রেলওয়ে নিয়োগ পরীক্ষা: ইংরেজিতে প্রস্তুতি যেভাবে

ঢাকা, বুধবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২১,   অগ্রহায়ণ ১৭ ১৪২৮,   ২৪ রবিউস সানি ১৪৪৩

রেলওয়ে নিয়োগ পরীক্ষা: ইংরেজিতে প্রস্তুতি যেভাবে

জব কর্নার ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:২৩ ১৭ নভেম্বর ২০২১  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

‘সহকারী স্টেশন মাস্টার’ (গ্রেড-১৫) পদে ৫৬০ জনকে নিয়োগ দেবে বাংলাদেশ রেলওয়ে। অনলাইনে আবেদন করা যাবে ২২ নভেম্বর ২০২১ বিকেল ৫টা পর্যন্ত। পরীক্ষাং বাংলা অংশ সম্পর্কে বিস্তারিত দেয়া হলো। 

দুই ধাপে পরীক্ষা হবে। প্রথমে ৭০ নম্বরে লিখিত পরীক্ষা, সময় ৯০ মিনিট, সর্বনিম্ন পাস নম্বর ৫০ শতাংশ অর্থাৎ কমপক্ষে ৩৫ নম্বর পেতে হবে। বাংলা- ২০, ইংরেজি-২০, গণিত- ১৫ ও সাধারণ জ্ঞান- ১৫ নম্বর। প্রশ্নের উত্তর এক কথায় লিখতেই হয়। শুধু গণিতের ক্ষেত্রে সমাধান করে দেখিয়ে দিতে হয়। প্রতিটি প্রশ্নের নম্বর ১। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের ৩০ নম্বরের মৌখিক পরীক্ষার মুখোমুখি হতে হবে।

ইংরেজি : ইংরেজিও দুটি অংশ। লিটারেচার ও গ্রামার।  লিটারেচার থেকে খুবই কম প্রশ্ন আসে। অতীতের প্রশ্ন বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে লিটারেচার থেকে দুই-তিনটি প্রশ্ন এসেছে। কোনো কোনো পরীক্ষায় একটি প্রশ্নও আসেনি। তবু সেরা প্রস্তুতির জন্য এগুলোও পড়তে হবে, বিশেষ করে বিগত সালে আসা বিসিএস, নন-ক্যাডারসহ বিভিন্ন চাকরির পরীক্ষায় আসা প্রশ্নগুলো। Shakespeare, John Milton, Wordsworthসহ যাঁরা বিখ্যাত লেখক তাঁদের সম্পর্কে ন্যূনতম ধারণা নিয়ে যাবেন।

গুরুত্ব সহকারে প্রস্তুতি নিতে হবে গ্রামার অংশে। বিগত সালের প্রশ্ন বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে—যেসব টপিকস থেকে অধিক প্রশ্ন আসে, সেগুলো হলো : 1. Parts of Speech, 2. Identification of Parts of Speech, 3. Interchange Parts of speech, 4. Phrase & Clause, 5. Gerund & Participle, 6. Number & Gender, 7. Preposition, 8. Right form or Verb, 9. Voice & Narration, 10. Subject-Verb Agreement, 12. Conditional Sentence, 13. Synonym, Antonym, 14. Spelling, 15. One word substitutions, 16. Changing sentence প্রভৃতি।

ইংরেজি অংশের প্রস্তুতির জন্য বাজারের ভালো মানের কোনো একটা প্রকাশনীর বই পড়লেই যথেষ্ট। একাধিক বই নিলে বেশি পড়তে গিয়ে সব গুলিয়ে ফেলেন অনেকে। তবে বই নির্বাচনের ক্ষেত্রে এমন বই নির্বাচন করতে হবে, যেখানে বিগত সালের প্রশ্ন বেশি দেওয়া আছে এবং তথ্যগুলো নির্ভুল।

এ নিয়োগ পরীক্ষায় ইংরেজি ছাড়াও আছে গণিত। তাই দেখে নেয়া যাক এ বিষয়ে টুকিটাকি।

গণিত : বিগত সালের প্রশ্ন বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, গণিতেও কিছু নির্দিষ্ট টপিকস থেকে প্রতিবছরই প্রশ্ন আসে। বিগত সালের প্রশ্নগুলো বুঝে বুঝে অনুশীলন করতে হবে। শুধু বিগত সালের প্রশ্ন সমাধান করলেও প্রস্তুতি অনেকটা হয়ে যাবে। তবে যাঁদের গণিতের বেসিক দুর্বল, তাঁদের একটু বাড়তি যত্ন নিতে হবে।

গণিতকে তিনটি অংশে ভাগ করা যায়। পাটিগণিত, বীজগণিত ও জ্যামিতি। পাটিগণিত থেকেই ৯-১০টির মতো প্রশ্ন থাকে। এই অংশ সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। গণিতের প্রস্তুতির জন্য পঞ্চম-অষ্টম শ্রেণির গণিত বই থেকে পাটিগণিত বুঝে বুঝে করবেন। এখনো পরীক্ষার যতটুকু সময় আছে, তাতে নিয়মিত বুঝে বুঝে অনুশীলন করে গণিতে ভালো করা সম্ভব।

পাটিগণিতের যেসব টপিকস থেকে বেশি প্রশ্ন আসে—মুনাফা, লাভ-ক্ষতি, শতকরা, অনুপাত, মৌলিক ও বাস্তব সংখ্যা, ঐকিক নিয়ম, বয়স, ভগ্নাংশ, গড়, সময় ও দূরত্ব, লসাগু ও গসাগু প্রভৃতি।

বীজগণিত থেকে সাধারণত তিন-চারটি অঙ্ক আসে। প্রস্তুতির জন্য বেশি গুরুত্ব দিতে হবে এসব টপিকসে— বীজগাণিতিক রাশি, উৎপাদকে বিশ্লেষণ, মান নির্ণয়, এক চলক ও দ্বিচলকবিশিষ্ট সমীকরণ, সূচক, লগারিদম ও ধারা প্রভৃতি। গণিতের শেষ অংশ হলো জ্যামিতি। জ্যামিতি থেকে দু-একটা প্রশ্ন আসে। গুরুত্বপূর্ণ টপিকস—রেখা, কোণ ও ত্রিভুজ, পিথাগোরাসের উপপাদ্য, বৃত্ত, পরিমিতিতে বর্গক্ষেত্র, আয়তক্ষেত্র ও সমকোণী ত্রিভুজসংক্রান্ত সমস্যা প্রভৃতি। গণিতে নিয়মিত অনুশীলনই সফলতা আনতে পারে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম