী পরিচালক মোতালেব হোসেন ও তার স্ত্রী ইসরাত জাহানের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

রোববার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশের আদালত শুনানি শেষে তাদের কারাগারে পাঠানোর এই আদেশ দেন। আদালতের দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সাধারণ নিবন্ধন শাখা সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। 

গত ৩০ জুন  দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১ এ সংস্থাটির উপ পরিচালক আবু বকর সিদ্দিক বাদী হয়ে তাদের বিরুদ্ধে পৃথক দুইটি মামলা করেন।

মামলার সূত্রে জানা যায়, পাসপোর্ট অধিদফতরের মহাপরিচালকের ব্যক্তিগত সহকারী হিসেবে কর্মরত আছেন উপসহকারী পরিচালক মোতালেব হোসেন। প্রাথমিক অনুসন্ধানে স্বামী-স্ত্রী দুই জনের বিরুদ্ধে বিপুল সম্পদের সন্ধান পায় দুদক। অনুসন্ধানে দেখা গেছে, মোতালেব হোসেনের সম্পদের পরিমাণ ৮৩ লাখ ১৯ হাজার টাকা। অথচ তার মৎস্যজীবী স্ত্রী ইসরাত জাহানের সম্পদের পরিমাণ ৪ কোটি টাকার বেশি। সম্পদের অনুসন্ধান করতে গিয়ে দুদক জানতে পারে, ২০ বছরের চাকরি জীবনে তিনি ঢাকার বাইরে কর্মরত ছিলেন মাত্র পাঁচ মাস। অভিযোগ রয়েছে তার ইশারায় বদলি হয় সবার। ২০০০ সালের ৩০ জানুয়ারি সাঁটলিপিকার পদে পাসপোর্ট অফিসে চাকরি জীবন শুরু হওয়া মোতালেবের আয়কর নথি বলছে, আঙুল ফুলে কলাগাছ হয়েছে মোতালেব হোসেনের সম্পদের পরিধি। নিজের নামে পটুয়াখালীতে একের পর এক জমি কিনে সেগুলো দেখান পৈত্রিক সম্পদ হিসেবে।

মামলার সূত্রে আরো জানা যায়, ২০১৫ সালে মোতালেব হোসেন পাসপোর্ট অধিদফতরের মহাপরিচালকের ব্যক্তিগত সহকারী হওয়ার পর সম্পদের পাহাড় গড়া শুরু হয় তার। অঢেল সম্পদের বৈধতা দিতে স্ত্রীকে মৎস্য ব্যবসায়ী হিসাবে আয়করে উল্লেখ করে ২০১৫ সালে স্ত্রীর নামে বরিশালের রুপাতলীতে কেনেন ২৯ লাখ টাকার জমি। আর গাজীপুরে কেনেন প্রায় সাড়ে ৩২ লাখ টাকার জমি। ২০১৬ সালে স্ত্রীর নামে মিরপুরে একটি ১১তলা ভবনে কেনেন ৬৮ লাখ টাকার একটি ফ্ল্যাট।

এতে মোতালেব-ইসরাত দম্পতির মোট সম্পদের মূল্য প্রায় ৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে মোতালেবের সাড়ে ৩৪ লাখ টাকা ও স্ত্রীর নামে ৩ কোটি ৩৭ লাখ টাকারই কোনো বৈধ উৎস নেই। অথচ মোতালেবের স্ত্রী একজন গৃহিণী। তার আয়ের কোন উৎস নেই।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএইচ