ফেনীতে ছোট ভাইয়ের স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা, ভাসুরের যাবজ্জীবন

ঢাকা, শনিবার   ২৭ নভেম্বর ২০২১,   অগ্রহায়ণ ১৩ ১৪২৮,   ২০ রবিউস সানি ১৪৪৩

ফেনীতে ছোট ভাইয়ের স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা, ভাসুরের যাবজ্জীবন

ফেনী প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:২৪ ২৪ নভেম্বর ২০২১  

ফেনী জেলা জজ আদালত

ফেনী জেলা জজ আদালত

ফেনীর সোনাগাজীতে জমির বিরোধে ঝগড়ার জেরে ছোট ভাইয়ের স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার দায়ে ভাসুর কামাল উদ্দিনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে তাকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া কামাল উদ্দিনের দুই ছেলে জয়নাল আবদীনকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা এবং সাহাব উদ্দিনকে দুই বছরের কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। জরিমানা অনাদায়ে দুজনকেই তিন মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

বুধবার ফেনীর অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ সৈয়দ মো. কায়সার মোশাররফ ইউসুফ এ রায় ঘোষণা করেন। রায়ে কামাল উদ্দিনের স্ত্রী ফাতেমা বেগম ও মেয়ে লাভলী আক্তারকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

মামলা ও আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০০৫ সালের ২২ ডিসেম্বর রাতে সোনাগাজী উপজেলার চর খোয়াজ গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি ও মারামারি শুরু হয়। ঐ সময় বড় ভাই কামাল উদ্দিনের লাঠির আঘাতে ছোট ভাই সফি উল্যার স্ত্রী নূর নাহার আহত হন। ঘটনার পরদিন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

ঐ ঘটনায় ২৪ ডিসেম্বর নিহতের স্বামী সফি উল্যা সোনাগাজী থানায় হত্যা মামলা করেন। এতে বড় ভাই কামাল উদ্দিন, তার স্ত্রী ফাতেমা বেগম, দুই ছেলে জয়নাল আবদীন ও সাহাব উদ্দিন এবং মেয়ে লাভলী আক্তারকে আসামি করা হয়। সোনাগাজী থানার তৎকালীন এসআই শওকত আলী মামলার তদন্ত শেষে ২০০৬ সালের ২৬ মে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। অভিযোগপত্রে পাঁচজনকে আসামি ও ১৮ জনকে সাক্ষী করা হয়। আদালত ১২ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে রায় ঘোষণা করে।

আদালতের সিনিয়র এপিপি দিজেন্দ্র কুমার কংশ বনিক এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, আসামি সাহাব উদ্দিন এ মামলায় গ্রেফতার হন। পরে জামিনে ছাড়া পেয়ে পালিয়ে যান। তিনি এখনো পলাতক। সাহাব উদ্দিন যখন গ্রেফতার হবেন বা আদালতে আত্মসমর্পণ করবেন তখন থেকেই তার সাজা কার্যকর হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর