গাজা শহরজুড়ে ইসরায়েলের আরো বোমা হামলা

ঢাকা, শনিবার   ১৯ জুন ২০২১,   আষাঢ় ৫ ১৪২৮,   ০৭ জ্বিলকদ ১৪৪২

গাজা শহরজুড়ে ইসরায়েলের আরো বোমা হামলা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:৪৯ ১৭ মে ২০২১  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু গাজার হামাসের বিরুদ্ধে চতুর্থ যুদ্ধের ইঙ্গিত দেয়ার কয়েক ঘণ্টা পরে সোমবার ভোরে গাজা শহরের বিভিন্ন স্থানে নতুন সিরিজ বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েলের যুদ্ধবিমান।

বিস্তীর্ণ অঞ্চলটিতে ভারী বোমা হামলায় ১০ মিনিটের জন্য শহরটি কেঁপে উঠে। ২৪ ঘণ্টা আগে যে হামলায় ৪২ জন ফিলিস্তিনি মারা গিয়েছিল তার থেকে অনেক বেশি মারাত্মকও ভয়ানক হামলা ছিল এটি।

হামলায় আহত হওয়ার কোনো তাৎক্ষণিক খবর পাওয়া যায়নি এবং প্রথম দিকে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ সম্পর্কে খুব কম তথ্য ছিল।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, শহরের পশ্চিমে মূল উপকূলীয় সড়ক নিরাপত্তাবেষ্টিত অঞ্চলে এবং খোলা জায়গাগুলিতে সর্বশেষ অভিযান আঘাত হানে।

বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থা জানিয়েছে, বিমান হামলাগুলি গাজা শহরের দক্ষিণাঞ্চলের বড় অংশগুলিতে বিদ্যুত সরবরাহকারী একটি লাইনের ক্ষতি করেছে।

রোববার এক ভাষণে নেতানিয়াহু বলেন, ইসরায়েলের আক্রমণ পুরোশক্তি দিয়ে চলছে। ইসরায়েল হামাসের হামলার কড়া জবাব দিতে চায়।

হামাস ইসরায়েলের বেসামরিক অঞ্চলগুলির দিকে গাজার বেসামরিক অঞ্চল থেকে রকেট ছুঁড়তে শুরু করে।

ইসরায়েলের জরুরি পরিষেবাগুলি জানিয়েছে আহত হওয়ার খবর এখনো পাওয়া যায়নি।

রোববার ভোরের দিকে ইসরায়েলি বিমান হামলায় পরিবারগুলি সিমেন্টের ধ্বংসস্তূপের আড়ালে এবং বাঁকানো রডের নিচে চাপা পড়েছিল। একটি হলুদ ক্যানারি মাটিতে চূর্ণবিচূর্ণহয়ে পড়েছিল। কাঁচ এবং ধ্বংসাবশেষ দিয়ে রাস্তাগুলি ঢাকা পড়েছিল এবং শহরতলীর পুরো শহর থেকে দূরে যেখানে তিনটি বিল্ডিং সকাল ৫টার দিকে পাঁচ মিনিটের মধ্যে ধ্বংস করা হয়েছিল

ইসরায়েল ও হামাসের ২০১৪ সালের বিধ্বংসী যুদ্ধের পরে এই হামলাকে সবচেয়ে বেশি ভয়ানক ও বিধ্বংসী হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে।

গাজার একটি জরুরি উদ্ধার কর্মকর্তা সামির আল-খতিব বলেছেন, ‘আমি আমার ১৪ বছরের কর্মজীবনে এমন ধ্বংসযজ্ঞ হতে দেখিনি।এমনকি ২০১৪ সালের যুদ্ধেও এমন দেখিনি।’

সূত্র: বিবিসি

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী