ফিলিস্তিনিদের সমর্থন করা ইউরোপে ‘অপরাধ’

ঢাকা, শনিবার   ১২ জুন ২০২১,   জ্যৈষ্ঠ ২৯ ১৪২৮,   ০১ জ্বিলকদ ১৪৪২

ফিলিস্তিনিদের সমর্থন করা ইউরোপে ‘অপরাধ’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:৩৭ ১৫ মে ২০২১  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ফিলিস্তিনে বোমা হামলা অব্যাহত রেখেছে ইসরায়েল। জাতিসংঘ জানিয়েছে, হামলা থেকে বাঁচতে এ পর্যন্ত ১০ হাজার ফিলিস্তিনি বাড়ি-ঘর ছেড়েছে। গত সোমবার থেকে ফিলিস্তিনে বোমা হামলা চালাচ্ছে ইসরায়েল। বোমা হামলায় এ পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছে ১৩৯ জন, এর মধ্যে ৩৮টি শিশুও রয়েছে। হামলায় এ পর্যন্ত ৯২০ জন আহত হয়েছে। ইসরায়েলের এই রকম ন্যাক্কারজনক আগ্রাসন নিয়ে যখন দেশে দেশে প্রতিবাদ দেখা যাচ্ছে, তখনও উল্টো পথে ইউরোপ। ফিলিস্তিনের ন্যায্য অধিকার আদায়ের সংগ্রামে সমর্থন করাকে যেন অপরাধের দৃষ্টিতে দেখছে তারা।

মহাদেশটিতে ইসরায়েলি দখলদারিত্বের প্রতিবাদে বিক্ষোভ আটকে দেয়া হচ্ছে, সরিয়ে ফেলা হচ্ছে ফিলিস্তিনপন্থী ব্যানার-পোস্টার। কেউ ফিলিস্তিনিদের পক্ষে আওয়াজ তুললেই পড়তে হচ্ছে ইসরায়েলপ্রেমীদের তোপের মুখে।

এর মধ্যে ফ্রান্সসহ কয়েকটি ইউরোপীয় দেশ ইসরায়েলের বিরুদ্ধে যেকোন বিক্ষোভের ক্ষেত্রে বেশ কড়াকড়ি আরোপ করেছে। ফিলিস্তিনিদের পক্ষে রাজধানী প্যারিসে বিক্ষোভ-সমাবেশ নিষিদ্ধ করতে পুলিশ কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছে ফ্রান্সের ইম্যানুয়েল ম্যাঁক্রো সরকার।

জানা যায়, ফরাসি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছাকাছি ইনভ্যালিডস চত্বরে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছিল ফিলিস্তিপন্থী কিছু সংগঠন। সেখানে ফিলিস্তিনিদের ওপর চলমান দমন-পীড়নের বিরুদ্ধে স্লোগান দেয়া হচ্ছিল। ফিলিস্তিনের পতাকা উড়িয়ে তাদের প্রতি সংহতি প্রকাশ করছিলেন শান্তিপ্রিয় মানুষেরা।

কিন্তু বিক্ষোভ শুরুর কিছুক্ষণের মধ্যেই ঘটনাস্থলে হাজির হয় ফরাসি পুলিশ। বিক্ষোভকারীদের তাড়িয়ে দেয়া হয় সেখান থেকে। জরিমানাও করা হয় অনেককে।

এক্ষেত্রে ফরাসিদের তুলনায় অনেকটা মারমুখী ছিল গ্রিক পুলিশ। তারা এথেন্সে ইসরায়েলি দূতাবাসের সামনে ফিলিস্তিনপন্থী বিক্ষোভকারীদের ওপর টিয়ারগ্যাস ছুড়েছে।

ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলি দখলদার বাহিনীর গত কয়েকদিন ধরে টানা বোমাবর্ষণের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন বিশ্বের শান্তিপ্রিয় মানুষজন। দেশে দেশ চলছে বর্বর এই হামলার প্রতিবাদ। অথচ ইউরোপেরদেশগুলো ইসরায়েলের সমালোচনা মেনে নিতে একেবারেই নারাজ। বিশেষ করে এর উল্লেখযোগ্য প্রভাব দেখা যাচ্ছে ক্রীড়াঙ্গনে।

সম্প্রতি ডাচ ক্লাব আয়াক্সের দুই মুসলিম ফুটবলার নুসাইর মাজরাউই এবং জাকারিয়া লাবিয়াদ ফিলিস্তিনিদের প্রতি সংহতি জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছবি একটি শেয়ার করে ক্লাব থেকে বহিষ্কারের হুমকি পেয়েছেন।

আয়াক্স ফ্যানসহ অনেক ইউরোপীয়ই এ দুই মরক্কোন ফুটবলারকে ক্লাব থেকে বহিষ্কারের দাবি জনিয়েছেন। ‘ফ্রি প্যালেস্টাইন’ ক্যাপশন দিয়ে পোস্ট শেয়ার করায় একজন টুইট করেছেন, এরপর আয়াক্সে মাজরাউইর আর জায়গা থাকতে পারে না।

এ ফুটবলার অবশ্য ইউএফসি চ্যাম্পিয়ন খাবিব নুরমাগোমেদভের একটি ইনস্টাগ্রাম পোস্ট শেয়ার করেছেন, যাতে লেখা ‘গাজার পক্ষে দাঁড়াতে আপনাকে মুসলিম হতে হবে না, মানুষ হলেই চলবে’।

এ ধরনের চাপের মুখে ফিলিস্তিনি জনগণের পক্ষে করা একটি টুইট ডিলিট করে দিয়েছে ইংলিশ ক্লাব ওয়েস্টহ্যাম।

গত ১২ মে স্কটিশ প্রিমিয়ারশিপ গেমে সেন্ট জনস্টনের বিপক্ষে মাঠে নেমেছিল সেল্টিক। সেখানে সেল্টিকের কিছু ‘ফ্যান’ ফিলিস্তিনিদের প্রতি সংহতি জানাতে ফিলিস্তিনের পতাকা নিয়ে হাজির হন। পরে গ্যালারির একটি অংশে ওই পতাকাগুলো টানিয়ে দেন তারা।

কিন্তু এটিকে ‘একেবারেই অগ্রহণযোগ্য’ দাবি করে দ্রুতই সেসব পতাকা সরিয়ে ফেলে সেল্টিক কর্তৃপক্ষ। এর জন্য একটি ‘ছোট গ্রুপ’ দায়ী বলে মন্তব্য করেছে স্কটিশ ক্লাবটি।

এক ফুটবল ফ্যান এর প্রতিবাদ জানিয়ে টুইটারে লিখেছেন, ‘ক্লাব ফিলিস্তিনের পাশে না দাঁড়ালেও ফ্যানরা সবসময় পাশে রয়েছে’।

এদিকে, ফিলিস্তিনে ভয়াবহ আগ্রাসন অব্যাহত রেখেছে ইসরায়েল। এরই মধ্যে এই আগ্রাসন আরো জোরদার করেছে দখলদার বাহিনী। শুক্রবার রাতেও ৪০ মিনিটে গাজার ১৫০টি লক্ষ্যবস্তুতে ৪৫০টি ক্ষেপণাস্ত্র ছুঁড়েছে দখলদার ইসরায়েলি বাহিনী।

সূত্র: টিআরটি ওয়ার্ল্ড

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী