৩০ হাজার বাড়ি ঘুরে ছয় জোড়া জুতা ক্ষয়, সেই নেতা জাপানের প্রধানমন্ত

ঢাকা, শুক্রবার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০,   আশ্বিন ১০ ১৪২৭,   ০৭ সফর ১৪৪২

৩০ হাজার বাড়ি ঘুরে ছয় জোড়া জুতা ক্ষয়, সেই নেতা জাপানের প্রধানমন্ত্রী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:২৪ ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০  

ইয়োশিহিদে সুগা- ফাইল ছবি।

ইয়োশিহিদে সুগা- ফাইল ছবি।

সদ্য পদত্যাগকারী জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। তার প্রস্থানের পরই দেশটির প্রধানমন্ত্রী হতে চলেছে এক কৃষক পরিবারের ছেলে ইয়োশিহিদে সুগা। গত সোমবার ক্ষমতাসীন লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির (এলডিপি) প্রায় ৭০ শতাংশ ভোট পেয়ে জাপানের প্রধানমন্ত্রী হতে চলেছেন ইয়োশিহিদে। রাজনৈতিক পরিবারে জন্ম না নিলেও জীবনে কঠোর পরিশ্রম দিয়ে আজকের অবস্থানে এসেছেন ইয়োশিহিদে।

ক্ষমতায় চূড়ায় পৌঁছাতে সুদীর্ঘ যাত্রা পাড়ি দেন ইয়োশিহিদে। কিন্তু তার যাত্রা কখনই মসৃণ ছিল না। কারণ জাপানের প্রত্যন্ত অঞ্চল আকিতার এক কৃষক পরিবারে জন্ম তার। স্ট্রবেরি চাষি বাবার সন্তান ইয়োশিহিদে সুগা হাইস্কুল পাস করেই রাজধানী টোকিওতে পাড়ি জমান।

নিজের পড়াশোনার খরচ জোগাতে তিনি করেছেন কার্ডবোর্ড ফ্যাক্টরি ও মাছের বাজারের কাজ। গ্রাজুয়েশন শেষে চাকরি জীবনে প্রবেশ করলেও সেখানে মন টেকেনি তার। বিশ্বকে বদলে দেয়ার লক্ষ্য নিয়েই পরে রাজনীতিতে যোগ দেন।

আশির দশকের শেষের দিকে ইয়োকোহামার সিটি কাউন্সিল নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছিলেন ইয়োশিহিদে। ওই সময় রাজনৈতিক যোগাযোগ বা অভিজ্ঞতা কোনোটাই খুব বেশি ছিল না তার। শুধু দৃঢ় ইচ্ছাশক্তি ও কঠোর পরিশ্রমের মনোবল নিয়ে স্বশরীরে বাড়ি বাড়ি গিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন তিনি। এভাবে প্রতিদিন ৩০০ বাড়ির দরজায় যান তিনি। এভাবে মোট ৩০ হাজার বাড়ির দরজায় ঢুঁ মারেন ইয়োশিহিদে। 

এলডিপির তথ্যানুযায়ী, ওই নির্বাচনী প্রচারণায় অন্তত ছয় জোড়া জুতা ক্ষয় হয়েছিল তার।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর জাপানের সবচেয়ে দীর্ঘস্থায়ী প্রধানমন্ত্রী ছিলেন শিনজো আবে। ২০১২ সালে শিনজো আবে প্রধানমন্ত্রী হলে তার ঘনিষ্ঠ হয়ে ওঠেন ইয়োশিহিদে। তিনি প্রধানমন্ত্রীর ডানহাত ছিলেন। আবের শাসনামলেই মন্ত্রিপরিষদ সচিবের দায়িত্ব পালন করেছেন ইয়োশিহিদে। ওই সময়ের ক্ষমতাকে অনেকটা চিফ অব স্টাফ ও প্রেস সচিবের সমন্বয় হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ