সৌদি বাদশাহর সঙ্গে কথা বললেন বাইডেন

ঢাকা, শনিবার   ১০ এপ্রিল ২০২১,   চৈত্র ২৮ ১৪২৭,   ২৬ শা'বান ১৪৪২

সৌদি বাদশাহর সঙ্গে কথা বললেন বাইডেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:৪০ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১   আপডেট: ১৭:৩০ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১

ছবি: জো বাইডেন ও বাদশাহ সালমান

ছবি: জো বাইডেন ও বাদশাহ সালমান

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর প্রথমবারের মতো সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ আল সৌদের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন জো বাইডেন। গুরুত্বপূর্ণ এই ফোনালাপে সৌদি বাদশাহর সঙ্গে মানবাধিকার এবং আইনের শাসনসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন তিনি।

মার্কিন প্রশাসন এক বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, তাদের মধ্যে একাধিক বিষয়ে কথা হয়েছে। তবে বাইডেন বাদশাহকে জানিয়েছেন, যুক্তরাষ্ট্র আইনের শাসন এবং মানবাধিকারকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়।

ধারণা করা হচ্ছে, সাংবাদিক জামাল খাশোগির হত্যাকাণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতেই বাইডেন এ কথা বলেছেন বলে বিশেষজ্ঞদের ধারণা।

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের আমলে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে অভূতপূর্ব ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল সৌদি আরবের। বিশেষ করে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান বা এমবিএসের ছিল মারাত্মক সুসময়! প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তার সঙ্গে ব্যক্তিগত সম্পর্ক গড়েছিলেন এবং ইয়েমেন যুদ্ধে মার্কিন অস্ত্র ব্যবহারে ব্যাপক স্বাধীনতা দিয়েছিলেন।

তবে বাইডেন প্রশাসন সৌদি ইস্যুতে ট্রাম্পের সেই নীতি থেকে সরে আসছে। ইয়েমেন যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র সৌদিকে আর সমর্থন দেবে না বলে এরইমধ্যে ঘোষণা দিয়েছে।

সূত্র জানিয়েছে, বৃহস্পতিবারের আলোচনায় সৌদি বাদশাহ সে বিষয়ে বাইডেনকে জানিয়েছেন। বাইডেন তাকে বলেছেন, তিনিও সৌদির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রাখতে চান। কিন্তু মানবাধিকারের বিষয়ে তিনি আপস করবেন না বলেও স্পষ্ট করে দিয়েছেন বাইডেন।

সম্প্রতি সাংবাদিক জামাল খাশোগির আলোচিত হত্যাকাণ্ডের মার্কিন রিপোর্ট পড়েছেন বাইডেন। রিপোর্টটি এখনো প্রকাশিত হয়নি। সেখানে সাংবাদিকের হত্যার পিছনে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের হাত আছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

২০১৮ সালে ইস্তানবুলে সৌদি দূতাবাসে সাংবাদিককে হত্যা করা হয়েছিল। সৌদি যুবরাজের নির্দেশেই এই ঘটনা ঘটে বলে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়। কিন্তু স্বাভাবিক ভাবেই সৌদি প্রশাসন তা অস্বীকার করে।

পরে সৌদি আরব জানায়, কয়েকজন এজেন্ট এ কাজ করেছে। সম্প্রতি ওই হত্যায় জড়িত অভিযোগে পাঁচজনকে ২০ বছরের সাজাও দিয়েছে সৌদি আদালত।

বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, মানবাধিকার এবং আইনের শাসনের কথা বলে বাইডেন বাদশাহ সালমানকে ওই ঘটনার কথাই মনে করিয়ে দিতে চেয়েছেন। যদিও সাংবাদিক খাশোগির নাম নেননি বাইডেন। তবে সম্প্রতি লুজাইন আল-হাথলুলসহ অন্য মানবাধিকার কর্মীদের মুক্তি দেয়াকে ইতিবাচক হিসেবে বর্ণনা করেছেন তিনি। এছাড়া এক নারী মানবাধিকার কর্মীকে মুক্তি দেয়া নিয়েও তাদের মধ্যে আলোচনা হয়েছে।

পাশাপাশি দুই দেশের দীর্ঘ সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা হয়েছে দুই রাষ্ট্রপ্রধানের। আগামী দিনেও তা যাতে বজায় থাকে, তা সুনিশ্চিত করা হবে বলে দুই রাষ্ট্রপ্রধানই আশ্বাস দিয়েছেন।

সূত্র: আরব নিউজ

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী