তরুণীর সঙ্গে সম্পর্ক, বিচ্ছেদ যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে যা করলো ডলফিন

ঢাকা, বুধবার   ২০ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ৫ ১৪২৮,   ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

তরুণীর সঙ্গে সম্পর্ক, বিচ্ছেদ যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে যা করলো ডলফিন

মজার খবর ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ০৬:৪৫ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১   আপডেট: ০৬:৪৫ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

বিচ্ছেদ যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে যা করলো ডলফিন। ছবি: সংগৃহীত

বিচ্ছেদ যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে যা করলো ডলফিন। ছবি: সংগৃহীত

সালটা ছিল ১৯৬০। ২০ বছর বয়সী মার্গারেট লোভাট নাসার একটি পরীক্ষার কাজে যোগ দিয়েছেন। সেই পরীক্ষায় বিজ্ঞানীরা দেখতে চেয়েছিলেন, বুদ্ধিমান প্রাণী ডলফিন কীভাবে সংযোগ তৈরি করে মানুষের সঙ্গে। সেই পরীক্ষার অন্যতম মাধ্যম ছিলেন মার্গারেট। পিটার, পামেলা ও সিসি এই তিনটি ডলফিনের সঙ্গে শুরু হয় মার্গারেটের যাত্রা। 

এদের মধ্যে সিসি একেবারেই যোগাযোগ স্থাপনে আগ্রহী ছিল না। আর সিসি ছিল ভীতু। একমাত্র পিটার ছিল কমবয়সি এবং দুষ্টু। যে যোগাযোগ স্থাপনে আগ্রহী ছিল প্রথম থেকেই। পিটার ও মার্গারেটের মধ্যে গড়ে ওঠে এক অদ্ভুত সম্পর্ক। পরীক্ষা শুরু হওয়ার কয়েক দিন পর থেকেই মার্গারেট বুঝতে পারেন, অন্য ডলফিনদের সঙ্গে বেশি সময় কাটালে রেগে যাচ্ছে পিটার।

মার্গারেট বলেছেন, 'আমার আর পিটারের মধ্যে এক আশ্চর্য সম্পর্ক তৈরি হয়েছিল। আমরা দু’জনেই দু’জনের সঙ্গ উপভোগ করতাম। আমি হয়তো পানিতে পা ডুবিয়ে বসে আছি, ও কাছে আসত। আমাকে দেখত। আমার শরীরের দিকে তাকিয়ে থাকতো কিছু ক্ষণ। তারপর আমার পায়ের পিছন দিকটা দেখত। বুঝতে চাইত, কীভাবে যৌন সম্পর্ক তৈরি করা যায়। তবে ওর দিক থেকেই এতে যৌন আনন্দ ছিল, আমি তেমন কিছু বুঝতে পারিনি।'

এক সময়ে এই পরীক্ষা শেষ করার সিদ্ধান্ত নেয় নাসা। সেই সময় থেকে পিটারের সঙ্গে সম্পূর্ণ বিচ্ছেদ হয় মার্গারেটের। কয়েক দিন বাদে দেখা যায়, পানিতে ভাসছে পিটারের দেহ। বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, আসলে বিচ্ছেদের যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করেছে পিটার।

ডেইলি বাংলাদেশ/এসএ