সৌদিতে কিশোরী খুন: ঢাকায় এজেন্সির মালিক আটক

ঢাকা, শুক্রবার   ০২ অক্টোবর ২০২০,   আশ্বিন ১৭ ১৪২৭,   ১৪ সফর ১৪৪২

সৌদিতে কিশোরী খুন: ঢাকায় এজেন্সির মালিক আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:৪৮ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৫:৫৯ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

রিক্রুটিং এজেন্সির কার্যালয়ে অভিযানের সময় র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন

রিক্রুটিং এজেন্সির কার্যালয়ে অভিযানের সময় র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন

চাকরির আশা দিয়ে সৌদি আরবে পাঠানো ব্রাহ্মণবাড়িয়ার উম্মে কুলসুম (১৪) নামে এক কিশোরীকে নির্মম নির্যাতনে হত্যার ঘটনায় রিক্রুটিং এজেন্সির মালিক মকবুল হোসাইনকে আটক করেছে র‌্যাব।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর ফকিরাপুলে এমএইচ ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল নামে ওই রিক্রুটিং এজেন্সির কার্যালয়ে অভিযান চালাচ্ছেন র‍্যাবের ভ্রাম্যমান আদালত। র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসুর পরিচালনায় এ অভিযান শুরু হয়।

পলাশ কুমার বসু বলেন, সৌদি আরবে গৃহকর্তার নির্যাতনে উম্মে কুলসুম মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় সৌদি পাঠানো রিক্রুটিং এজেন্সি এমএইচ ইন্টারন্যাশনালের ফকিরাপুল কার্যালয়ে অভিযান চালানো হচ্ছে। এমএইচ ইন্টারন্যাশনালের মালিক মকবুল হোসাইনসহ কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। অভিযান শেষে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।

জানা গেছে, কিশোরী উম্মে কুলসুম ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলার নূরপুর গ্রামের শহিদুল ইসলামের মেয়ে। ১৭ মাস আগে স্থানীয় দালাল রাজ্জাক মিয়ার মাধ্যমে ৩০ হাজার টাকা খরচে মেসার্স এমএইচ ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের মাধ্যমে গৃহকর্মীর কাজে তাকে সৌদি আরব পাঠানো হয়।

সেখানে গৃহকর্মী হিসেবে যোগদানের পর থেকেই কুলসুমের ওপর শারীরিক ও যৌন নির্যাতন শুরু করে মালিকপক্ষ। নির্যাতনের কারণে মেয়েকে ফিরিয়ে আনার জন্য রিক্রুটিং এজেন্সির সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করার পরও তাদের পক্ষ থেকে কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

গত চার মাস আগে সৌদি আরবে গৃহকর্তা ও তার ছেলে মিলে কুলসুমের দুই হাঁটু, কোমর ও পা ভেঙে দেয়। এর কিছুদিন পর একটি চোখ নষ্ট করে রাস্তায় ফেলে দেয়। পরে সৌদি আরবের পুলিশ তাকে উদ্ধার করে সেখানকার কিং ফয়সাল হাসপাতালে ভর্তি করে। গত ৯ আগস্ট সৌদি আরবের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। এরপর ১১ সেপ্টেম্বর রাতে কুলসুমের মরদেহ দেশে আনা হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/ইএ/আরএইচ