মিয়ানমারে ঐক্য সরকারকে ‘সন্ত্রাসী’ আখ্যা দিল জান্তা

ঢাকা, রোববার   ২০ জুন ২০২১,   আষাঢ় ৮ ১৪২৮,   ০৮ জ্বিলকদ ১৪৪২

মিয়ানমারে ঐক্য সরকারকে ‘সন্ত্রাসী’ আখ্যা দিল জান্তা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:০৮ ৯ মে ২০২১  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

মিয়ানমারের জাতীয় ঐক্য সরকারকে ‘সন্ত্রাসী গোষ্ঠী’ হিসেবে চিহ্নিত করে দেশব্যাপী বোমা হামলা, অগ্নিসংযোগ ও হত্যাকাণ্ডের জন্য তাদের দায়ী করেছে দেশটির সামরিক শাসকরা।  শনিবার দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমের বরাতে এ তথ্য জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম রয়টার্স।

গত ১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত করে দেশটির সেনাবাহিনী। একইসঙ্গে নির্বাচিত নেতা অং সান সু চিকে গ্রেফতার করে। এর জেরে বড় ধরনের বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে মিয়ানমার জুড়ে। এতে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে কয়েকশ বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছেন। ক্ষমতা দখলের পর থেকে অবাধ তথ্যপ্রবাহ নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে সেনাশাসকরা। তাদের নেয়া পদক্ষেপের বিরুদ্ধে গেলে কারাদণ্ডের হুমকি দেয়া হচ্ছে।  

জাতীয় ঐক্যের এ সরকারকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আখ্যা দেয়ার আগে অবশ্য এই সরকারই মিয়ানমার জান্তাকে সস্ত্রাসী বলে আখ্যা দিয়েছিল। চলতি সপ্তাহে এই সরকারের তরফ থেকে জনগণকে দিয়ে একটি প্রতিরক্ষা বাহিনী গঠনের ঘোষণা দেয়া হয়েছিল। 

দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেল এমআরটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নতুন এই সরকারের সমস্ত কর্মকাণ্ড ও প্রতিরক্ষা বাহিনীর কর্মকাণ্ডগুলো এখন থেকে সন্ত্রাসবিরোধী আইনের আওতায় পরিচালিত হবে।  

মিয়ানমারের সন্ত্রাসবিরোধী আইন কেবল ওই গোষ্ঠীকেই নিষিদ্ধ করে না, তাদের সঙ্গে যে কোনো ধরনের যোগাযোগও নিষিদ্ধের আওতায় পড়বে। মিয়ানমার জান্তা এর আগে বিরোধীদের রাষ্ট্রদ্রোহেও অভিযুক্ত করেছে।    

শনিবারও মিয়ানমারের বিভিন্ন স্থানে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভ হয়েছে। অ্যাসিস্ট্যান্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনার্স গ্রুপের তথ্য অনুযায়ী, নিরাপত্তাবাহিনীর হাতে এ পর্যন্ত ৭৭৪ জন নাগরিক নিহত হয়েছে ও ৩ হাজার ৭৭৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।  

জান্তা বলছে, নিরাপত্তা বাহিনীর অন্তত ২৪ জন নিহত হয়েছে বিক্ষোভ চলাকালে। জাতিগত বিভিন্ন গোষ্ঠীর সাথে নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষও বেড়েছে দেশটিতে। এসব গোষ্ঠীর অনেকগুলো কয়েক দশক ধরে লড়াই চালিয়ে আসছে। এখন তারা জান্তাবিরোধী চলমান বিক্ষোভে সাধারণ বিক্ষোভকারীদের সঙ্গেও বিক্ষোভে অংশ নিচ্ছে। 

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের নভেম্বরে মিয়ানমারে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এ নির্বাচনে জয় লাভ করে অং সান সু চির দল। সু চি মিয়ানমানের গণতন্ত্রের জন্য কয়েক দশক ধরে লড়াই করছেন। তবে ওই নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ তুলে ক্ষমতা দখল করে দেশটির সেনাবাহিনী। কারচুপির অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে দেশটির নির্বাচন কমিশন।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএএইচ