১৫ মাস পর বন্দী ফিলিস্তিনি শিক্ষার্থীকে মুক্তি দিল ইসরায়েল

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৬ জানুয়ারি ২০২১,   মাঘ ১২ ১৪২৭,   ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪২

১৫ মাস পর বন্দী ফিলিস্তিনি শিক্ষার্থীকে মুক্তি দিল ইসরায়েল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:২৯ ২ ডিসেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৫:৪২ ২ ডিসেম্বর ২০২০

ছবি: মায়েস আবু ঘোসা

ছবি: মায়েস আবু ঘোসা

গ্রেফতারের ১৫ মাস পর ফিলিস্তিনি শিক্ষার্থী মায়েস আবু ঘোসাকে মুক্তি দিয়েছে ইসরায়েলি বাহিনী। বিরজেইত বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগের এই শিক্ষার্থীকে ২০১৯ সালের আগস্টে গ্রেফতার করা হয়েছিল।

তার বিরুদ্ধে ইসরায়েলের সামরিক আদেশে নিষিদ্ধ করা ডেমোক্র্যাটিক প্রগ্রেসিভ স্টুডেন্ট পোলের সদস্য হওয়া এবং ইসরায়েলি দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের কার্যক্রমে জড়িত থাকার অভিযোগ গঠন করা হয়। এছাড়া আরো বেশ কয়েকটি অভিযোগ আনা হয় ২২ বছর বয়সী এই শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে।

ফিলিস্তিনিদের নিজ ভূমিতে ফেরার অধিকার নিয়ে এক সম্মেলনে যোগ দেয়ার পর শিক্ষার্থী মায়েস আবু ঘোসার বিরুদ্ধে শত্রুর সঙ্গে যোগাযোগের অভিযোগ আনা হয়। এছাড়া তার বিরুদ্ধে হিজবুল্লাহ সমর্থক একটি বার্তা সংস্থায় কাজ করার অভিযোগও আনা হয়।

গ্রেফতারের ১৫ মাস পর প্রায় ছয়শ’ মার্কিন ডলার জরিমানা করে মুক্তি দেয়া হয়। ইসরায়েলের দামুন কারাগার থেকে মুক্তির পর তাকে জালামেহ চেকপয়েন্টে নিয়ে যায় ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ। দখলকৃত পশ্চিম তীরের জেনিন শহরের কাছের এই চেকপয়েন্টেই পরিবার ও বন্ধুরা স্বাগত জানায় এই ফিলিস্তিনি শিক্ষার্থীকে।

মানবাধিকার সংস্থাগুলো জানায়, আবু ঘাসা তার সঙ্গে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন।

কুখ্যাত মাসকোবিহ জিজ্ঞাসাবাদ কেন্দ্রে তাকে এক মাসেরও বেশি কঠিন সময় পার করতে হয়। এসময় তাকে পঙ্গু করে কিংবা মানসিকভাবে বিধ্বস্ত করে পরিবারের কাছে ফেরত পাঠানোর হুমকিও দেয়া হয়। এছাড়া অন্য ফিলিস্তিনি বন্দিদের চিৎকার ও নির্যাতনের শব্দও শুনতে বাধ্য করা হয় তাকে।

মুক্তি পাওয়ার এক দিন পর আবু ঘোসা আল জাজিরাকে বলেছেন, জিজ্ঞাসাবাদ ও নির্যাতনের সময় তার সঙ্গে যেসব আচরণ করা হয়েছে তার সবকিছুই প্রকাশ করতে চান তিনি। ফিলিস্তিনি এই শিক্ষার্থী মনে করেন তার সঙ্গে যে আচরণ করা হয়েছে তা অন্য যেকোনও ফিলিস্তিনি নাগরিকের সঙ্গেও করা হতে পারে।

সূত্র: আল-জাজিরা

ডেইলি বাংলাদেশ/মাহাদী