৫ কোটি টাকাই অভিশাপ, সুশীলের জীবন বেসামাল!

ঢাকা, শুক্রবার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০,   আশ্বিন ১০ ১৪২৭,   ০৭ সফর ১৪৪২

৫ কোটি টাকাই অভিশাপ, সুশীলের জীবন বেসামাল!

বিনোদন ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:০৫ ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৮:০৯ ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০

২০১১ সালে কেবিসির পঞ্চম সিজনে অমিতাভ বচ্চনের হাত থেকে পাঁচ কোটি টাকার চেক নেন সুশীল।

২০১১ সালে কেবিসির পঞ্চম সিজনে অমিতাভ বচ্চনের হাত থেকে পাঁচ কোটি টাকার চেক নেন সুশীল।

বলিউড শাহেনশাহ অমিতাভ বচ্চন উপস্থাপিত জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো কৌন বনেগা ক্রোড়পতি বা কেবিসিতে অংশ নেয় নানা বয়সের মানুষ। সেখানে অংশ নিয়ে প্রশ্ন-উত্তর পর্বের মাধ্যমে অনেকের ভাগ্য বদলেছে। তেমনি একজন সুশীল কুমার। কেবিসি শো থেকে পাঁচ কোটি টাকা জিতে বাহবা পেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সেই টাকাই ভাগ্যের বদলে তার জীবনে নিয়ে এসেছিল অভিশাপ। তাই ধীরে ধীরে তার জীবন বেসামাল হয়ে পড়ে।

সংবাদ মাধ্যমের খবর, ২০১১ সালে কেবিসির পঞ্চম সিজনে অমিতাভ বচ্চনের হাত থেকে পাঁচ কোটি টাকার চেক জিতে দেশবাসীকে চমকে দেন সুশীল। সেই এপিসোডের দর্শকরা সুশীলের সাফল্যের কাহিনির প্রশংসা করেছিলেন। একসঙ্গে পাঁচ কোটি টাকা জয়ের পর সুশীলের জীবনযাত্রা সুগম ও সব বাধা দূর হবে বলে ধারণা করেন সবাই।

কিন্তু টাকা পাওয়ার পর তার জীবন আরো কঠিন ও চ্যালেঞ্জিং হয়ে পড়ে। সেই চ্যালেঞ্জের কথাই সম্প্রতি এক ফেসবুক পোস্টে জানান বিহারের বাসিন্দা সুশীল।

‘আমার জীবনের সবচেয়ে খারাপ সময় শুরু হয় তখন যখন আমি কেবিসি জিতি’-এই শীর্ষক ফেসবুক পোস্টে তিনি লিখেন, ওই অনুষ্ঠানে জয়ের পর মাসের মধ্যে প্রায় ১৫ দিনই বিহারের নানা অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত হতেন তিনি।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দিতেন সুশীল। নিজের পেশা সম্পর্কে বলার জন্য তিনি বেশকিছু ব্যবসায়ও বিনিয়োগ করেন। কিন্তু বেশিরভাগ ব্যবসাতে তিনি ব্যর্থ হন। খ্যাতি, ব্যবসাসহ নানা জটিলতায় তার লেখাপড়া ভেস্তে যাওয়ার উপক্রম।

এদিকে কেবিসিতে পাঁচ কোটি টাকা জেতার পর সমাজকর্মী হিসেবে নাম লেখান সুশীল। প্রতি মাসে বিভিন্ন সংস্থায় টাকা অনুদান দেয়ায় ধীরে ধীরে অর্থের পরিমাণ কমতে থাকে। শেষে প্রতারণার ফাঁদে পড়ে মানুষের ওপর থেকে তার বিশ্বাস উঠে যায়। শুরু হয় স্ত্রীর সঙ্গে কলহ। সেই কলহের জেরে সংসার ভাঙার উপক্রমে দাঁড়ায়। এক পর্যায়ে সব টাকা খুইয়ে মাদকাসক্ত হন সুশীল।

পেশা বদল করে পরিচালক হওয়ার আশায় পাড়ি দেন মুম্বাই। বড় পর্দার বদলে টেলিভিশনের জন্য চিত্রনাট্য লেখার কাজ শুরু করলে তার একটি চিত্রনাট্য ২০ হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছিল।

২০১৬ সালে মুম্বাই থেকে চম্পারণে ফেরেন সুশীল। মদ-মাদকের নেশা পুরোপুরি ছেড়ে শিক্ষক হিসেবে নতুন জীবন শুরু করেছেন তিনি। মাদকাসক্তি ছাড়ার অংশ হিসেবে গত এক বছরে সিগারেটে হাতই দেননি বলে জানান এক সময়ের কোটিপতি সুশীল।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ