ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা, নারীসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৬ মে ২০২১,   বৈশাখ ২৩ ১৪২৮,   ২৩ রমজান ১৪৪২

ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা, নারীসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা

বরিশাল প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:৩২ ৩ মে ২০২১  

গ্রেফতার দুই যুবক

গ্রেফতার দুই যুবক

বরিশালের গৌরনদী উপজেলায় মাহিন্দ্রচালককে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টার অভিযোগে এক নারী ও দুই যুবকের বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। ওই দুই যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টার মূল পরিকল্পনাকারী ওই নারী আত্মগোপন করায় পুলিশ তাকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

সোমবার দুপুরে গ্রেফতার দুই যুবককে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- ওই উপজেলার দক্ষিণ রামসিদ্ধি গ্রামের সেকেন্দার মৃধার ছেলে আমির মৃধা ও বড় কসবা এলাকার আনোয়ার তালুকদারের ছেলে হৃদয় তালুকদার। আত্মগোপনে থাকা শাহিনা বেগম পার্শ্ববর্তী আগৈলঝাড়া উপজেলার ভাল্লুকশী গ্রামের মাইনুদ্দিন মৃধার স্ত্রী।

গৌরনদী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. তৌহিদুজ্জামান জানান, একই থানার এসআই মো. শাহজাহানের মোবাইলে রোববার দুপুরে কল করে এক ব্যক্তি জানান- ভুরঘাটা থেকে ইয়াবা নিয়ে মাহিন্দ্রচালক নাইম মৃধা ইয়াবা নিয়ে টরকী যাচ্ছেন। তাকে তল্লাশি করলে ইয়াবা পাওয়া যাবে। এমনকি তথ্যপ্রদানকারী ব্যক্তি নিজেও ওই মাহিন্দ্রতে আছেন বলে জানান। টরকীর নীলখোলা এলাকায় মহাসড়কের ওপর ওই মাহিন্দ্রকে থামানোর জন্য সংকেত দেন পুলিশ সদস্যরা। মাহিন্দ্রটি থামানোর পর দুই যুবক দ্রুত পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। এতে পুলিশের সন্দেহ হয়। পরে তাদের আটক করে তল্লাশি চালিয়ে ১০টি ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরো জানান, থানায় নিয়ে ওই দুই যুবককে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানান- আগৈলঝাড়ার ভাল্লুকশী গ্রামের মাইনুদ্দিন মৃধার স্ত্রী শাহিনা বেগমের সঙ্গে মাহিন্দ্রচালক নাইম মৃধার জমি নিয়ে বিরোধ রয়েছে। বিরোধ থেকেই নাইম মৃধাকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর পরিকল্পনা করেন শাহিনা বেগম। এরই ধারাবাহিকতায় নাইম মৃধাকে তারা ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা করেন।

এ ঘটনায় শাহিনা বেগম ও দুই যুবকের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করেন এসআই মো. শাহজাহান। সোমবার দুপুরে ওই দুই যুবককে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। পলাতক শাহিনা বেগমকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান পরিদর্শক মো. তৌহিদুজ্জামান।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর