ফার্মেসীতে অদৃশ্য ভি আঁকলেই মিলছে ভায়াগ্রা, আছে আরো হাজারো ইশারা

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১,   আশ্বিন ১৪ ১৪২৮,   ১৯ সফর ১৪৪৩

ফার্মেসীতে অদৃশ্য ভি আঁকলেই মিলছে ভায়াগ্রা, আছে আরো হাজারো ইশারা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১২:৫৭ ২৮ জুলাই ২০২১  

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

মাঝ দুপুরে এলাকার একটা ছোট ফার্মেসীর ভিতরে ঢুকলেন বছর তিরিশের এক যুবক। বিক্রেতা তাকাতেই যুবক হাত রাখলেন টেবিলে। হাতের তর্জনি দিয়ে টেবিলের উপর ছোট করে ‘ভি’ আঁকলেন। ব্যস! আর কিছু বলতে হল না। দোকানদার এগিয়ে দিলেন এক পাতা ওষুধ। প্রায় প্রতিদিন এভাবে ভারতের কলকাতাসহ অন্যান্য শহরে অহরহ বিক্রি হচ্ছে যৌন বলবর্ধক ওষুধ। যার প্রচলিত নাম ‘ভায়াগ্রা’।

মূলত ভায়াগ্রা আমেরিকার ফাইজার কোম্পানির তৈরি একটি ওষুধ। যার দামও তুলনামূলক অনেক বেশি। ভারতে নির্মিত একই গোত্রের ওষুধের দাম তুলনায় অনেক কম। কখনো কখনো আসল ভায়াগ্রার দশ ভাগের এক ভাগও নয়। তবুও নির্দ্বিধায় এই ওষুধের দিকে ছুটছে একটা প্রজন্মের পুরুষ।

এআইওসিডি অর্থাৎ অল ইন্ডিয়া অরগ্যানাইজেশন অব কেমিস্টস অ্যান্ড ড্রাগিস্টস’র পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১০ সাল থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ৫০ শতাংশের কাছাকাছি বেড়েছে যৌন বলবর্ধক ওষুধের বিক্রি হয়েছে। চিকিৎসকদের অভিমত, একটা বড় প্রজন্মের পুরুষ এক অন্য মহামারির সামনে এসে দাঁড়িয়েছে। যার নাম ভায়াগ্রা।

‘ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন’ এর প্রাক্তন প্রধান কেকে অগ্রবাল ভারতের এক সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, বহু রোগীই চান চিকিৎসকরা তাদের ‘ভায়াগ্রা’ গোত্রের ওষুধ দিন। কিন্তু পাশাপাশি এটাও চান না, সেটি প্রেসক্রিপশনে লেখা হোক। কারণ তাতে কাছের মানুষের কাছে সেই সব রোগীদের সম্মানহানীর আশঙ্কা থাকে। তারা দোকান থেকে এমনিই কিনে নেন এই জাতীয় ওষুধ।

বহু ক্ষেত্রেই ‘সিলডেনাফিল সাইট্রেট’ গোত্রের ওষুধ কিনতে কোনো প্রেসক্রিপশন লাগে না। চেনা দোকান গিয়ে এমনি বললেই হয়। নাহয় কাচের উপর অদৃশ্য ‘ভি’ অক্ষর লেখার মতো আরো হাজারো ইশারা তো আছেই।

এই জাতীয় ওষুধের বিক্রি বেড়ে যাওয়ার জন্য অভিজ্ঞরা মূলত মানসিক চাপকে দায়ী করছেন। মনোরোগ চিকিৎসক সঞ্জয় গর্গ ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছিলেন, অনেকে মানসিক চাপ কাটাতে অন্য এক ধরনের ওষুধ খান। তার প্রভাবেও যৌন অক্ষমতা বাড়তে থাকে। এর ফলে পুরুষের বন্ধ্যাত্ব, সঙ্গম কালে আকর্ষণ বোধ না করা এবং যৌনাঙ্গের শিথিলতার মতো সমস্যা বাড়ে। চিকিৎসার পরিভাষায় যাকে বলে ‘ইরেকটাইল ডিসফাংশন’। আর এই ধরনের সমস্যা যত বাড়ছে, ততই বাড়ছে ‘ভায়াগ্রা’ গোত্রের ওষুধের বিক্রি বাড়ছে। করোনাকালে তা আরো বেড়েছে। কারণ এই সময়ে তীব্র ভাবে বেড়েছে মানসিক চাপ।

বেশ কিছু গবেষণা বলছে, যারা উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায় ভোগেন, ভায়াগ্রা বা ‘সিলডেনাফিল সাইট্রেট’ গোত্রের ওষুধ তাদের হৃদযন্ত্রের জন্য ভাল। কিছু সাধারণ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়া ভায়াগ্রার তেমন কোনো ক্ষতিকারক দিকও এখনো পর্যন্ত টের পাওয়া যায়নি। এর ফলে রক্তচাপ কিছুটা কমে যায়। তাই মদ্যপানের পরে এই জাতীয় ওষুধ খেলে শরীর খারাপ হতে পারে। কিন্তু দীর্ঘ দিন এই জাতীয় ওষুধ খেয়ে গেলে, যৌনসম্পর্কের চরম অবনতি হতে পারে বলে আশঙ্কা চিকিৎসকদের। এমন নির্ভরতা তৈরি হতে পারে, যাতে এই ওষুধ ছাড়া সঙ্গম আর হয়তো সম্ভবই হবে না অনেকের ক্ষেত্রে।

সূত্রঃ আনন্দবাজার পত্রিকা অনলাইন

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএইচএফ