টিভি চ্যানেল নিয়ে চীন-যুক্তরাজ্যের মধ্যে তীব্র লড়াই

ঢাকা, বুধবার   ১৪ এপ্রিল ২০২১,   বৈশাখ ২ ১৪২৮,   ০১ রমজান ১৪৪২

টিভি চ্যানেল নিয়ে চীন-যুক্তরাজ্যের মধ্যে তীব্র লড়াই

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:৪৫ ৯ মার্চ ২০২১   আপডেট: ১৫:৪৮ ৯ মার্চ ২০২১

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাজ্যের সম্প্রচার আইন ভঙ্গের দায়ে চীনা স্যাটেলাইট চ্যানেল সিজিটিএনকে দুই লাখ ৬০ হাজার ইউরো জরিমানা করেছে ব্রিটিশ রেগুলেটর অফকম।

গতমাসেই এই চ্যানেলের লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছিল। এবার ব্রিটিশ নিয়ম না মেনে মোট ছয়টি অনুষ্ঠান দেখানোর জন্য ওই বিপুল অঙ্কের অর্থ জরিমানা করা হয়েছে।

এর মধ্যে সব চেয়ে বেশি জরিমানা হয়েছে পিটার হামফ্রিকে নিয়ে একটি অনুষ্ঠান প্রচারের জন্য। পিটার অফকমের কাছে নালিশ করেছিলেন যে, একটি মামলায় জোর করে তার জবানবন্দি নেয়া হয়েছে।

২০১৪ সালে সাংহাইতে দুর্নীতির মামলায় তার দুই বছর জেল হয়। সেটা নিয়েই চীনা চ্যানেল রিপোর্ট প্রকাশ করেছিল। চীনের এই চ্যানেলের মালিক হলো, স্টার চায়না মিডিয়া লিমিটেড। তারা সাধারণত চীনের কমিউনিস্ট পার্টির মুখপাত্র হিসাবেই কাজ করে বলে অভিযোগ। অবশ্য তাদের যুক্তি ছিল, জনস্বার্থেই তারা ওই রিপোর্ট দেখিয়েছে।

অফকমের বক্তব্য, পিটারের অভিযোগ যাচাই না করে একপেশে রিপোর্টিং করা হয়েছে, যা তাদের নিয়ম ভঙ্গ করছে। সেজন্যই এক লাখ দশ হাজার ইউরো জরিমানা করা হয়েছে। আর ২০১৯ সালে পাঁচটি রিপোর্টের ক্ষেত্রে বিধি ভাঙার জন্য আরো এক লাখ ৫০ হাজার ইউরোর জরিমানা করা হয়েছে।

গত মাসেই অফকম এই চ্যানেলের লাইসেন্স বাতিল করেছে, কারণ, তাদের অভিযোগ, এই চ্যানেলের মালিকানা কাঠামোও যুক্তরাজ্যের আইনের বিরোধী। নিয়মানুসারে তারপরেও আগে প্রচারিত হওয়া অনুষ্ঠানের জন্য তাদের জরিমানা হতে পারে।

চীনও বিবিসি ওয়ার্ল্ড নিউজকে সেদেশে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে। চীনের দাবি, বিসিসি তাদের দেশের বিধি ভেঙেছে। বিবিসি উইগুরদের নিয়ে যে রিপোর্ট করেছে, তা তাদের দেশের আইনের বিরোধী। চীনের নিয়ম হলো, রিপোর্ট সত্যের উপর ভিত্তি করে হতে হবে এবং নিরপেক্ষ হতে হবে।

সূত্র: ডয়চে ভেলে, রয়টার্স

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী