রঙ্গীন জগত সম্পর্কে সবার একটু বেশি আগ্রহ: আইরিন 

ঢাকা, রোববার   ১১ এপ্রিল ২০২১,   চৈত্র ২৮ ১৪২৭,   ২৭ শা'বান ১৪৪২

রঙ্গীন জগত সম্পর্কে সবার একটু বেশি আগ্রহ: আইরিন 

রুম্মান রয় ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:২৪ ১ ফেব্রুয়ারি ২০২১  

আইরিন সুলতানা

আইরিন সুলতানা

র‌্যাম্প মডেলিং থেকে বড়পর্দায় পা রেখেছেন আইরিন সুলতানা। অভিনয় গুণে জায়গা করে নিয়েছেন ঢালিউডে। যদিও মডেলিং থেকে সিনেমার যাত্রা খুব মসৃণ ছিল না তার। ‘ভালোবাসা জিন্দাবাদ’ সিনেমায় অভিনয় করে বড়পর্দায় অভিষেক হয়েছিল আইরিনের। তারপর অভিনয় করেছেন অনেক সিনেমায়।

সম্প্রতি ‘ব্ল্যাক লাইট’ শিরোনামের একটি সিনেমায় কাজ শেষ করেছেন আইরিন। আর মুক্তির অপেক্ষায় আছে ‘গন্তব্য’ সহ বেশ কয়েকটি সিনেমা। সমসাময়িক তার ব্যস্ততা নিয়ে মুখোমুখি হয় ডেইলি বাংলাদেশ-এর। তার সাক্ষাৎকার নিয়েছেন রুম্মান রয়।

শুরুতেই আপনার ব্যস্ততা সর্ম্পকে জানতে চাই
আইরিন:
কয়েকটি।সিনেমা ও ওয়েব সিরিজের কাজ নিয়ে ব্যস্ত আছি। এছাড়া এন টিভি’র একটা রিয়েলিটি শো’য়ের বিচারকের আসনে বসতে চলেছি।

বর্তমানে আপনি কি সিনেমায় কাজ করছেন?
আইরিন:
গেলো বছর নভেম্বর ডিসেম্বর মাসে রিয়াজুল রিজু পরিচালিত ‘ব্ল্যাক লাইট’ সিনেমায় শুটিং করেছি। এটার কাজ এখনো বাকী আছে। এই ছবিতে আমার সহশিল্পী আছেন শাহেদ শরীফ খান। বুলবুল জিলানী পরিচালিত ‘রৌদ্রছায়া’ ছবির কাজ শেষ করেছি। এই ছবিতে আমার বিপরীতে আছে নিরব। আরেকটা ডকুমেন্টারি ফিল্ম কমপ্লিট করেছি আশিক মোস্তফা ভাইয়ের ‘৩৫ মিলিমিটার’। ওপার বাংলায় রাজা দীপ্ত ব্যানার্জী পরিচালিত ‘শিবরাত্রি’ ছবিতে কাজ করেছি। 

এছাড়া চলতি বছরের মার্চ মাসে মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে অরণ্য পলাশ পরিচালিত ‘গন্তব্য’। এই ছবিটি আনোয়ার আজাদ ফিল্মস প্রযোজনা ও পরিবেশনার দায়িত্ব নিয়েছে।

আপনি ওটিটি প্লাটফর্মেও কাজ করছেন। এই প্লাটফর্মে কাজ করার অভিজ্ঞতা কেমন?
আইরিন:
আমি দু’টো ওয়েব কনটেন্টে কাজ করেছি। একটা সৈকত নাসির পরিচালিত ‘ট্র্যাপড’ আরেকটি অনন্য মামুন পরিচালিত ‘ধোঁকা’। তারা যেহেতু দু’জনই ফিল্মি ঘরানার, তাই তাদের সঙ্গে আমার কাজ করে মজাই লেগেছে। এখানে আমি যে গল্পে ও চরিত্রে কাজ করেছি আমার খুবই ভালো লেগেছে।

আমার কাছে গল্প চরিত্র ভালো লেগেছে বলেই তো আমি কাজ করেছি। সবমিলিয়ে আমার অভিজ্ঞতা ভালো। আমি আরেকটি ওয়েব সিরিজে কাজ করছি অনন্য মামুন পরিচালিত ‘পার্টনার’-এ। সবমিলিয়ে যদি মনে হয় ভালো তবেই আমি ওয়েব ফিল্মের কাজ করি। 

ওয়েব সিরিজ নিয়েও তো অনেক বিতর্কের সৃষ্টি হয়।
আইরিন:
বিতর্ক করতে চাইলে তো যেকোনো নরমাল ইস্যু নিয়েও করা যায়। সেটার জন্য কোনো নেগেটিভ-পজিটিভ ইস্যু লাগে না। তর্ক-বিতর্ক থাকবেই তার মাঝখান দিয়ে এখানে আমরা যারা কাজ করছি সম্মিলিতভাবে ভালো কাজ করতে হবে। আর এটাই হবে আমাদের টার্গেট।

অনেক সময় দেখা যায় আপনার পোশাক নিয়েও সমালোচনা হয়।
আইরিন:
আমি তো ওয়েব সিরিজ করেও সমালোচনায় পড়েছিলাম। আমরা আসলে যে মাধ্যমে কাজ করি এই জগত সম্পর্কে সবার একটু বেশি আগ্রহ কাজ করে। ওটা আসলে ডিপেন্ড করে কে কিভাবে নিচ্ছে। সমালোচনা নেগেটিভ হোক আর পজিটিভ; সমালোচনা হচ্ছে এটাই ইম্পর্টেন্ট। আমি যখন কোনো ক্যারেক্টার প্লে করি তখন কিন্তু ক্যারেক্টার অনুযায়ী ড্রেসআপ হয়। আমি ব্যক্তি স্বাধীনভাবে কি ড্রেস পড়ি সেটা কিন্তু এখানে আনতে পারিনা।

ছবিতে কিন্তু আমাদের কস্টিউম ডিজাইনার থাকে। আর আমাদের পরিচালকরা গল্পের সঙ্গে চরিত্র অনুযায়ী কাকে কখন কোনো পোশাকে মানাবে সেটা তারা বুঝেন এবং তারাই ঠিক করে দেন। এখানে আর্টিস্টের চাহিদা অনুযায়ী পোশাক দেয়া হয় না। এক্ষেত্রে আমি বলবো এটা নিয়ে যারা বলেন তারা আসলে বোকার মতো কথা বলেন।

আপনি তো ২০১৩ সালে চলচ্চিত্রে অভিষিক্ত হোন। তা চলচ্চিত্রে ৭ বছরে আপনার ছবির সংখ্যা কম কেন?
আইরিন:
সংখ্যা কম বেশি আমার কাছে বিষয় না। এই পর্যন্ত যতোগুলো কাজ করেছি ভালোবেসেই করেছি। বলতে গেলে খারাপ লাগা নেই আমার মধ্যে। আমি বলবো না যে আমার সব ছবিই মানসম্মত ছিলো। তবে আমি যতোটুকু কাজ করেছি এখানে আমার খারাপ লাগা নেই।

গেলো কয়েক বছর ধরেই ঢাকার সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির অবস্থা ভালো নেই। তা এমন অবস্থায় নিজের ক্যারিয়ার নিয়ে আপনি কি শঙ্কিত?
আইরিন:
না না আমি আসলে চিন্তিত বা শঙ্কিত নই। চড়াই উৎরাই সব জায়গাতেই থাকে। আমার ক্যারিয়ারেও চড়াই উৎরাই আছে; এটা স্বাভাবিক। আমি যদি মনে করি একটা জায়গা সমানভাবে চলবে, এটা কিন্তু হবে না সম্ভবও না। আমাদের ফিল্মের এখন যে পরিস্থিতি এতে একটা খারাপ সময় পার করছে। এটার মানে এই নয় যে সারাজীবন ফিল্ম ইন্ড্রাস্ট্রি খারাপ থাকবে। এখানে আশাহত হওয়ার কিছু নেই। ফিল্ম ইন্ড্রাস্ট্রি যেহেতু আছে আমরা যারা এখানে কাজ করছি নিজেদের শ্রম মেধা দিয়েই করি। এটা তো একটা শিল্প;।শিল্পের জায়গাটা আস্তে আস্তে সবকিছু মিলিয়ে একটা ভালো কিছুর দিকে যাবে।

শোবিজ অঙ্গনের অনেক অভিনয়শিল্পীই টিকটক, লাইকির মতো ভিডিও করে থাকেন। তা এটা আপনার কেমন লাগে?
আইরিন:
আমি খুব একটা পছন্দ করি না। তবে খারাপ যে লাগে এটাও বলবো না। ভিডিও দেখতে ভালো লাগে এনজয় করি। আমার নিজেরও অ্যাকাউন্ট আছে। তবে আমি সময় দেই না কোনো কনটেন্ট করি না। এটাতে আমি ইউজ টু না। আমি ফেইসবুক ইন্সটাগ্রামে যতোটা অ্যাক্টিভ বাকী মাধ্যমগুলোতে ততোটা না।

বিয়ে নিয়ে কি আপনার কোনো পরিকল্পনা আছে?
আইরিন:
আমার জীবনে পরিকল্পনা করে কিছু হয় না। আমি যখন বিয়ে করবো সবাইকে জানিয়েই করবো।

ডেইলি বাংলাদেশ/টিএএস