বছর বছর সন্তান নেয়া যাদের প্রধান শখ

ঢাকা, বুধবার   ১৯ জানুয়ারি ২০২২,   ৫ মাঘ ১৪২৮,   ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

বছর বছর সন্তান নেয়া যাদের প্রধান শখ

মজার খবর ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:২৫ ১২ নভেম্বর ২০২১   আপডেট: ১১:৪৩ ১২ নভেম্বর ২০২১

বছর বছর সন্তান নেয়া যাদের প্রধান শখ। ছবি সংগৃহীত

বছর বছর সন্তান নেয়া যাদের প্রধান শখ। ছবি সংগৃহীত

১১ জন ছেলে ও ১১ জন মেয়েসহ মোট ২২ জন সন্তান নিয়ে ইংল্যান্ডের সবচেয়ে বড় পরিবারের তকমা দখল করে রেখেছে 'দ্য র‍্যাডফোর্ড ফ্যামিলি'। বছর বছর সন্তান নেয়া এ পরিবারের কর্তা-কর্তীর প্রধান শখ। পরিবারের কর্তী সু গত ৩০ বছর ধরে প্রায় প্রতিবছরই সন্তান জন্ম দিয়ে আসছেন।

দ্য র‍্যাডফোর্ড ফ্যামিলিবর্তমানে ৪৬ বছর বয়সী সু যখন তার প্রথম সন্তান জন্ম দেয়, তখন তার বয়স মাত্র ১৪ বছর। অন্যদিকে তার স্বামী নোয়েলের বয়স মাত্র ১৮ বছর। পরবর্তীতে সু এর বয়স ১৭ বছর হলে, তারা দুজনে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। এরকম প্রতিবছর সন্তান নেয়ার ব্যাপারে বলতে গিয়ে সু এবং তার স্বামী নোয়েল জানান, তারা সবসময় বাচ্চাকাচ্চা সঙ্গে থাকতে পছন্দ করেন। আর তাই তো র‍্যাডফোর্ড ফ্যামিলিতে বছর ঘুরতেই যে কথা সবচেয়ে বেশি শোনা যায় সেটা হচ্ছে, 'ইয়েস! আই এ্যাম প্রেগন্যান্ট। 

সু যখন তার প্রথম সন্তান জন্ম দেয়, তখন তার বয়স মাত্র ১৪ বছর এবং স্বামী নোয়েলের বয়স মাত্র ১৮ বছরপরিবারের সব সদস্যরাই প্রতিবছর নতুন নতুন সদস্য পেয়ে বেশ খুশি থাকেন। নতুন সদস্যকে বরণ করে নেয়ার সময় উৎসবের আমেজ তৈরি হয় সবার মাঝেই। তবে ২২ জন ছেলেমেয়ের ভরণপোষণ বহন করা মোটেই সহজ কাজ নয়। তার উপর নিজেদের ছেলেমেয়ে ছাড়াও তাদের আরো সাতজন নাতি-নাতনীও রয়েছে। তারপরও বিশাল পরিবারটির ভরণপোষণের দায়িত্ব বেশ যত্নের সঙ্গেই করেন সু ও নোয়েল। এমনকি পরিবারের সব মানুষের জন্য সু নিজেই রান্নাবান্না করেন।

 র‍্যাডফোর্ড ফ্যামিলিতে বছর ঘুরতেই যে কথা সবচেয়ে বেশি শোনা যায় সেটা হচ্ছে, `ইয়েস! আই এ্যাম প্রেগন্যান্ট।বছরব্যাপী সংসার চালানোর জন্য নোয়েল প্রায় ত্রিশ হাজার ইউরোর মতো ব্যয় করেন। পুরো পরিবারের সপ্তাহব্যাপী শুধু শপিং খরচই হয় প্রায় ৪০০ ইউরো। গত প্রায় ৩০ বছর ধরে ছেলেমেয়ে লালন-পালন বাবদ প্রায় এক মিলিয়ন ইউরো খরচ করতে হয়েছে বলে দাবি করেন নোয়েল। বিশাল পরিবারের ভরণপোষণের পুরো খরচতাই আসে নোয়েলের পরিবারের বেকারির ব্যবসা থেকে। তবে সব ব্যয় মেটানোর পরও বেশ বিলাসবহুল জীবনযাপন করেন এই দম্পতি। 

বিশাল পরিবারের ভরণপোষণের পুরো খরচতাই আসে নোয়েলের পরিবারের বেকারির ব্যবসা থেকেবিকাশ-ব্যবসার পাশাপাশি নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেল এবং ইনস্টাগ্রাম আইডি থেকেও তাদের বেশ আয় হয়। ইউটিউবে এবং ইনস্টাগ্রামে বেশ জনপ্রিয় র‍্যাডফোর্ড ফ্যামিলি। ইউটিউবে তাদের ফ্যামিলি ব্লগ বেশ জনপ্রিয়। ইউটিউবে তাদের সাবস্ক্রাইবারের সংখ্যা তিন লাখেরও বেশি। অন্যদিকে ইনস্টাগ্রামে তাদের ফলোয়ার সংখ্যা চার লাখের কিছু বেশি। সু ও নোয়েলের বর্তমান সম্পদের মূল্য প্রায় দুই লাখ ডলারেরও বেশি। প্রতিবছরই যা উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে।

 ইংল্যান্ডের উপকূলীয় শহর মোরকেম্বেতে অবস্থিত তাদের বিলাসবহুল বাড়িযদিও তাদের প্রকৃত সম্পদের হিসাব সম্পর্কে তেমন কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে ইংল্যান্ডের উপকূলীয় শহর মোরকেম্বেতে অবস্থিত তাদের বিলাসবহুল বাড়ি কিংবা ৩০ হাজার ডলার মূল্যের রেঞ্জ রোভারের ব্যবহার দেখলেই এই পরিবারের বিলাসিতা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। বর্তমানে সু ও নোয়েল তাদের ২৩ নম্বর সন্তানের প্রতীক্ষায় দিন গুনছেন। ইংল্যান্ডের সবচেয়ে বড় পরিবারের তকমা পাওয়াকে তারা বেশ মজার হিসেবে নেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএ

English HighlightsREAD MORE »