পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ: দক্ষিণ যুবদলের সভাপতিসহ আটজন রিমান্ডে

ঢাকা, রোববার   ১১ এপ্রিল ২০২১,   চৈত্র ২৮ ১৪২৭,   ২৭ শা'বান ১৪৪২

পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ: দক্ষিণ যুবদলের সভাপতিসহ আটজন রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:৩৫ ৯ মার্চ ২০২১   আপডেট: ১৩:২৩ ৯ মার্চ ২০২১

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সভাপতি রফিকুল আলম মজনু। ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সভাপতি রফিকুল আলম মজনু। ছবি: সংগৃহীত

জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে পুলিশ ও ছাত্রদলের সংঘর্ষের ঘটনায় করা মামলায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সভাপতি রফিকুল আলম মজনুসহ আটজনের দুইদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর হাকিম মুহাম্মদ আসাদুজ্জামান নূরের আদালত গতকাল সোমবার শুনানি শেষে এ আদেশ দেন। রিমান্ডে যাওয়া অপর সাতজন হলেন- খালেক টিপু, রাসেল, দিল গনি, শহিদুল ইসলাম, মোশাররফ, আবুল কাশেম ও ওয়াহিদ।

এদিন তাদের আদালতে হাজির করে প্রত্যেকের ১০ দিন করে রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শাহবাগ থানার এসআই মো. আব্দুল্লাহ।

অন্যদিকে আসামি পক্ষের আইনজীবীরা রিমান্ড বাতিল ও জামিন চেয়ে আবেদন করেন। এ সময় রাষ্ট্রপক্ষ রিমান্ডের পক্ষে শুনানি করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত প্রত্যেকের দুইদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে গত ৫ মার্চ মজনুসহ আটজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এদিকে গত ১ মার্চ এ মামলায় গ্রেফতার ১৩ জনের পাঁচদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। তারা হলেন- মঞ্জুরুল আলম, আতাউর রহমান, মাসুদ রানা, শফিকুল ইসলাম, শাহিরাজ, আহসান হাবিব ভূঁইয়া রাজু, কবির হোসেন, মনোয়ার ইসলাম, আরিফুল হক, আনিচুর রহমান, খন্দকার অনিক, আবু হায়াত মো. জুলফিকার, আতিফ মোর্শেদ ও রমজান।

রিমান্ড শেষে আসামিরা কারাগারে আটক রয়েছেন।

মামলার সূত্রে জানা গেছে, গত ২৮ ফেব্রুয়ারি লেখক মুশতাক আহমেদের জেল হাজতে মৃত্যু ও জিয়াউর রহমানের খেতাব বাতিলের প্রতিবাদে ছাত্রদলের বিক্ষোভকারীরা বিনা অনুমতিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ করার চেষ্টা করে। এ সময় পুলিশ বিক্ষোভকারীদের থামানো ও রাস্তা থেকে সরে যাওয়ার অনুরোধ করে। পরে তারা প্রেসক্লাবের ভেতরে ঢুকে অবস্থান নেন। এ সময় পুলিশের ওপর ইট-পাটকেল ছুড়তে থাকে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এরপর পুলিশ ও ছাত্রদল নেতাকর্মীদের উভয় গ্রুপের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ শুরু হয়। প্রেসক্লাবের সামনের রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়।

এ ঘটনায় গত রোববার শাহবাগ থানার এসআই পলাশ শাহা বাদী হয়ে ৪৮ আসামির নাম উল্লেখসহ ২০০/২৫০ জন আসামির বিরুদ্ধে মামলা করেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএইচ/এইচএন