প্রেমের ফাঁদে ফেলে অপহৃত কিশোরীকে দম্পতি সেজে উদ্ধার করল পুলিশ

ঢাকা, শনিবার   ০৬ মার্চ ২০২১,   ফাল্গুন ২২ ১৪২৭,   ২১ রজব ১৪৪২

প্রেমের ফাঁদে ফেলে অপহৃত কিশোরীকে দম্পতি সেজে উদ্ধার করল পুলিশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০৯:৪৩ ১১ জানুয়ারি ২০২১  

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

প্রেমের ফাঁদে ফেলে এক কিশোরীকে অপহরণের ফিরিয়ে দিয়ে টাকা হাতিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা করেছিল এক তরুণ। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগনার বসিরহাটে এ ঘটনা ঘটে। 

ওই কিশোরীকে একটি ধাবায় নিয়ে লুকিয়ে রাখা হয়েছিল। পরে দম্পতি সেজে তাকে উদ্ধারের পর অভিযুক্ত তরুণকে গ্রেফতার করে কলকাতার নিউ আলিপুর থানা পুলিশ। রোববার অভিযুক্ত সুজয় হাজরাকে আদালতে তোলা হলে তাকে ১৩ জানুয়ারি পর্যন্ত পুলিশ হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন বিচারক।

পুলিশ জানিয়েছে, অনলাইন মেসেজিং অ্যাপ হোয়াটস অ্যাপের প্রোফাইল ছবিতে ‘এক সুদর্শন তরুণের’ ছবি দেখে প্রেমে পড়ে কলকাতার নিউ আলিপুরের ওই কিশোরী। কিন্তু প্রেমের ফাঁদে ফেলে তাকে অপহরণের পরিকল্পনা করে ওই তরুণ। এরই মধ্যে তারা দেখাও করলে ওই কিশোরী বুঝতে পারে, প্রোফাইল ছবিটি ভুয়া। তবুও সম্পর্ক চালিয়ে যায় সে।

গত শুক্রবার হঠাৎ করেই সে নিখোঁজ হয়ে যায়। পরিবারের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে তদন্তে নামে পুলিশ। এরপর তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় তাদের অবস্থান শনাক্ত করা হয়।

এদিকে, ওই কিশোরীর চাচাকে ফোন করে বলা হয়, আপনাদের বাড়ির মেয়ে কি হারিয়ে গেছে? আমরা খুঁজে দেব। কিন্তু টাকা দিতে হবে।

বিষয়টি জানানো হয় পুলিশকে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ফোনের অবস্থান বসিরহাটে। কিন্তু ফোনের মালিক একজন বয়স্ক ব্যক্তি। 

তিনি জানান, অজ্ঞাতপরিচয় এক তরুণ নিজের ফোন হারিয়ে যাওয়ার কথা বলে কল করার জন্য ফোনটি নিয়েছিল।

এরপর পুলিশ নিশ্চিত হয়ে ওই কিশোরীর ছবি নিয়ে ওই এলাকার প্রত্যেকটি হোটেল ও ধাবায় তল্লাশি চালায়। একটি ধাবার মালিক জানান, ওই কিশোরীর ‘স্বামী’ ধাবার একটি রুম ভাড়া নিয়েছে। দম্পতি সেজে এক পুলিশের দুই সদস্য ওই রুমে যান। ওই কিশোরীই দরজা খোলে। জানায়, তার নতুন বিয়ে হয়েছে। ‘স্বামী’ বাজারে গেছে। এরপর মেয়েটির সঙ্গে গল্প করার ছলে ফাঁদ পাতে ছদ্মবেশী পুলিশ। ওই তরুণ ফেরা মাত্রই তাকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশি জেরায় অভিযুক্ত সুজয় জানিয়েছে, তার প্রেম ছিল প্রতারণার ফাঁদ। এভাবে আগেও টাকা হাতিয়ে নিয়েছে সে ও তার সহযোগীরা। প্রতারণা করে মেয়েদের সঙ্গে প্রথমে প্রেমের অভিনয় করে পালিয়ে বিয়ের নাটক সাজানো হয়। পরে মেয়েটির বাড়ির লোকদের ডেকে এনে মোটা টাকা হাতিয়ে নেয় সুজয় ও তার সহযোগীরা। এরপর সেই ‘অপহৃত’ তরুণী বা কিশোরীকে তুলে দেয় পরিবারের লোকেদের হাতে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএস