সিরিয়ায় হামলার পর ইরানকে বাইডেনের হুমকি

ঢাকা, রোববার   ১১ এপ্রিল ২০২১,   চৈত্র ২৮ ১৪২৭,   ২৭ শা'বান ১৪৪২

সিরিয়ায় হামলার পর ইরানকে বাইডেনের হুমকি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৫৩ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে জো বাইডেনের শাসনামলে প্রথমবারের মতো সিরিয়ায় বিমান হামলা চালিয়েছে মার্কিন বাহিনী। প্রেসিডেন্টের নির্দেশে গত বৃহস্পতিবার দেশটিতে ‘ইরানপন্থী যোদ্ধাদের’ ব্যবহৃত বেশ কিছু সামরিক স্থাপনা ধ্বংস করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এ নিয়ে নিজের দেশেই ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছেন বাইডেন। তবে এ হামলা ইরানের জন্য সতর্কবার্তা ছিল বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

সংবাদ সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়, বিমান হামলা থেকে কোনো বার্তা পাঠাতে চেয়েছেন কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে জো বাইডেন দৃশ্যত ইরানকে উদ্দেশ করে বলেন, দায়মুক্ত হয়ে আপনি কাজ করতে পারেন না।

টেক্সাসে সম্প্রতি ব্যাপক তুষারঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া লোকজনকে সহায়তাদানের প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে এক পরিদর্শনে গিয়ে হাউসটনে বাইডেন এ মন্তব্য করেন। এ সময় তিনি আরো বলেন, সতর্ক হয়ে যান।

এদিকে সিরিয়া এ হামলাকে ‘কাপুরুষোচিত মার্কিন আগ্রাসন’ বলে নিন্দা জানিয়েছে। এছাড়া ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মার্কিন পদক্ষেপের কঠোর প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে এটিকে ‘অবৈধ হামলা’ বলে আখ্যায়িত করেছে।

গত দুই সপ্তাহে সিরিয়ায় মার্কিন সেনাদের ওপর কিছু রকেট হামলার প্রেক্ষাপটে যুক্তরাষ্ট্র এই অভিযান চালিয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির কর্মকর্তারা। সিরিয়া যুদ্ধের ওপর নজর রাখা যুক্তরাজ্যভিত্তিক পর্যবেক্ষক সংগঠন সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস হামলায় অন্তত ২২ যোদ্ধা নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে।

মার্কিন বাহিনীর হামলা প্রসঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা সদর দফতর পেন্টাগনের মুখপাত্র জন কিরবি বলেন, প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নির্দেশনায় হামলাটি চালানো হয়েছে। সিরিয়ায় মার্কিন ও যৌথ বাহিনীর ওপর সম্প্রতি যে রকেট হামলা হয়েছে, তার জবাব দিতেই যে শুধু বাইডেন এ হামলাকে অনুমোদন দিয়েছেন তা নয়, বরং মার্কিন সেনাদের ওপর হুমকির বিষয়কেও মোকাবিলা করতে বলেছেন তিনি।

কিরবি আরো বলেন, সিরিয়ায় মোতায়েন যৌথ বাহিনীর অংশীদার ও মার্কিন মিত্রদেশগুলোর সঙ্গে পরামর্শ করেই প্রেসিডেন্ট বাইডেন হামলা চালানোর এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এ হামলায় সিরিয়া সীমান্তে ইরানসমর্থিত কাইতিব হিজবুল্লাহ, কাইতিব সায়েদ আল শুহাদাসহ কয়েকটি মিলিশিয়া গোষ্ঠীর বিভিন্ন স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার সিরিয়া ও ইরান ওই মার্কিন বিমান হামলার নিন্দা জানিয়েছে। এই হামলাকে বাইডেনের নতুন প্রশাসনের কাছ থেকে পাওয়া এক খারাপ লক্ষণ বলে আখ্যায়িত করেছে দামেস্ক।
জন কিরবি বলেন, বৃহস্পতিবারের হামলায় দুটি এফ-১৫ই স্ট্রাইক ইগলস থেকে সাতটি বোমা ফেলা হয়েছে।

হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি বলেন, বাইডেন ওই হামলার মধ্য দিয়ে ‘এক দ্ব্যর্থহীন বার্তা’ পাঠাচ্ছেন। যখন হুমকি দেখা দেয়, তখন মার্কিনদের সুরক্ষা দিতে চাইছেন তিনি। সময়োপযোগী ও পছন্দমতো পদক্ষেপ নেয়ার অধিকার তার রয়েছে।

এদিকে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন বলেছেন, ‘বাইডেন প্রশাসন বিশেষত ইরানকে এটি খুবই, খুবই পরিষ্কার করে দেখিয়ে দিতে চায় যে আমাদের জনগণ, আমাদের অংশীদার ও আমাদের স্বার্থের বিরুদ্ধে তাকে দায়মুক্তির ভিত্তিতে কোনো কাজ করতে দেয়া হবে না। তিনি আরো বলেন, আমার ধারণা, তারা সেই বার্তা পরিষ্কারভাবে পেয়ে গেছে।

সিরিয়া এ হামলাকে ‘কাপুরুষোচিত মার্কিন আগ্রাসন’ বলে নিন্দা জানিয়েছে। এছাড়া ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মার্কিন পদক্ষেপের কঠোর প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে এটিকে ‘অবৈধ হামলা’ বলে আখ্যায়িত করেছে।

কিরবি বলেন, হামলায় ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে প্রাথমিক বিস্তারিত তথ্য পেয়েছে পেন্টাগন। তবে এ নিয়ে কিছু প্রকাশ করতে অস্বীকৃতি জানায় মার্কিন প্রতিরক্ষা সদর দফতর। কিরবি দাবি করেন, বিমান হামলায় মিলিশিয়াদের ব্যবহৃত নয়টি স্থাপনা পুরোপুরি গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে। আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে আরো দুটি।

বাইডেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে একটি সমঝোতায় আসার চেষ্টা করছে ওয়াশিংটন ও তেহরান। বৃহস্পতিবারের হামলা ইরানের কর্মসূচি নিয়ে চলমান ভঙ্গুর সমঝোতাপ্রক্রিয়াকে জটিল করে তুলবে বলে মনে করা হচ্ছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/আরএএইচ