‘আমি পপুলার, ফেসবুকের সমালোচনা পাত্তা দি না’

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০,   আশ্বিন ১৪ ১৪২৭,   ১১ সফর ১৪৪২

‘আমি পপুলার, ফেসবুকের সমালোচনা পাত্তা দি না’

ক্রীড়া প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:৫৪ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ২০:৫৪ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের(বাফুফে) সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন বলেন, ‘আমি পপুলার। তাই আমাকে নিয়ে এত আলোচনা-সমালোচনা। আমার ফেসবুক নেই। আমি এসবের কথা অফিসের মাধ্যমে জানি। এগুলোকে খুব একটা গুরুত্ব দিতে চাই না’।

বুধবার বাফুফে ভবনে ফেসবুকে তাকে নিয়ে করা  সমালোচনার জবাব সাংবাদিকদের সামনে এভাবেই দেন বাফুফে সভাপতি। 

জ্বল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের নির্বাচন। এ নির্বাচনে চতুর্থ বারের মত সভাপতি নির্বাচন করবেন সাবেক ফুটবলার ও কোচ কাজী সালাউদ্দিন।

নির্বাচনকে সামনে রেখে গেল কয়েক দিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বেশ সরগরম।  গত সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে হয়েছে মানববন্ধন, যাতে উপস্থিত ছিলেন জনা পঞ্চাশেক ফুটবলপ্রেমী। 

ফেসবুক তার বিরুদ্ধে প্রচারণাকে সংঘবদ্ধ ষড়যন্ত্রই মনে করেন সালাউদ্দিন, ‘আমার বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট একটি প্ল্যাটফর্ম থেকে এসব করা হচ্ছে। এটা আমি বুঝতে পারি কিছু জিনিস দেখে। ধরুন, এক হাজার মানুষ আমার নাম লিখছে কাজী মোহাম্মদ সালাউদ্দিন। আমার নাম তো কাজী সালাউদ্দিন। এত মানুষ তো একই ভুল লিখতে পারে না। তার মানে একটা প্ল্যাটফর্ম থেকেই এগুলো করা হচ্ছে’।

২০০৮ সালে প্রথম বাফুফের সভাপতির চেয়ারে বসেন সালাউদ্দিন। সে সময় বাংলাদেশের ফিফা র‍্যাংকিং ছিল ১৫০-এর নিচে। এ মুহূর্তে বাংলাদেশের অবস্থান ১৮৭।  বাফুফে সভাপতিকেই এ জন্য দায়ী করছেন ফুটবলপ্রেমীরা। চাইছেন তার পদত্যাগ।  

এ ব্যাপারে সালাউদ্দিন বলেন, যারা তার পদত্যাগ চাচ্ছেন, তারা পারলে নির্বাচনে জিতে আসুন, ‘তারা আমাকে বলছে পদত্যাগ করতে। ১৫ দিন পর নির্বাচন, আমি কেন পদত্যাগ করবো। তারা নির্বাচনে জিতে আসুক। আমি যদি সঠিক সময়ে নির্বাচন না দিতে পারতাম, তাহলে পদত্যাগের প্রশ্ন আসত। আমি তো নির্বাচন দেয়ার জন্য পাগল হয়ে গিয়েছি’।

আগামী ৩ অক্টোবর বাফুফে নির্বাচন। ব্যালটে সভাপতি পদে তার প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে নাম থাকছে সাবেক ফুটবলার শফিকুল ইসলাম মানিক ও বাদল রায়ের। যদিও বাদল রায় নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর কথা বলছেন। কিন্তু সে ঘোষণা সময়মতো না আসায় কাগজে-কলমে তিনি থাকছেন। তবে সালাউদ্দিন জানিয়েছেন, এসব ব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএস