নতুন দাঁত উঠছে না, প্রধানমন্ত্রী-মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিলেন দুই ক্ষুদে

ঢাকা, বুধবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২১,   অগ্রহায়ণ ১৭ ১৪২৮,   ২৪ রবিউস সানি ১৪৪৩

নতুন দাঁত উঠছে না, প্রধানমন্ত্রী-মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিলেন দুই ক্ষুদে

মজার খবর ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:৪৮ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১   আপডেট: ১৭:৪৮ ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

নতুন দাঁত উঠছে না, প্রধানমন্ত্রী-মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিলেন দুই ক্ষুদে । ছবি সংগৃহীত

নতুন দাঁত উঠছে না, প্রধানমন্ত্রী-মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিলেন দুই ক্ষুদে । ছবি সংগৃহীত

বেজায় সমস্যায় পড়েছে ক্ষুদে দুই ভাই-বোন। দুশ্চিন্তায় রাতে ঘুম হয় না। তাই সমস্যার সমাধান চেয়ে এখন দুই ভাই-বোন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং তাদের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মার দ্বারস্থ। কারণ ওরা জানে যে, একমাত্র প্রধানমন্ত্রী অথবা মুখ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষেপেই অনেক বড় বড় সমস্যার সমাধান হয়ে যায়। 

ফলে নিজেদের অন্যতম বড় সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে নরেন্দ্র মোদী এবং হিমন্ত বিশ্বশর্মার কাছেই আর্জি জানানোর সিদ্ধান্ত নেয় ক্ষুদে দুই ভাই-বোন। আর যেমন ভাবনা, তেমন কাজ! প্রধানমন্ত্রী এবং মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশে একটা করে চিঠি লিখে ফেলল তারা। আর সেই গুরুগম্ভীর সমস্যার চিঠি নেটমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়তেই হেসে কুটোপাটি নেটিজেনরা। 

ছয় বছরের ক্ষুদে মেয়ে রাওজা আর পাঁচ বছর বয়সি ছোট ভাই আরিয়ান। আসলে, ওদের কয়েকটা দুধের দাঁত পড়ে গিয়েছে। এ বার সেই জায়গায় নতুন দাঁত উঠতে অনেক সময় লাগছে। দাঁত উঠতে দেরি হচ্ছে বলে নিজেদের পছন্দের খাবারগুলোও খেতে পারছে না তারা। আর সব থেকে বড় কথা হচ্ছে, পছন্দের খাবার খেতে না-পারা অত্যন্ত গুরুতর সমস্যা। তাই কোনো উপায় না-দেখেই প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীকে নিজেদের সমস্যার কথা চিঠির মাধ্যমে জানিয়ে এর সমাধান চেয়েছে তারা।

প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীকে নিজেদের সমস্যার কথা চিঠির মাধ্যমে জানিয়ে এর সমাধান চেয়েছে তারাচিঠিটি লিখেছে আসামের বালক রিসা রাওজা আহমেদ। সেখানে মোদিকে সম্বোধন করেছে ‘ডিয়ার মোদিজি’ বলে। জানিয়েছে, তার তিনটি দাঁত পড়ে গেলেও তার জায়গায় নতুন দাঁত গজায়নি, ফলে চিবোতে বেজায় সমস্যা হচ্ছে। পছন্দের খাবার খেতেও পারছে না সে।

অনেকটা একই সমস্যা রিজার বড় ভাই আরিয়ানেরও। তার আবার পাঁচটা নতুন দাঁত ওঠা বাকি। ৬ বছরের আরিয়ান অবশ্য প্রধানমন্ত্রীর বদলে আসামের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মাকে চিঠি লিখে জানিয়েছে তার সমস্যার কথা। মুখ্যমন্ত্রীকে সম্বোধন করেছে ‘হিমন্ত মামা’ বলে। চিঠির নিচে নিজেদের নাম এমনকি তারিখও দিয়েছে দুই বালক।

ইংরেজিতে লেখা ওই চিঠি দুইটি পোস্ট করেন তাদের মামা। তিনি লিখেছেন, বিশ্বাস করুন, আমি বাড়িতে ছিলাম না। সম্ভবত ওরা নিজেরাই নিজেদের মতো করে এসব ভেবেছে আর লিখেছে। নেটমাধ্যমে চিঠির দুইটি বহু মানুষ পছন্দ করেছেন। তবে এ চিঠি শেষ পর্যন্ত মোদি বা হিমন্তের কাছে পৌঁছেছে কি না তা স্পষ্ট নয়।

আর মিষ্টি দুই ক্ষুদের এই গুরুতর সমস্যার কথা ফেসবুকে পোস্ট হতেই তা ভাইরাল হয়ে গিয়েছে। তাদের আদরে আদরে ভরিয়ে দিয়েছেন নেটিজেনরা। প্রচুর শেয়ার হয়েছে, সঙ্গে কমেন্ট বক্সে উপচে পড়ছে ভালোবাসা। 

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএ