বিক্ষোভে উত্তাল দিল্লিতে সংঘর্ষে নিহত ১, লালকেল্লা দখল কৃষকদের

ঢাকা, মঙ্গলবার   ০২ মার্চ ২০২১,   ফাল্গুন ১৭ ১৪২৭,   ১৭ রজব ১৪৪২

বিক্ষোভে উত্তাল দিল্লিতে সংঘর্ষে নিহত ১, লালকেল্লা দখল কৃষকদের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:১৫ ২৬ জানুয়ারি ২০২১  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

পুলিশের সঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষ, টিয়ার গ্যাস আর মোড়ে মোড়ে বসানো কাঁটাতারের ব্যারিকেড ভেঙে দিল্লির ঐতিহাসিক লাল কেল্লায় পৌঁছে গেছে ভারতের আন্দোলনরত কৃষকেরা। ভেতরে প্রবেশের দূর্গের চূড়ায় উড়িয়ে দেয়া হয়েছে কৃষকদের পতাকা।

এদিকে ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসে কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে ট্র্যাক্টর র‌্যালিতে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। তবে পুলিশ দাবি করছে, ট্র্যাক্টর চাপায় তার মৃত্যু হয়েছে যদিও বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ, পুলিশের লাঠির আঘাতে মৃত্যু হয়েছে তার।

পূর্ব ঘোষিত ট্রাক্টর র‌্যালি নিয়ে কৃষকেরা মঙ্গলবার দিল্লি অভিমুখে রওনা দিলে তাদের ঠেকাতে মরিয়া হয়ে ওঠে পুলিশ।

ভারতের নতুন প্রবর্তিত কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে দিল্লি সীমান্তে গত দুই মাস ধরে অবস্থান নিয়ে আন্দোলন করে আসছে কৃষকেরা। দিল্লির প্রবল ঠান্ডার মাঝে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়া কৃষকদের সঙ্গে ভারত সরকারের ১১ বার বৈঠক হলেও সেখানে আইন প্রত্যাহার নয়, স্থগিত রাখার প্রস্তাবই দেওয়া হয়েছে। তবে তা মেনে নিতে অস্বীকার করে আসা কৃষকেরা প্রজাতন্ত্র দিবসে ট্রাক্টর র‌্যালির কর্মসূচি ঘোষণা করে।

দিল্লি পুলিশের তরফে জানানো হয়েছিলো, মঙ্গলবার দুপুর নাগাদ কৃষকেরা মিছিল নিয়ে তিনটি নির্দিষ্ট রুট ঘুরে আবারও শুরুর স্থানে ফিরে আসবে। তবে পুলিশের ওই ঘোষণা মানেনি কৃষকেরা। সকাল থেকে নিজেদের অবস্থান ছেড়ে দিল্লির দিকে ছুটতে থাকে তারা। পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে কৃষকেরা এগুতে থাকলে দিল্লির নয়ডা মোড়, আইটিও মোড়, এসবিটি এলাকায় কৃষকদের সঙ্গে পুলিশে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

নয়ডা মোড়ের একাধিক ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে, রাজধানীর দিকে এগুতে থাকা কৃষকদের ওপর টিয়ার গ্যাস ছুড়ছে পুলিশ। পাশাপাশি চালানো হয়েছে লাঠিচার্জ। তবে কোনও কিছুতেই পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে আসেনি। সব বাধা উপেক্ষা করেই এগিয়ে যেতে থাকে কৃষকদের মিছিল।

আইটিও মোড়ে পুলিশের স্থাপন করা কাঁটাতারের ব্যারিকেড ভেঙে বিপুল সংখ্যক ট্রাক্টর নিয়ে দিল্লির ভেতরে ঢুকে পড়ে কৃষকেরা। কাছে থাকা পুলিশ সদর দফতরে বিক্ষোভরত কৃষকেরা ঢুকে পড়েন কিনা তা নিয়েও আশঙ্কা তৈরি হয়।

রয়টার্স টেলিভিশনে প্রচারিত ফুটেজে দেখা গেছে, বিক্ষোভরত হাজার হাজার কৃষক ঐতিহাসিক লাল কেল্লায় প্রবেশ করেছে। সেখানে আসা পাঞ্জাবের ৫৫ বছর বয়সী কৃষক সুখদেব সিং বলেন, ‘(প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র) মোদিকে আমাদের কথা এখন শুনবেন, তাকে এখন আমাদের কথা শুনতে হবে।’

ট্রাক্টর র‍্যালির আয়োজক সম্মিলিত কিষান মোর্চা এক বিবৃতিতে জানিয়ে রেড ফোর্টে ঢুকে পড়ার কর্মসূচি তাদের ছিলো না। বিক্ষোভরত কৃষকদের একাংশ নির্দিষ্ট রুট ছেড়ে বেরিয়ে সেখানে ঢুকে পড়ে।

মোর্চার বিবৃতিতে বলা হয়েছে, তাদের সব নেতারাই নির্ধারিত রুট অনুসরণ করেই বিক্ষোভে অংশ নিয়েছে।

কৃষকদের আন্দোলনের আবহে বারংবার তাঁদের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। দেশের অন্নদাতাদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, 'কৃষকদের স্বার্থেই সংস্কার করা হচ্ছে। নিজের পণ্য় ভালো দামে ও পরিকাঠামোয় সরাসরি বিক্রি করার স্বাধীনতা কি কৃষকদের দেয়া উচিত নয়।'

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী