কাউকে ছোট করলে কেউ বড় হয় না: সিয়াম

ঢাকা, শুক্রবার   ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ২ ১৪২৮,   ০৮ সফর ১৪৪৩

কাউকে ছোট করলে কেউ বড় হয় না: সিয়াম

রুম্মান রয় ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:১৫ ৯ জুন ২০২১   আপডেট: ১৫:৪৩ ১৯ জুন ২০২১

সিয়াম আহমেদ

সিয়াম আহমেদ

ঢালিউডে এ সময়ের আলোচিত নায়ক সিয়াম আহমেদ। রবির জন্য একটি বিজ্ঞাপনে মডেলিংয়ের মাধ্যমে তার কর্মজীবন শুরু হয়। এরপরে ‘ভালোবাসা ১০১’ নাটকে আফনানের ভূমিকায় অভিনয় করার মাধ্যমে অভিনেতা হিসেবে পথচলা শুরু হয়। 

এরইমধ্যে তার চারটি ছবি মুক্তি পেয়েছে। ছবিগুলোতে সিয়ামের অভিনয় দারুণ প্রশংসিত হয়েছে। নতুন প্রজন্মের নায়ক হিসেবে দর্শক তাকে ভালোভাবেই গ্রহণ করেছেন। 

কয়েদিন আগেই তার অভিনীত ওয়েব সিরিজ মরীচিকা’র ট্রেলার প্রকাশিত হয়েছে। সিয়ামের সমসাময়িক ব্যস্ততা এবং ওয়েব সিরিজ নিয়ে তিনি কেমন আশাবাদী যেসব নিয়েই মুখোমুখি হয়েছেন ডেইলি বাংলাদেশ-এর। তার সাক্ষাৎকার নিয়েছেন রুম্মান রয়।

আপনার অভিনীত ওয়েব সিরিজ মরীচিকা’র ট্রেলার প্রকাশিত হয়েছে। কোন ভাবনা থেকে আপনার মরীচিকায় কাজ করা?
সিয়াম আহমেদ:
 আমি যখন গল্পটা পড়েছি আমার মনে হয়েছে প্রত্যেকটা গল্পের অনেকগুলো দিক থাকে। এই গল্প আমি যখন পড়েছি তখন মনে হয়েছে আমার চরিত্র যেটি এসআই শাকিল সেটি অডিয়েন্সের চোখ, অডিয়েন্সের ফ্রাস্ট্রেশন, অডিয়েন্সের ব্যর্থতা। যদি কোনো সাকসেস হয় কোনো সফলতা আসে সেটাও অডিয়েন্সের সফলতা। কারণ সে হচ্ছে সবচাইতে সাধারণ মানুষ পুরো গল্পে। তার কোনো পাওয়ার নেই। সে সব সময় সিনিয়রদের ঝাড়ির মধ্যে থাকে। সে তার ফ্রাস্ট্রেশন দেখায় ঘরের বৌ-বাচ্চাদের সঙ্গে জুনিয়র অফিসারদের সঙ্গে। আমাদের প্রত্যেক সাধারণত মানুষের জীবনটাই এমন; কিন্তু মন থেকে সবাই ভালো কিছু করতে চাই।

সিয়াম আহমেদ
খেতে পারি আর নাই পারি অনন্ত এই খারাপ কাজটা না করি। এভাবে টাকাটা ইনকাম না করি, এটা ঠিক না, এটা আমার জন্য না। বেশিক্ষণ ডিউটি করলে সাধারণ মানুষ যেভাবে রাগ করে, খাবার পছন্দ না হলে জেদ দেখায়; এই মানুষটা ঠিক সেই রকমই। এই সাধারণত মানুষটাকে যদি দর্শকদের পছন্দ হয়, তাহলে আমার মনে হবে একটু হলেও সার্থক আমি কাজটি করে। 

আর এই ক্যারেক্টারটা করেছি ডেফিনিটলি কোনো না কোনো রিজন আছে। শাকিল চরিত্রটা খুব সাধারণ সে চাইলেও অনেক কিছু করতে পারে না। আমি ‘শান’ সিনেমায়ও একজন পুলিশ কর্মকর্তার চরিত্রে অভিনয় করেছি। ঐ চরিত্রটা একরকম আর এই চরিত্রটা আরেক রকমের। তা আমার কাছেও একটা চ্যালেঞ্জ কাজ করেছে। পুলিশ চরিত্র দুইটা দুইভাবে প্লে করাও আমার জন্য বেশ চ্যালেঞ্জিং ছিলো। একটা ওয়েব সিরিজ আরেকটা ফিল্ম। দর্শকরা দুটোর আলাদা ফ্লেভার পাবে।

আপনি ‘অপারেশন সুন্দরবন’ ছবিতেও একজন র‍্যাবের ভূমিকায়, ‘শান’ ছবিতেও একজন পুলিশের চরিত্রে। মরীচিকা’তেও আপনি একজন পুলিশ চরিত্রে। পরপর আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর চরিত্রে কাজ করার বিশেষ কোনো কারণ আছে?
সিয়াম আহমেদ:
আমার কাছে মেইন প্রায়োরিটি হচ্ছে যে চরিত্রগুলোকে আমরা প্রতিদিন চোখের আশেপাশে দেখতে পারি। আমাদের ডিরেক্টররা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর জীবনের অভিজ্ঞতা, তাদের কষ্টগুলোকে তুলে নিয়ে আসে। আমার কাছে মনে হয় দর্শকদের কাছে ইন্টারেস্টিং, রিয়েল চ্যালেঞ্জিং কিছু দেখাতে হলে এই ক্যারেক্টারগুলো জাস্টিস করতে পারে কিছুটা। তাতে হয়তো দর্শকরা ভিন্ন ভিন্ন ফ্লেভার খুঁজে পাবে।

সিয়াম আহমেদ

আপনি ওয়েব সিরিজে কাজ করলেন। আপনাকে কি নিয়মিত ওয়েব সিরিজ বা ওয়েব ফিল্মে দেখা যাবে?
সিয়াম আহমেদ:
আমি একটু অপেক্ষা করবো। কারণ এখন অডিয়েন্স যেটা পছন্দ করছেন সেটার উপর বেস করেই তো কাজ করছি আমরা। তাদের রেসপন্সটাও আমি দেখতে চাই। যদি মনের মতো গল্প পাই অন্য কাজ বাদ দিয়ে এখন এটাই করা যায়। যখন যে মুহূর্তে মিলে যাবে তখনই সে কাজটা করবো। এটা নিয়ে কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। কোনো প্রেশার নেই। ভালো কাজ নিয়ে কথা; সেটা যেভাবেই আসুক।

আপনার হাতে থাকা সিনেমাগুলোর কি অবস্থা?
সিয়াম আহমেদ:
সম্প্রতি রায়হান রাফির ‘দামাল’ সিনেমার আমার অংশের শুটিং শেষ করেছি। আরো শেষ করেছি ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’।মুক্তির মিছিলে রয়েছে ‘অপারেশন সুন্দরবন’ ও ‘শান’। পরীমনির সঙ্গে ‘বায়োপিক’ শিরোনামে নতুন সিনেমাটি এখন প্রিপ্রোডাকশন স্টেজে রয়েছে। ডিরেক্টর সবকিছু গুছিয়ে টাইম ম্যাচ করে আমরা সবাই বসবো। ‘স্বপ্নবাজি’ আর ‘ইত্তেফাক’ এগুলোর বিষয়ে ডিরেক্টরই ভালো বলতে পারবেন।

ইদানিং খুব সাইবার বুলিং বেড়েছে। এটা নিয়ে আপনার মন্তব্য কি?
সিয়াম আহমেদ:
দেখুন একজন আরেকজনকে ভালো না লাগতে পারে। পছন্দ না হতে পারে। এটা ঠিক আছে। আপনি চাইলেও পৃথিবীর সবাইকে হ্যাপী করতে পারবেন না। সবাই আপনাকে পছন্দ করবেন না। কিন্তু কারো ব্যক্তিগত কিছু নিয়ে অথবা কারো ধর্ম, বর্ণ, গোত্র, গায়ের রং, উচ্চতা, স্বাস্থ্য এগুলো নিয়ে কমেন্ট করা এই জিনিসটা আমি একেবারেই পছন্দ করি না। সেখানে আপনি সম্পৃক্ত, আপনার শিক্ষা ও আপনার পরিবার সম্পৃক্ত। এখন ২০২১ সাল চলছে। কেউ কাউকে ছোট করলে কেউ বড় হয় না। এটা মনে রাখতে হবে।

আপনি পূজা চেরির সঙ্গে জুটি হয়ে সফল আবার পরীমনির সঙ্গেও সফল।এখন জুটি হিসেবে কোন জুটি আপনার কাছে এগিয়ে সিয়াম-পরীমনি নাকি সিয়াম-পূজা?
সিয়াম আহমেদ:
আমার মনে হয় তিনজনকে একসঙ্গে নিয়ে জুটি করতে চাই। দর্শকদের আরো পছন্দ হবে বলে আমার মনে হয়। আসলে জুটিপ্রথায় এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। আর্টিস্ট সিলেকশনে গল্পের কোন চরিত্রে কে অভিনয় করবেন এটা ডিরেক্টরই ঠিক করেন। তখন এটা নিয়ে আমরা আলোচনাও করি না। আমি কথায় বলতে চাইনা ওটা নিয়ে। আমাকে যদি জিজ্ঞেস করে আর আমি যদি মনে করি বলা প্রয়োজন তাহলে বলি। সেটা নেয়া না নেয়া তার ব্যাপার। উনি যাকে সিলেক্ট করেন তার উপর আমি কোনো আপত্তি জানাই না। আমার কাজ হলো চরিত্রে অভিনয় করা।

সিয়াম আহমেদ

এখন অনলাইন প্ল্যাটফর্মেও সিনেমা মুক্তি পাচ্ছে। এটাকে আপনি কিভাবে দেখছেন?
সিয়াম আহমেদ:
আমি সবকিছু পজিটিভভাবেই দেখি। কাজটা দর্শকদের সামনে আনাটাই ইম্পর্ট্যান্ট, সেটা যে মাধ্যমেই হোক না কেন। ভিন্ন ভিন্ন গল্পে ভিন্ন ভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করার যে সময়টা আসছে যে সুযোগটা আসছে। এগুলো যদি অ্যাপসের মাধ্যমে দেখানোর সুযোগ হয় তাহলে তো ভালোই। 

এখন দর্শকরা করোনার জন্য হলে আসতে পারেন না। তাই কোনো না কোনোভাবে আমাদেরকে পৌঁছাতে হবে দর্শকদের কাছে। সেটা যে মাধ্যমেই হোক না কেন এটা আমার কাছে পজিটিভলি নেয়া উচিত। আল্লাহ তা’য়ালা যেখানে বরকত দিচ্ছেন কাজের, সেখানে শুকরিয়া আদায় করে গ্রহণ করা উচিত।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিএএস