লিফট বন্ধ, অন্ধকার সিঁড়িতে খানাখন্দ

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৫ জুন ২০২১,   আষাঢ় ১ ১৪২৮,   ০৩ জ্বিলকদ ১৪৪২

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

লিফট বন্ধ, অন্ধকার সিঁড়িতে খানাখন্দ

কুমিল্লা প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:৪৯ ৯ জুন ২০২১  

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

নাঙ্গলকোট থেকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এসেছেন পঞ্চাশোর্ধ্ব আক্কাস আলী। বয়সের ভারে হাঁটতে পারছেন না, লিফট বন্ধ থাকায় তাকে রোগী বহনের ট্রলি দিয়ে দ্বিতীয় তলার অর্থোপেডিক্স বিভাগে নিয়ে যাচ্ছে একমাত্র নাতি এমদাদ। কিন্তু সিঁড়িতে খানাখন্দ থাকায় ব্যথায় চিৎকার করছে দাদা। পরে বাধ্য হয়ে কোলে করেই তাকে উপরে ওঠায় এমদাদ।

একই অবস্থা তৃতীয় ও চতুর্থ তলার। শুধু উপরে উঠতেই নয়, নিচে নামতে গিয়েও ব্যথায় চিৎকার করেন প্রসূতি, বৃদ্ধাসহ অসংখ্য রোগী। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের লিফট ও সিঁড়ির এ অবস্থা দীর্ঘদিনের। শুধু বহির্বিভাগই নয়, জরুরি বিভাগ, অপারেশন থিয়েটার, মেডিসিন, গাইনি, অর্থোপেডিক্সসহ অধিকাংশ বিভাগের রোগীদের নিত্যদিন এ দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

কুমেক হাসপাতালের আস্তরণ উঠে যাওয়া সিঁড়ি

সরেজমিনে দেখা গেছে, খসে পড়েছে হাসপাতালের পুরাতন ভবনের দেয়ালের আস্তরণ। ঘন ঘন ট্রলি ব্যবহারের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সিঁড়িও। আবার অধিকাংশ ট্রলি নষ্ট-অকেজো। এত অসুবিধার মধ্যে লিফট বন্ধ থাকায় ভোগান্তি বেড়েছে রোগীদের।

এক কর্মচারী জানান, হাসপাতাল স্থাপনের পর ভবনটি সংস্কার বা রং করানো হয়নি। ফলে দিনদিন ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। রোগীদের পাশাপাশি চিকিৎসক-স্টাফদেরও দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

 

বরুড়া উপজেলার ঝলম গ্রামের নাসরিন বেগম বলেন, এমনিতেই নানা ভোগান্তি পোহাতে হয়, তার ওপর টাকা না দিলে ট্রলি পাওয়া যায় না। প্রতিবার ট্রলির জন্য ১০০ টাকা করে দিতে হয়। সেবার চেয়ে এখানে টাকার খেলা বেশি। প্রায়ই বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করাতে রোগীদের বাইরে নিয়ে যেতে হয়।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. মহিউদ্দিন জানান, হাসপাতালের পুরাতন ভবনটি দেখাশোনার দায়িত্ব গণপূর্ত বিভাগের। চিঠির মাধ্যমে বিষয়টি তাদের জানানো হয়েছে। শিগগিরই সংস্কার শুরু হবে। লিফট চালু, সিঁড়ি মেরামতের পাশাপাশি পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করা হবে। এতে রাতেও রোগীদের দুর্ভোগ পোহাতে হবে না।

তিনি আরো জানান, ট্রলি ব্যবহারের জন্য টাকা নেয়ার বিষয়ে কোনো রোগী বা স্বজন অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর