ডাবের শাঁস খাওয়ার বিস্ময়কর উপকারিতা

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৫ জুন ২০২১,   আষাঢ় ১ ১৪২৮,   ০৩ জ্বিলকদ ১৪৪২

ডাবের শাঁস খাওয়ার বিস্ময়কর উপকারিতা

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২৩:১৩ ১১ জুন ২০২১  

ডাবের শাঁস ও পানি। ছবি: সংগৃহীত

ডাবের শাঁস ও পানি। ছবি: সংগৃহীত

গরমে ডাবের পানি খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। ডাবের পানি আমাদের অনেক রোগ থেকে মুক্তি দেয়। প্রাকৃতিক পানীয় বলে এর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও নেই। এছাড়াও শরীর ঠাণ্ডা রাখাতে এর জুড়ি নেই।

আমাদের শরীরে পটাশিয়াম ও ক্যালসিয়ামের অভাব হলে তা পূরণ করার জন্য ডাবের পানি পান করার পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা। বিশেষ করে জন্ডিস, কলেরা বা ডায়রিয়ার রোগীদের বেশি খেতে দেয়া হয় ডাবের পানি। এটি শরীরে পানির ঘাটতি পূরণ করে।

ডাবের পানির পুষ্টি

আপনি যদি প্রতিদিন ডাবের পানি পান করেন তবে শরীরে পানিশূন্যতার সৃষ্টি হবে না। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করতেও সমান কার্যকরী। ডাবের পানি শরীর সুস্থ রাখার পাশাপাশি ভালো রাখে ত্বক ও চুল। এতে থাকা পটাশিয়াম, সোডিয়াম, ক্যালসিয়াম, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস এবং ভিটামিন সি জাতীয় পুষ্টি আমাদের শরীরের জন্য প্রয়োজনীয়। ফ্যাট, চিনি এবং কোলেস্টেরল কম থাকায় এটি পান করা নিরাপদ।

শুধু তাই নয়, ডাবের পানির মতোই উপকারী এর শাঁসও। যদিও আমাদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন, যারা ডাবের পানি খাওয়ার পর অপ্রয়োজনীয় ভেবে এর শাঁস ফেলে দেন। যা মোটেও বুদ্ধিমানের কাজ নয়।  

ডাবের শাঁসের পুষ্টিগুণ

ডাবের শাঁস পুষ্টিগুণে ভরপুর। প্রতি ১০০ গ্রাম ডাবের শাঁসে আছে ৩৫৪ ক্যালরি, ৩৩ গ্রাম ফ্যাট, ২০ মিলিগ্রাম সোডিয়াম, ৩৫৬ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম, ১৫ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট ও ৩.৩ গ্রাম প্রোটিন। এছাড়াও আছে ভিটামিন সি, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন বি-৬ ও বি-১২।

চলুন এবার জেনে নেয়া যাক ডাবের শাঁস আমাদের জন্য কতটা উপকারী-

ডাবের পানির মতোই উপকারী

ওজন বেড়ে যাওয়ার ভয় থেকে অনেকেই ডাবের শাঁস ফেলে দেন। এর কারণ হলো এতে ফ্যাটের পরিমাণ বেশি থাকে। কিন্তু ডাবের শাঁসের রয়েছে অনেকগুলো উপকারিতা। ডাবের পানি, নারকেল তেল কিংবা নারকেলের দুধের মতোই ডাবের শাঁসও আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য সমান উপকারী।

ওজন কমাতে সাহায্য করে

অনেকের ধারণা, ডাবের শাঁস খেলে তা ক্যালোরি বাড়িয়ে তোলে। আপনি যদি পরিমিত খান তাহলে আর ভয় নেই। এতে শরীরে ফ্যাট জমে না বা ওজনও বাড়ায় না। ডাবের শাঁস দীর্ঘ সময় পেট ভরিয়ে রাখে। ফলে বারবার ক্ষুধা লাগে না। তাই বারবার খাওয়ার প্রয়োজনও হয় না। তাইতো ওজন বৃদ্ধির ভয় থাকে না।

ইনসুলিন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে

যারা ডায়াবেটিসে ভুগছেন তাদের জন্য উপকারী হতে পারে ডাবের শাঁস। কারণ ডাবের শাঁস রক্তের ইনসুলিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে এবং ডায়াবেটিসের কারণে শরীরের বিভিন্ন ক্ষতি রোধ করতে সাহায্য করে। এছাড়াও এটি অস্টিওপরোসিসের ঝুঁকি রোধ করে, হাড় শক্ত করে, মানসিক চাপ কমায়, দাঁত ভালো রাখে। এমনকি কিডনি ভালো রাখতেও কাজ করে ডাবের শাঁস।

হজমে সাহায্য করে

অনেক ধরনের খাবার রয়েছে যা খেতে সুস্বাদু হলেও হজমে সমস্যা সৃষ্টি করে। ডাবের শাঁসের ক্ষেত্রে এমন কোনো সমস্যা নেই। বরং ডাঁবের শাঁস খেলে তা হজমে সাহায্য করে। এতে থাকে প্রচুর ফাইবার যা হজমক্ষমতা শক্তিশালী করার পাশিপাশি অন্ত্রকে সুস্থ রাখে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এএ