পিকে হালদারের ২৩ খণ্ড জমি ক্রোকের আদেশ

ঢাকা, মঙ্গলবার   ০৩ আগস্ট ২০২১,   শ্রাবণ ১৯ ১৪২৮,   ২৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

পিকে হালদারের ২৩ খণ্ড জমি ক্রোকের আদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১০:০৮ ২৯ মার্চ ২০২১   আপডেট: ১০:১০ ২৯ মার্চ ২০২১

রিলায়েন্স ফাইন্যান্স ও এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রশান্ত কুমার হালদার (পিকে হালদার)- ফাইল ফটো

রিলায়েন্স ফাইন্যান্স ও এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রশান্ত কুমার হালদার (পিকে হালদার)- ফাইল ফটো

রিলায়েন্স ফাইন্যান্স ও এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রশান্ত কুমার হালদারের (পিকে হালদার) ২৩ খণ্ড জমি ক্রোকের আদেশ দিয়েছেন আদালত। 

রোববার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক মো. রবিউল আলম ক্রোকের এ আদেশ দেন। 

সোমবার আদালতের দুদকের সাধারণ নিবন্ধন শাখা সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

রোববার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আদালতে জমিগুলো ক্রোকের আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত ক্রোকের এ আদেশ দেন। রাজধানীর গুলশান ও তেজগাঁও এবং মানিকগঞ্জে পিকে হালদারের নামে এসব জমি রয়েছে। 

গত ২৯ ডিসেম্বর পিকে হালদারের রাজধানীর ধানমন্ডির দুটি ফ্ল্যাট ও রূপগঞ্জের প্রায় ছয় একর জমি ক্রোকের আদেশ দেন আদালত। 

এর আগে গত বছরের ২ ডিসেম্বর ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশের আদালত আসামি পিকে হালদারের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। কানাডায় অবস্থানকারী পি কে হালদার ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফিনান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেডের (আইএলএফএসএল) থেকে আড়াই হাজার কোটি টাকা, ফাস ফাইন্যান্স থেকে দুই হাজার ২০০ কোটি টাকা, পিপলস লিজিং থেকে তিন হাজার কোটি টাকা এবং রিলায়েন্স ফাইন্যান্স থেকে আড়াই হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন। 

গত বছর দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) অবৈধ ক্যাসিনো মালিকদের সম্পদের তদন্ত শুরু করলে পিকে হালদারের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ ওঠে। গত বছরের ৮ জানুয়ারি দুদক অজ্ঞাত সূত্র থেকে প্রায় ২৭৪ কোটি ৯১ লাখ টাকার সম্পত্তি অর্জনের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলা করে। 

এদিকে চলতি বছরের ২২ মার্চ পিকে হালদারের বান্ধবী ওয়াকামা ইন্টারন্যাশনালের চেয়ারম্যান শুভ্রা রানী ঘোষের পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। 

এর আগে ১৬ মার্চ পিকের বান্ধবী নাহিদা রুনাইসহ তিনজনের পাঁচদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। অপর দুই আসামি হলেন- ইন্টারন‌্যাশনাল লিজিংয়ের ভারপ্রাপ্ত এমডি সৈয়দ আবেদ হাসান ও সিনিয়র ম্যানেজার রাফসান রিয়াদ চৌধুরী। 

একইদিন পিকে হালদারের বান্ধুবী অবান্তিকা বড়াল আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। তারও আগে ৪ মার্চ দ্বিতীয় দফায় ফের তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এছাড়া পিকে হালদারের আইনজীবী সুকুমার মৃধা ও তার মেয়ে অনিন্দিতা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। গত ২১ জানুয়ারি জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাদের গ্রেফতার করে দুদক। এরপর আদালত তাদের তিনদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। গত ১ ফেব্রুয়ারি পিকে হালদারের সহযোগী শংখ বেপারীকে ঢাকা মহানগর হাকিম মোর্শেদ আল মামুন ভূঁইয়ার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

অন্যদিকে গত ২ ফেব্রুয়ারি অর্থ আত্মসাৎ ও পাচারের অভিযোগে দুদকের দায়ের করা মামলায় পিকে হালদারের সহযোগী ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের সাবেক এমডি রাশেদুল ইসলাম আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। 

এর আগে ২৫ জানুয়ারি আসামি পিপলস লিজিংয়ের চেয়ারম্যান উজ্জ্বল কুমার নন্দী ও রাশেদুল ইসলামের পাঁচদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ