সৌদি কারাগারে নারী মানবাধিকার কর্মীর অনশন

ঢাকা, শনিবার   ০৫ ডিসেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ২১ ১৪২৭,   ১৮ রবিউস সানি ১৪৪২

সৌদি কারাগারে নারী মানবাধিকার কর্মীর অনশন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৪:১০ ২৮ অক্টোবর ২০২০  

লুজাইন আল-হাসুল

লুজাইন আল-হাসুল

সৌদি আরবের নারী মানবাধিকার কর্মী লুজাইন আল-হাসুল কারাগারে অনশন শুরু করেছেন। কারাগারে বন্দি থাকা অবস্থায় লুজাইনকে তার পরিবারের লোকজনের সঙ্গে দেখা করতে দেয়া হয়না। এরই প্রতিবাদে সোমবার সন্ধ্যা থেকে তিনি অনশন শুরু করেছেন বলে টুইটারে জানিয়েছেন তার দুই বোন লিনা ও আলিয়া।

মঙ্গলবার টুইটারে লিনা জানান, সোমবার তাদের বাবা-মা লুইজানকে কারাগারে দেখতে গিয়েছিলো। তখন তিনি এই প্রতিবাদের কথা জানিয়েছেন। লুজাইন আমাদের বাবা মাকে বলেছেন, তিনি তার পরিবারের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পাননা তাদের কণ্ঠস্বর শুনতে পাননা। পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা থেকে বঞ্চিত হয়ে ক্লান্ত হয়ে পড়েছেন তিনি। তাই পরিবারের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ করার অনুমতি না দেয়া পর্যন্ত অনশন করার কথা জানিয়েছেন লুইজান।

চলতি বছরের শুরুর দিকে এক প্রতিবেদনে ব্লুমবার্গ নিউজ জানিয়েছে, মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে বন্দিদের সঙ্গে তাদের পরিবারের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয় সৌদি কর্তৃপক্ষ। বন্দিদের সাধারণত তাদের পরিবারকে মাঝে মাঝে ফোন করার সুযোগ দেয়া হতো। কিন্তু কারাবন্দিদের মধ্যে অনেককেই গত কয়েকমাস ধরে তাদের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে দেয়া হয়নি বলে জানানো হয় ওই প্রতিবেদনে।

এর আগে, গত আগস্ট মাসে ছয় দিনের জন্য অনশন করেছেন লুজাইন। সেসময়ে ছয় মাসে দুইজন পারিবারিক সদস্য তার সঙ্গে দেখা করতে পারতেন। তিন মাস পর অবশেষে গত মাসে লুইজানের পরিবার তার সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পায়। সেসময়ে তার বাবা মা জানান, অনশন চালিয়ে যাওয়ার কারণে তার স্বাস্থ্যের অনেক অবনতি হয়েছে।

বেশ কয়েকটি মানবাধিকার সংগঠন জানিয়েছে, সৌদি কারাগারের জিজ্ঞাসাবাদকারীরা বৈদ্যুতিক শক, বেত্রাঘাত ও যৌন হয়রানিসহ বিভিন্নভাবে নির্যাতন করেছে লুজাইনকে। তাকে যথাযথ বিচার প্রক্রিয়া থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলো জানতে পারার ১০ মাস আগ থেকেই তাকে বন্দি করে রাখা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সাল থেকে সৌদি কারাগারে বন্দি রয়েছেন লুজাইন। কানাডার ব্রিটিশ কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্রাজুয়েট করা ৩১ বছর বয়সী লুজাইনকে আটক করে রাজধানী রিয়াদের আল-হেয়ার কারাগারে রাখা হয়েছে। নারীদের ওপর থেকে গাড়ি চালানোর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার আন্দোলনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় ছিলেন তিনি। ২০১৪ সালেও তাকে ৭০ দিনের জন্য আটক করা হয়েছিলো।

সূত্র- মিডল ইস্ট আই

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএমএফ