সন্তানের নাম ‘ভ্লাদিমির পুতিন’ রাখার ওপর নিষেধাজ্ঞা

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৯ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ৪ ১৪২৮,   ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সন্তানের নাম ‘ভ্লাদিমির পুতিন’ রাখার ওপর নিষেধাজ্ঞা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:৩৮ ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১  

ছবি: ভ্লাদিমির পুতিন

ছবি: ভ্লাদিমির পুতিন

জনপ্রিয় বা প্রভাবশালী ব্যক্তিদের নামে শিশুদের নাম রাখার রীতি বিশ্বের সব দেশেই রয়েছে। তবে সেই রীতির বাইরে গিয়ে বিশ্বের প্রভাবশালী নেতাদের অন্যতম রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের নামে সন্তানের নামকরনের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সুইডেন। যদিও জনপ্রিয় অন্য কোনো বিশ্বনেতা কিংবা তারকার নামে সন্তানের নাম রাখায় কোনো বিধিনিষেধ নেই ইউরোপের এই দেশটিতে।

সম্প্রতি সুইডেনের এক দম্পতি তাদের নবজাতকের নাম ‘ভ্লাদিমির পুতিন’ রাখতে কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ সে আবেদন নাকচ করে দিয়েছে। সুইডেনের দক্ষিণাঞ্চলে ওই দম্পতির বসবাস। তাদের আবেদন শুধু নাকচই করেনি কর্তৃপক্ষ, একই সঙ্গে সন্তানের নাম ‘ভ্লাদিমির পুতিন’ রাখার ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞাও জারি করেছে দেশটির কর কর্তৃপক্ষ।

ভ্লাদিমির পুতিন রাশিয়ার ক্ষমতাসীন ইউনাইটেড রাশিয়া পার্টির নেতা। বিশ্বজুড়ে প্রভাবশালী নেতাদের অন্যতম হলেও নিজ দেশে বিরোধী মত দমনে চরম কঠোর অবস্থানের কারণে তিনি সমালোচিতও। ১৯৯৯ সাল থেকে পুতিন পালাক্রমে প্রধানমন্ত্রী ও প্রেসিডেন্ট হিসেবে রাশিয়ার ক্ষমতায় রয়েছেন।

তবে তার সময়কালে রাশিয়ায় রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা এসেছে। এছাড়া তিনি রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণাধীন চেচনিয়ায় ২য় চেচেন যুদ্ধের মাধ্যমে অঙ্গরাজ্যগুলোর অখণ্ডতা বজায় রাখতে সক্ষম হয়েছেন। পুতিন প্রেসিডেন্ট থাকাকালীন সময়ে রাশিয়ায় অর্থনৈতিক ভিত মজবুত হয়। ৯ বছরের মধ্যে জিডিপি ৭২% বৃদ্ধি পায়। দারিদ্র্য কমপক্ষে ৫০% কমে যায়। গড় মাসিক বেতন ৮০ ডলার থেকে ৬৪০ ডলারে বৃদ্ধি পায়।

পুতিন প্রতিবেশী ইউক্রেনের একটি অংশ দখল করে নিয়ে তিনি রাশিয়ার সীমানা বাড়িয়েছেন। রাশিয়ার সবচেয়ে বেশি বিক্রির ক্যালেণ্ডারে শোভা পেয়েছে তার ছবি। অন্যদিকে অতি সম্প্রতি তিনি দেশটির সংবিধানে ব্যাপক সংস্কারের প্রস্তাব করেছেন যাতে ক্ষমতার ভারসাম্যে পরিবর্তন আনা যায়। তারপর এক নতুন প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ করেছেন।

রাশিয়ার বর্তমান সংবিধান অনুসারে তিনি আর নতুন মেয়াদে ক্ষমতায় থাকতে পারেন না। কারণ সংবিধান অনুযায়ী পর পর দুবারই কেবল ক্ষমতায় থাকা যায়। কিন্তু পুতিন টানা দু’বার প্রেসিডেন্ট থেকে এরপর প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে গিয়ে আবার টানা দুই মেয়াদে প্রেসিডেন্টের পদে আছেন। এরপরও পুতিন যে রাশিয়ার ক্ষমতার মঞ্চ থেকে সরে যাবেন তা মনে হচ্ছে না। রাশিয়ার রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের ধারণা, পুতিন রাশিয়ার রাষ্ট্রক্ষমতায় তার নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখার জন্য পরবর্তী পরিকল্পনার ছক কাটছেন।

সূত্র: এএফপি

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী