শামসুকে দেখলে আমার খুব আফসোস হয়: শামস

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৭ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ১২ ১৪২৭,   ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

শামসুকে দেখলে আমার খুব আফসোস হয়: শামস

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:১৬ ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৪:৩০ ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০

ইউটিউবার ও কনটেন্ট ক্রিয়েটর শামস আফরোজ চৌধুরি। ছবি: সংগৃহীত

ইউটিউবার ও কনটেন্ট ক্রিয়েটর শামস আফরোজ চৌধুরি। ছবি: সংগৃহীত

ইউটিউবার ও কনটেন্ট ক্রিয়েটর শামস আফরোজ চৌধুরি এখন পুরোদমে স্বাবলম্বী। ছোট ছোট ভিডিও বানিয়ে ফেসবুকে আপলোড করা এ তরুণীর ভক্ত এখন কয়েক লাখ। তার প্রতিটি ভিডিও দেখছেন মিলিয়ন মিলিয়ন দর্শক। দিন-রাত চাকরির প্রস্তুতি, তারপর ইন্টারভিউ বোর্ড থেকে হতাশ হয়ে ফিরে আসা শামসের নানা চড়াই–উতরাই ভক্তরা কম-বেশি জানেন।

২০১৮ সালে হতাশা কাটানোর জন্য ছোট ছোট ভিডিও বানিয়ে ফেসবুকে দিতে শুরু করেছিলেন। এখন সেই শখই পরিণত হয়েছে পেশায়। হয়ে উঠেছেন পুরোদস্তুর কনটেন্ট ক্রিয়েটর। শামসের পারিবারিক ভিডিওগুলোর বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেন নিজেই। শামস, শামসু, কুলসুম, নানী, মা, বাবা—সব চরিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি ভিডিও এডিটিংও নিজেই করেন। এর মধ্যে শামসের সবচেয়ে পছন্দের চরিত্র শামসু। এ প্রসঙ্গসহ বিভিন্ন বিষয়ে সম্প্রতি ডেইলি বাংলাদেশ-এর মুখোমুখি হয়েছেন শামস আফরোজ

প্রথমেই আপনাকে অভিনন্দন; আপনার ফেসবুক পেজের ফলোয়ার সংখ্যা সাড়ে আট লাখ ছাড়িয়েছে।

শামস আফরোজ: ধন্যবাদ আপনাকে।

আপনার শুরুর গল্পটা এরইমধ্যে অনেকেরই জানা। তাই শুরুতেই আপনার বর্তমান অবস্থান সম্পর্কে জানতে চাই...

শামস আফরোজ: আমার শুরুর গল্পটা কম-বেশি সবাই জানেন। কীভাবে নিজের মনকে ভালো রাখার জন্য আমি আমার ভিডিও মেকিং শুরু করি তা অনেক ইন্টারভিউতে বলেছি। যদিও আমি কখনো কল্পনাও করিনি যে এতটা জনপ্রিয়তা ও ভালোবাসা পাবো। সে জন্য আমি শুরু থেকে এ পর্যন্ত আমার সকল ভক্তদের কাছে কৃতজ্ঞ।

আরো পড়ুন: শূন্য থেকে জনপ্রিয় শামস আফরোজ, জানালেন সফলতার গল্প

প্রথমদিকে আমি খুব কম ভিডিও আপলোড দিতাম। কারণ আমি ব্যস্ত ছিলাম অন্য সেক্টরে নিজের ক্যারিয়ার গড়ার চিন্তায়। বর্তমানে আমি সম্পূর্ণভাবে নিজের ইউটিউব চ্যানেল, ফেসবুক পেজ ও ভিডিওর কনটেন্ট নিয়েই পুরো সময়টা দিচ্ছি। আসলে আমার কাছে মনে হয় বর্তমান প্রফেশনটা অনেক বেশি সন্মানের। আর যতটুকু ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা আমি মানুষের কাছ থেকে পেয়েছি, সেটা আমার জন্য সত্যি অনেক বড় একটা পুরস্কার।

কিন্তু শুরুর দিকে তো অনেকেই বিষয়টি কটু চোখে দেখতেন। সেই প্রসঙ্গে যদি একটু বলতেন...

শামস আফরোজ: সত্যি বলতে আমাকে নিয়ে বা আমার ভিডিও নিয়ে সমালোচনা এখন পর্যন্ত হয়নি। বরং লাখ লাখ মানুষের কাছ থেকে আমি এ পর্যন্ত অনেক সাপোর্ট পেয়ে আসছি। তবে হ্যাঁ, আমি যখন শুরু করি তখন আমার কাছের কিছু মানুষ খুব ব্যঙ্গ করার চেষ্টা করে। এমনকি আমার কাজকে থামিয়ে দেয়ারও চেষ্টা করে। আমার সঙ্গে আমার মা, স্বামী ও আমার ভক্তদের শক্তিশালী সাপোর্ট ছিল। তাদের কারণেই আমি কাজটা থামিয়ে দিইনি।

আপনার ভিডিওতে অনেকগুলো চরিত্র থাকে। কখনো শামসু ভাই, কখনো কুলসুম, নানি কিংবা আম্মাজান। এ চরিত্রগুলো কি আপনার আশেপাশের?

শামস আফরোজ: প্রত্যেকটা চরিত্র শুধু আমার না, আমাদের চারপাশের। বাঙালির ঘরে ঘরে আম্মজান, শামসু ভাই, শামস, কুলসুমসহ এমন অনেক চরিত্র রয়েছে। আমি চেষ্টা করি আমাদের বাস্তব জীবনের ঘটনাগুলোকে মজা করে দেখানোর। আমি পুরো বাংলাদেশের বিষয়গুলোকে মাথায় রেখে ভিডিও বানাই; যেন দেশের মানুষ নিজেদের জীবনের সঙ্গে আমার করা ভিডিও মেলাতে পারে।

আরো পড়ুন: গোপনে ২৪ ঘণ্টাই আপনার সব দেখছে ইনস্টাগ্রাম

এর মধ্যে কোন চরিত্র আপনার নিজের একটু বেশি পছন্দের?

শামস আফরোজ: সত্যি বলতে আমার শামসু চরিত্রটা খুবই প্রিয়। মাঝে মধ্যে আমার মনে হয়, ইশ সত্যি যদি আমার এমন একটা ভাই থাকতো!  আমার কোনো ভাই-বোন নেই, তাই শামসুকে দেখলে আমার খুব আফসোস হয়।

আপনি দীর্ঘ সময় ধরে ভিডিও বানাচ্ছেন। এসব ভিডিও নিয়ে মজার কোনো অভিজ্ঞতা জানতে চাই।

শামস আফরোজ: আমার একটা মজার অভিজ্ঞতা শেয়ার করি। আমি একদিন আম্মাজান সেজে আমার বারান্দায় শুট করছিলাম। সেই সময় বাহিরে দুইজন কলেজ পড়ুয়া ছেলে রিকশা দিয়ে যাচ্ছিল; আমাকে দেখতে পেয়ে হঠাৎ চিত্কার করে উঠলো- ওই যে আম্মাজান! আম্মাজান! প্রথমে আমি ভয় পেয়েছিলাম, পরে বিষয়টা খুবই মজার লাগলো।

যারা কনটেন্ট ক্রিয়েটর হতে চান, তাদের উদ্দেশ্যে কিছু বলবেন?

শামস আফরোজ: কনটেন্ট ক্রিয়েট করে অবশ্যই ভালো অংকের টাকা উপার্জন সম্ভব, কিন্তু সেজন্য নিয়মিত হতে হবে। সৃজনশীলতা ভীষণ জরুরি। সেই সঙ্গে হতে হবে পরিশ্রমী। কাজকে ভালোবেসে করতে হবে, তবেই আসবে সফলতা।

আরো পড়ুন: শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে যা বললেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব

ভক্তদের উদ্দেশ্যে কিছু বলতে চান?

শামস আফরোজ: আসলে ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের উদ্দেশ্যে আমি একটা কথাই বলবো যে, তারা প্রথম থেকে এ পর্যন্ত আমাকে ভালোবেসে গিয়েছেন। এখন শুধু আমার জন্য দোয়া করবেন যান আমি আরো উন্নতমানের কনটেন্ট আপনাদের উপহার দিতে পারি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে