কুড়িগ্রামে যুবদলের কমিটিতে মাদক সম্রাট-বহিরাগতরা

ঢাকা, সোমবার   ১০ মে ২০২১,   বৈশাখ ২৭ ১৪২৮,   ২৭ রমজান ১৪৪২

কুড়িগ্রামে যুবদলের কমিটিতে মাদক সম্রাট-বহিরাগতরা

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:২৪ ৩ মে ২০২১   আপডেট: ১৫:৪৫ ৩ মে ২০২১

জাতীয়তাবাদী যুবদল লোগো- ফাইল ফটো

জাতীয়তাবাদী যুবদল লোগো- ফাইল ফটো

কুড়িগ্রামে মাদক সম্রাট, তার দোসর ও বহিরাগতদের দিয়ে যুবদলের আহ্বায়ক কমিটি গঠনের অভিযোগ উঠেছে। গত শনিবার দুপুরে ফুলবাড়ী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করা হয়।

এতে কুড়িগ্রাম থেকে অনুমোদিত ফুলবাড়ী উপজেলা যুবদলের ৩১ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটিকে বিতর্কিত আখ্যা দিয়ে তা বাতিল ও অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন তৃণমূল যুবদলের নেতাকর্মীরা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটির ১ নম্বর যুগ্ম আহ্বায়ক আরিফুল ইসলাম আরিফ। এ সময় আরো বক্তব্য রাখেন বিতর্কিত আহ্বায়ক কমিটির ২ নম্বর যুগ্ম আহ্বায়ক রেজাউল ইসলাম রুবেল, যুবদল নেতা রোকুনুজ্জামান লাকু।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ফুলবাড়ী উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান নজির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল হোসেন, ফুলবাড়ী সদর ইউনিয়নের বিএনপি সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল, সাধারণ সম্পাদক মশিয়ার রহমান, উপজেলা ছাত্রদলের সদস্য সচিব বিষ্ণু চন্দ্র সেনসহ উপজেলা বিএনপি ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

লিখিত বক্তব্যে উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক আরিফুল ইসলাম আরিফ বলেন, গত ২৮ এপ্রিল রাতে কুড়িগ্রাম জেলা যুবদলের সভাপতি রায়হান কবির ও সাধারণ সম্পাদক নাদিম আহমেদ স্বাক্ষরিত ৩১ সদস্যের ফুলবাড়ী উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটির অনুমোদন দেয়া হয়। এ কমিটিতে আহ্বায়ক করা হয়েছে আব্দুল খালেক নামের একজনকে। যিনি রাজনীতিতে পুরোপুরি নিষ্ক্রিয়। এ কমিটিতে চিহ্নিত মাদক সম্রাট ও তার দোসরদেরও নেয়া হয়েছে।

আরিফ আরো বলেন, এ আহ্বায়ক কমিটিতে আমাকে ১ নম্বর যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে। আমি এ কমিটি থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দিলাম। পাশাপাশি এ বিতর্কিত কমিটি অবাঞ্ছিত ঘোষণা করলাম।

এদিকে ফুলবাড়ী উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নজির হোসেন ও সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল হোসেন বলেন, তৃণমূলের যুবদলকে শক্তিশালী করতে যুবদলের নেতা যাচাই-বাছাইয়ে কেন্দ্রীয় যুবদল থেকে রংপুর বিভাগীয় একটি টিম গত ৮ জানুয়ারি কুড়িগ্রামে পাঠানো হয়। যার নেতৃত্বে ছিলেন কেন্দ্রীয় যুবদলের সহ-সভাপতি রুহুল আমিন আকিল। ওই টিম উপজেলা বিএনপির সভাপতি, সম্পাদক ও যুবদলের তৃণমূলের নেতাদের সঙ্গে কথা বলেননি। এটি একটি অনিয়ম।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচ/এইচএন