ফোনে অশ্লীল ভাষায় উত্ত্যক্তকারীকে মেরে ফেললেন মা-মেয়ে

ঢাকা, বুধবার   ২৫ নভেম্বর ২০২০,   অগ্রহায়ণ ১১ ১৪২৭,   ০৮ রবিউস সানি ১৪৪২

ফোনে অশ্লীল ভাষায় উত্ত্যক্তকারীকে মেরে ফেললেন মা-মেয়ে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:১৩ ২৬ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ২০:১৬ ২৬ অক্টোবর ২০২০

ফোনে অশ্লীল ভাষায় উত্ত্যক্তকারীকে মেরেই ফেললেন মা-মেয়ে

ফোনে অশ্লীল ভাষায় উত্ত্যক্তকারীকে মেরেই ফেললেন মা-মেয়ে

মা ও মেয়ে দুইজনই বিধবা। তাদের ফোনে অশ্লীল ভাষায় কথা বলে উত্ত্যক্ত করতেন এক ব্যক্তি। এতে ক্ষুব্ধ মা ও মেয়ে ওই ব্যক্তিকে ডেকে এনে মারধর করেন। পরে রেললাইনে উত্ত্যক্তকারীকে ফেলে আসেন তারা। কিছুক্ষণ পরেই তার মৃত্যু হয়।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এবিপি এক প্রতিবেদনে জানায়, ভারতের তামিলনাড়ুর কোয়েম্বাটোরের পেরিয়ার নগরে ৩২ বছরের নারীকে ফোনে উত্ত্যক্ত করতেন একজন ব্যক্তি। ফোনে অশ্লীল ও নোংরা ভাষায় কথা বলতেন।

কারামাডির পুলিশ জানায়, কিছুদিন আগে অচেনা নাম্বার থেকে একটি ফোন পান ৩২ বছরের বিধবা নারী। এতে অপরিচিত ব্যক্তিকে রং নম্বর বলে লাইন কেটে দেন। কিন্তু ওই ব্যক্তি বারবার ফোন করতে থাকে। এতে উত্ত্যক্তকারীকে ফোন করতে নিষেধ করা হয়। কিন্তু অপরিচিত ব্যক্তিটি নিয়মিত উত্ত্যক্ত করে যাচ্ছিলেন।

মেয়েকে ফোনে যে অশ্লীল কথাবার্তা বলা হতো, তা রেকর্ড করে মাকে সব কিছু জানানো হয়। তারা অভিযুক্তের পরিচয় জানতে উত্ত্যক্তকারীকে বাড়িতে ডাকেন। উত্ত্যক্তকারী বাড়িতে এলে দুই পক্ষের মধ্যে প্রচণ্ড কথাকাটাকাটি হয়। তখন রাগের বশে উত্ত্যক্তকারীকে গাছে বেঁধে গাছের ডাল দিয়ে মারতে শুরু করেন তারা। এতে উত্ত্যক্তকারী দুই পায়ে, মুখে, মাথায় গুরুতর চোট পায়।

পরে তাকে কাছের রেললাইনে ফেলে দিয়ে আসেন মা ও মেয়ে। কয়েক মিটার হাঁটার পর সড়কে পড়ে গিয়ে ওই উত্ত্যক্তকারী মারা যান। পরে মরদেহ উদ্ধার করে কোয়েম্বাটোর মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় দায়ের করা হত্যা মামলায় মা ও মেয়েকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এমকেএ