নাঈমের শেষ বিদায়ের সঙ্গী হলো মায়ের চোখের জল

ঢাকা, মঙ্গলবার   ৩০ নভেম্বর ২০২১,   অগ্রহায়ণ ১৭ ১৪২৮,   ২৩ রবিউস সানি ১৪৪৩

নাঈমের শেষ বিদায়ের সঙ্গী হলো মায়ের চোখের জল

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৮:৪৫ ২৫ নভেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৮:৪৭ ২৫ নভেম্বর ২০২১

মায়ের আহাজারি (ইনসেটে নাঈম)

মায়ের আহাজারি (ইনসেটে নাঈম)

নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থী নাঈম হাসানকে চোখের জলে শেষ বিদায় জানিয়েছেন মা। এ সময় তার আহাজারিতে ভারী হয়ে ওঠে বাতাস।

বৃহস্পতিবার সকাল পৌনে ৯টার দিকে লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার শমেসপুর গ্রামে নানার বাড়িতে নাইমের প্রথম জানাজা হয়। এরপর ৯টা ৪০মিনিটে পৌর শহরের কাজিরখিল এলাকায় দাদার বাড়িতে দ্বিতীয় জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

নাঈমের জানাজায় অংশ নেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা। তার মৃত্যুতে স্বজনদের মাঝে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। তারা ঘাতক চালকের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করেন।

নিহতের বড় ভাই মুনতাসির মামুন বলেন, আমরা দুই ভাই। আমি বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসে (বিইউপি) পড়ালেখা করি। ছোট ভাই নটর ডেম কলেজ থেকে ২০২২ সালে এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছিল। বুধবার সকালে কলেজ শেষ করে বাসায় ফিরছিল নাঈম। গুলিস্থান সিনেমা হলের সামনে পৌঁছালে তাকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) একটি ময়লার গাড়ি ধাক্কা দেয়। তাৎক্ষণিকভাবে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিলে সোয়া ১২টার দিকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি বলেন, পড়াশোনা শেষ করে নাঈম গরিব-দুঃখি মানুষের পাশে থাকতে আইনজীবী হতে চেয়েছিল। মানুষের সেবা করার ইচ্ছে ছিল তার। আমার ভাইয়ের সব স্বপ্ন নস্যাৎ করে দিল সিটি কর্পোরেশনের গাড়ি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমআর