তালেবানের মধ্যে অন্তর্কোন্দলের খবর উড়িয়ে দিলেন মোল্লা বারাদার

ঢাকা, শুক্রবার   ২২ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ৭ ১৪২৮,   ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

তালেবানের মধ্যে অন্তর্কোন্দলের খবর উড়িয়ে দিলেন মোল্লা বারাদার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২১:৪২ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১  

ছবি: মোল্লা আবদুল গণি বারাদার

ছবি: মোল্লা আবদুল গণি বারাদার

নতুন অন্তর্বর্তী সরকারে অভ্যন্তরীণ বিরোধের কথা অস্বীকার করেছেন তালেবানের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা এবং ভারপ্রাপ্ত উপপ্রধানমন্ত্রী মোল্লা আবদুল গণি বারাদার। এছাড়া কাবুলের প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে সংঘাতে আহত হওয়ার খবরও উড়িয়ে দিয়েছেন তিনি।

আফগান ন্যাশনাল টিভিকে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন মোল্লা বারাদর। এই সাক্ষাৎকারের একটি ভিডিও তালেবানের দোহা কার্যালয়ের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে প্রকাশ করা হয়েছে। ভিডিওটিতে দেখা গেছে, বারাদারের কাছে তার আহত হওয়ার গুজব নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘না, এটা কোনওভাবেই সত্য নয়। সকল প্রশংসা আল্লাহর আমি সুস্থ এবং ভালো আছি। সংবাদমাধ্যমে আমাদের অভ্যন্তরীণ মতবিরোধের যে দাবি করা হচ্ছে তাও সত্যি নয়।’

মোল্লা বারাদার বলেন, ‘আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞতা যে আমাদের মধ্যে প্রচুর দয়া এবং ক্ষমার মনোভাব রয়েছে। আর এটি এমন যে তা কোনও পরিবারের মধ্যেও থাকে না। এছাড়া আমরা বহু বছর ধরে দখলদারিত্ব অবসানের জন্য দুর্ভোগ সহ্য করেছি, ত্যাগ স্বীকার করেছি। এর কোনওটাই ক্ষমতা কিংবা পদ পাওয়ার জন্য নয়।’

কাবুলের বাইরে একটি সফরে থাকার দাবি করে মোল্লা বারাদার বলেন, যে স্থানে সফর করছিলাম সেখানে সংবাদমাধ্যমের দাবি খণ্ডানোর উপায় ছিলো না। তিনি বলেন, সেকারণে আমরা আফগান জনগণ এবং সব সিনিয়র ও জুনিয়র মুজাহিদিনদের আতঙ্কিত না হতে বলছি, উদ্বিগ্ন হওয়ার আসলে কিছু নেই।’

গত রবিবার কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাবুল সফরের সময় প্রধানমন্ত্রী মোল্লা মোহাম্মদ হাসান আখুন্দের সঙ্গে তার সাক্ষাৎ হলেও ছিলেন না মোল্লা বারাদার। এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা জানতাম না কাতার থেকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আসছেন। জানতে পারলে আমরা সফর স্থগিত করতাম। আর আমরা সফরে থাকার কারণেই সাক্ষাৎ ঘটেনি। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে সফর থেকে ফেরা সম্ভব ছিলো না। আগে খবর পেলে আমরা অন্য বন্ধুদের সঙ্গে বৈঠকে যোগ দিতাম।’

তালেবান কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মোল্লা বারাদার কান্দাহারে গেছেন। সেখানে গ্রুপটির সর্বোচ্চ নেতা হাইবাতুল্লাহ আখুন্দজাদা বসবাস করেন বলে মনে করা হয়।

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী