সংক্রমণ বাড়তে থাকায় সিডনিতে আরো ৪ সপ্তাহ বাড়ানো হল লকডাউন

ঢাকা, রোববার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ৪ ১৪২৮,   ১০ সফর ১৪৪৩

সংক্রমণ বাড়তে থাকায় সিডনিতে আরো ৪ সপ্তাহ বাড়ানো হল লকডাউন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:৫০ ২৮ জুলাই ২০২১  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে থাকায় লকডাউনের মেয়াদ আরো ৪ সপ্তাহ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে বড় শহর সিডনির কর্তৃপক্ষ।

সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়, তুলনামূলক বেশি সংক্রামক ডেল্টা ধরনের বিস্তার রোধে জুনের শেষদিকে থেকে শহরটির বাসিন্দাদের জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে না আসার বিধিনিষেধ জারি হয়েছিল। চলতি মাসের মাঝামাঝি ওই বিধিনিষেধের মেয়াদ ৩০ জুলাই পর্যন্ত বাড়ানো হয়; এরপরও সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি অব্যাহত থাকায় কর্তৃপক্ষ লকডাউন আরো ৪ সপ্তাহ বাড়িয়ে তা ২৮ অগাস্ট পর্যন্ত নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

করোনা মহামারিতে দেশটিতে সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা নিউ সাউথ ওয়েলসে। রাজ্যটির প্রিমিয়ার গ্লাডিস বেরেজিকলিয়া বলেন, পরিকল্পনা অনুযায়ী আগামী শুক্রবার সিডনিতে লকডাউন শেষ হচ্ছে না। সংক্রমণের হার শূন্যের কাছাকাছি না আসা পর্যন্ত লকডাউন তুলে নেওয়া হবে না বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

এর আগে লকডাউন তুলে নেয়ার দাবিতে গত শনিবার সিডনি শহরে রাস্তায় নামেন হাজার হাজার মানুষ। মেলবোর্ন ও ব্রিসবেন শহরেও হয় বিক্ষোভ। এ সময় প্ল্যাকার্ড হাতে বিক্ষোভকারীদের স্লোগান দিতে দেখা যায়। এগুলোর মধ্যে একটি প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল, ‘মাস্ক খুলুন, আপনার আওয়াজ তুলে ধরুন।’ আরেকটি প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল, ‘জেগে ওঠো অস্ট্রেলিয়া’। সেখান থেকে ৫৭ জনকে আটক করা হয়। ওই বিক্ষোভে জনসমাবেশের কারণে আবার সংক্রমণ বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছিল।

নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যে আজ করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৭৭ জনের শরীরে। ২০২০ সালের মার্চের পর এটিই ছিল প্রদেশটিতে সর্বোচ্চ শনাক্তের সংখ্যা। চলতি বছরে শুধু সিডনিতেই ২ হাজার ৫০০ জনের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

অস্ট্রেলিয়ায় করোনা শনাক্তের পর থেকে এখন পর্যন্ত ৩৩ হাজার ৪৭৩ জন আক্রান্ত হয়েছেন। আর মৃত্যু হয়েছে ৯২২ জনের।

দেশটিতে এখনকার এ পরিস্থিতির পেছনে টিকাদানে শ্লথগতিকেও অনেকে দায়ী করছেন।

গত ফেব্রুয়ারিতে দেশটিতে গণটিকাদান শুরু হলেও এখন পর্যন্ত প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে মাত্র ১৬ শতাংশ ভ্যাকসিন পেয়েছেন।

অ্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিড টিকায় ‘রক্ত জমাট বাঁধা’ নিয়ে আতঙ্কের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সরকার পর্যাপ্ত ফাইজারের টিকা সংগ্রহ করতে না পারায় দ্রুতগতিতে টিকা দেওয়া যাচ্ছে না বলে ভাষ্য পর্যবেক্ষকদের।

অস্ট্রেলিয়ার নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি সিডনির বাসিন্দাদের অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নেয়ার আহ্বান জানিয়েছে; এ টিকার পর্যাপ্ত মজুদ আছে বলে আশ্বস্তও করেছে তারা।

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী