ভালো কাজ দিয়েই জবাব দিতে চাই: ইমন

ঢাকা, শনিবার   ১৯ জুন ২০২১,   আষাঢ় ৫ ১৪২৮,   ০৭ জ্বিলকদ ১৪৪২

ভালো কাজ দিয়েই জবাব দিতে চাই: ইমন

রুম্মান রয় ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:৩৭ ৭ জুন ২০২১  

মামনুন হাসান ইমন

মামনুন হাসান ইমন

মামনুন হাসান ইমন তার পুরো নাম হলেও সবাই তাকে ইমন নামেই চেনে। অভিনয়ে তার পথচলা শুরু হয় তৌকির আহমেদ পরিচালিত ২০০৭ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘দারুচিনি দ্বীপ’ এর মাধ্যমে। কিন্তু ২০১০ সালের ‘গহিনে শব্দ’ ছবিতে অভিনয়ের জন্য ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেন।

এরপরে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি ইমনকে; এগিয়ে চলেছেন আপন ছন্দে। সম্প্রতি তার অভিনীত ‘আগামীকাল’ ছবিটি মুক্তির জন্য সেন্সরে অনুমতি পেয়েছে। ছবিটি নিয়ে তার প্রত্যাশা এবং সমসাময়িক ব্যস্ততা নিয়ে আলাপ হয় ডেইলি বাংলাদেশ-এর সঙ্গে। তারই চুম্বকাংশ পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন রুম্মান রয়। 

আপনার অভিনীত ‘আগামীকাল’ ছাড়পত্র পেলো। আসন্ন দে মুক্তি পেতে পারে ছবিটি। আপনার প্রত্যাশা কেমন?
ইমন:
ছবিটি ঈদে মুক্তি পাবে কিনা আমার জানা নেই। সেন্সর বোর্ডের সবাই ছবিটি দেখে খুব প্রশংসা করেছেন এবং আনকাট ছাড়পত্র দিয়েছেন। আসলে যখন আমার অভিনীত কোনো সিনেমা প্রশংসা পায় তখন আমার খুব ভালো লাগে। অনেক দিন পর আমার কোনো সিনেমা মুক্তি পাচ্ছে নিঃসন্দেহে ভালো লাগছে। ছবিটি আমি আশাবাদী।

এই ছবির নির্মাতা অঞ্জন আইচের প্রথম সিনেমা। তার সঙ্গে আপনার কাজে অভিজ্ঞতা কেমন হলো?
ইমন:
অঞ্জন দা’র সঙ্গে আমার সম্পর্কটা খুব ভালো। তার পরের সিনেমা কানামাছি’ও আমাকে নিয়ে করছেন। হয়তো তার আর কোনো সিনেমাতেও আমি থাকবো ইনশাআল্লাহ। ১৩ বছরেরও বেশি সময় ধরে অঞ্জন আইচ দাদা প্রচুর নাটক নির্মাণ করেছেন। তাই তার নির্মাণে অভিজ্ঞতা নিয়েই সিনেমাটা নির্মাণ করেছেন। তিনি খুবই সিনেমাপ্রেমী একজন মানুষ। সিনেমা নিয়ে প্রচুর পড়াশোনা করেন।

অঞ্জন দা’র সঙ্গে আমার বুঝাপড়া দারুণ। অনেক দিন উনার সঙ্গে কাজ করছি তাই আমাদের এই কাজটাও খুব সুন্দর মতোই হয়েছে।

বর্তমানে করোনা পরিস্থিতিতে চলচ্চিত্র নিয়ে আপনার ভাবনা কি?
ইমন:
করোনা পরিস্থিতিতে সিনেমার বাজেট অনেক কমে গিয়েছে। আমরা যারা শিল্পীরা আছি সবাই নিজ জায়গা থেকে চেষ্টা করছি আবার যেনো ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি দাঁড়ায়। সঙ্গে সাংবাদিকরাও অনেক সাপোর্ট দিয়ে যাচ্ছেন। এই করোনা পরিস্থিতির জন্য এখন সিনেমা মুক্তি দিতে পারছে না। এটা আমাদের জন্য খুবই হতাশার। 

চলচ্চিত্রে অভিনয়ে ১৪ বছর পাড়ি দিলেন। ক্যারিয়ারে আপনার প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি কী?
ইমন:
এমন একটা অবস্থায় চলে এসেছি যে এটা নেশা ধরে গেছে। সবকিছু মিলিয়ে ১৪ বছরে কিছু প্রাপ্তি এবং অপ্রাপ্তি আছে। প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির যোগফল মেলালে মনে হচ্ছে আরো অনেক ভালো ভালো কাজ করার বাকি আছে। 

চলচ্চিত্র কাজ করার জন্য অনেক সেক্রিফাইজ করেছি। চাইলে সেসময় প্রচুর নাটক করতে পারতাম। অনেক চড়াই উৎরাই আজ এই পর্যায়ে এসেছি। ফিল্মের জন্য লোভ সংবরণ করেছি। চলচ্চিত্রে ভালোবেসে কাজ করছি। 

কাজ করতে গিয়ে কি কখনো নোংরা রাজনীতির শিকার হয়েছিলেন?
ইমন:
যখন কেউ যুদ্ধে যাবে তখন আহত হবে আঘাত পাবে তারপরও যুদ্ধে জয়ী হতে হবে। কাজ করতে গিয়ে নোংরা রাজনীতিতে আহত হয়েছিলাম তারপরও ভালো কাজ দিয়ে এর জবাব দিতে চাই।

বর্তমানে সিনেমা অ্যাপসে মুক্তি পাচ্ছে। বিষয়টা আপনি কিভাবে দেখছেন?
ইমন:
আসলে সিনেমা ব্যপারটাই ভিন্ন। বিশাল পর্দা এতো এতো মানুষ একসঙ্গে বসে সিনেমা দেখছে এটার যে ফিলিংস সেটার ধারে কাছেও কিছু নাই। এই একটা কথা বিশ্বের নামীদামী ফিল্মের তারকারাও বলবেন। আমিও একই উত্তর দিলাম। 

কিন্তু এখন অনলাইন প্ল্যাটফর্ম মুখ্য বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে কারণ করোনা। আমরা করোনার জন্য কেউই প্রস্তুত ছিলাম না। এখন অনলাইন প্ল্যাটফর্মকে এভয়েড করার কোনো উপায় নাই। অনলাইন প্ল্যাটফর্মে ছবি রিলিজ দিলে সারা পৃথিবীর মানুষ দেখে। আমি এটার পক্ষে আছি।

সম্প্রতি অপু বিশ্বাসের সঙ্গে আপনাকে একটি ফ্যাশন হাউসের জন্য ফটোশুটে দেখা গেলো। ১৩ বছর আগে ইমন-অপুকে আবারো কি দর্শকরা দেখতে পাবেন?
ইমন:
অবশ্যই দেখার সম্ভাবনা আছে। আমিও কাজ করছি তিনিও কাজ করছেন। তিনি একজন গুণী শিল্পী, তার সঙ্গে তো কাজ করার অবশ্যই ইচ্ছা আছে। নির্মাতা যদি চান তাহলে দর্শকরা আবারো আমাদেরকে একসঙ্গে দেখতে পাবেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিএএস