গলায় কাফনের কাপড় ঝুলিয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থীর নির্বাচনী প্রচারণা

ঢাকা, রোববার   ০৫ ডিসেম্বর ২০২১,   অগ্রহায়ণ ২১ ১৪২৮,   ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

গলায় কাফনের কাপড় ঝুলিয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থীর নির্বাচনী প্রচারণা

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি  ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:৪৮ ২৩ নভেম্বর ২০২১  

বীর মুক্তিযোদ্ধা জাহান আলী সরকার ভোট চুরির আশঙ্কায় গলায় কাফনের কাপড় ঝুলিয়ে নেমেছেন নির্বাচনী প্রচারণায়

বীর মুক্তিযোদ্ধা জাহান আলী সরকার ভোট চুরির আশঙ্কায় গলায় কাফনের কাপড় ঝুলিয়ে নেমেছেন নির্বাচনী প্রচারণায়

দেশ ও জাতির মুক্তির জন্য লড়েছেন ৭১ এর রণাঙ্গণে। মৃত্যুর খুব কাছ থেকে ফিরে এসেছেন কয়েকবার। শক্ত হতে প্রতিহত করেছেন শত্রুদের। তিনি ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলার বড়গ্রাম ইউপির বীর মুক্তিযোদ্ধা জাহান আলী সরকার।

নব্বই দশকে ছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান। বলিষ্ঠ দায়িত্ব পালন করে উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে হয়েছিলেন শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান। পুরস্কৃত হয়েছিলেন জাতীয় পর্যায়েও। জীবনসায়াহ্নে এসে ফের নেমেছেন ভোটের মাঠে। হতে চাইছেন নিজ ইউনিয়নের জন প্রতিনিধি। তবে, ভোট চুরির আশঙ্কায় গলায় কাফনের কাপড় ঝুলিয়ে নেমেছেন নির্বাচনী প্রচারণায়। 

সম্প্রতি তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন ছবি এসেছে আলোচনায়। তাতে দেখা যায় বয়োজ্যেষ্ঠ জাহান আলী গলায় কাফনের কাপড় ঝুলিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। মুঠোফোনে তার সঙ্গে  যোগাযোগ করে জানা গেলো, ঘোড়া প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন তিনি। জানালেন তার আশঙ্কার কথা। 

মুক্তিযোদ্ধা জাহান আলী বলেন, একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে গণতন্ত্রকে প্রতিষ্ঠা করার জন্য লড়ছি। অনেকেই বলাবলি করে বেড়াচ্ছে যে আমাকে ভোট দিলেও তা রক্ষা করতে পারবো না। এ জন্য গণতন্ত্রকে যাতে হত্যা করতে না পারে আমি কাফনের কাপড় সঙ্গে নিয়ে ভোট রক্ষার জন্য ভোটের মাঠে নেমেছি। মানুষের কাছে ভোট চেয়ে যাচ্ছি। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ৮০ শতাংশ ভোট পেয়ে জয়ী হবো বলে আশা করি। 

তিনি বলেন, প্রশাসনের কাছে বলেছি, মুক্তিযুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি। এখন স্বাধীন দেশে গণতন্ত্র রক্ষার দায়িত্ব আপনাদের। ভোট ডাকাতির মাধ্যমে গণতন্ত্রকে যাতে কেউ হত্যা করতে না পারে সেজন্য সবাইকে নিয়েই মাঠে থাকবো। 

জানা গেছে, এ ইউপিতে মোট ভোটার রয়েছেন ২৫ হাজার ৭২৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটারের সংখ্যা ১২ হাজার ৮৩৭ জন ও নারী ভোটার রয়েছেন ১২ হাজার ৮৮৬ জন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকে