রাতে উৎপাত-পুলিশের ওপর হামলা: ৬ জনের রিমান্ড

ঢাকা, রোববার   ১৩ জুন ২০২১,   জ্যৈষ্ঠ ৩১ ১৪২৮,   ০১ জ্বিলকদ ১৪৪২

রাতে উৎপাত-পুলিশের ওপর হামলা: ৬ জনের রিমান্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:৩৯ ১৭ মে ২০২১   আপডেট: ১৯:৪১ ১৭ মে ২০২১

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

রাজধানীর ভাটারা থানা এলাকায় রাতে উচ্চস্বরে গান বাজনা ও উৎপাতে বাঁধা দেয়ায় পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় করা মামলায় ছয়জনের একদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। 

সোমবার ঢাকা মহানগর হাকিম মামুনুর রশিদের আদালত শুনানি শেষে এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) মাজহারুল ইসলাম এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রিমান্ডে যাওয়া আসামিরা হলেন- মো. জীবন হোসেন, মো. আরিফুর রহমান সুনাম, মো. রহিম, মো. সাইদুল ইসলাম, মো. আরাফাত রহমান মনি ও আবদুর রহিম।

এদিন ছয় আসামিকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। এরপর মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে প্রত্যেক আসামির সাতদিন করে রিমান্ডের আবেদন করলে আদালত প্রত্যেকের একদিন করে মঞ্জুর করেন। 

মামলার সূত্রে জানা যায়, গতকাল রোববার রাত ১২টার দিকে কয়েকজন ভাটারা থানার জোয়ার সাহারা খাঁ-পাড়া আবুল বারেক খান রোডের বাদশার গাড়ির গ্যারেজের ভেতর সাউন্ড সিস্টেম ব্যবহার করে উচ্চস্বরে গান-বাজনা করে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি করছিল। 

এলাকাবাসী অতিষ্ঠ হয়ে পুলিশ সেবা সেন্টার ৯৯৯- এ ফোন করে। এরপরে পুলিশ রাত ১২টা ৫ মিনিটে সেখানে উপস্থিত হয়ে উচ্চস্বরে গান-বাজনা বন্ধ করতে বলে। 

এজাহারে আরো উল্লেখ করা, পুলিশ গান-বাজনা বন্ধ করার কথা বললে আসামিরা তা না শুনে গান বাজাতে থাকে এবং পুলিশকে চলে যেতে বলে। 

এরপর অজ্ঞাতনামা ৩০-৩৫ জন আসামি এসে পুলিশের সঙ্গে বাক-বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে এবং পুলিশের পোশাক ধরে টানাহেঁচড়া করে ছিঁড়ে ফেলে। একপর্যায়ে আসামিরা আক্রমণ করে পুলিশের এসআই মোহাম্মদ আলীকে এলোপাতাড়ি মারধর করে।

মারধরের একপর্যায়ে ১ নম্বর আসামি মো. জীবন হোসেন পুলিশের এসআই মোহাম্মদ আলীকে হত্যার উদ্দেশ্যে লাঠি দিয়ে মাথায় ও ডান হাতের তালুতে জখম করে। এছাড়া অন্য আসামিদের এলোপাতাড়ি কিলঘুষিতে এসআই মোহাম্মদ আলীর বাঁ চোখের নিচের মাংশে মারাত্মক জখম হয়।

এজাহারে আরো জানা গেছে, আসামিদের মারধরের কারণে ভাটারা থানার অন্য পুলিশ সদস্যরা জখম হয়। এরপরে থানার পুলিশ পরিদর্শককে বিষয়টি জানালে অতিরিক্ত ফোর্স গিয়ে তাদের উদ্ধার করে। এ ঘটনায় এসআই মোহাম্মদ আলী বাদী হয়ে ভাটারা থানায় দণ্ডবিধির ১৪৩/৩০৭/৩৫৩ ধারায় মামলা করেন। পরে অভিযান চালিয়ে ছয়জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডআর