মুশফিককে নিয়ে গেমিং অ্যাপ ‘হাউজ্যাট - মুশি দ্য ডিপেন্ডেবল’

ঢাকা, শনিবার   ০৪ ডিসেম্বর ২০২১,   অগ্রহায়ণ ২০ ১৪২৮,   ২৭ রবিউস সানি ১৪৪৩

মুশফিককে নিয়ে গেমিং অ্যাপ ‘হাউজ্যাট - মুশি দ্য ডিপেন্ডেবল’

তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৫৮ ২ অক্টোবর ২০২১  

রাজধানীর একটি হোটেলে এই অ্যাপের উদ্বোধন করা হয়। ছবি: সংগৃহীত

রাজধানীর একটি হোটেলে এই অ্যাপের উদ্বোধন করা হয়। ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশের ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিমকে নিয়ে তৈরি হলো দেশের প্রথম ক্রিকেট গেমিং অ্যাপ ‘হাউজ্যাট- মুশি দ্য ডিপেন্ডেবল’। মাত্র ২৪ ঘণ্টায় এক লাখ ৬০ হাজারের বেশি সাবস্ক্রিপশন যুক্ত হয় এবং এক সপ্তাহে প্রায় ৫০ লাখেরও বেশি বার খেলা হয়েছে গেমটি। এই গেমস থেকে প্রাপ্ত অর্থের দুই শতাংশ মুশফিক ফাউন্ডেশনে যাবে।

শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর একটি হোটেলে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এই অ্যাপের উদ্বোধন করেন। 

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিম, গেমিং অ্যাপটির নির্মাতা ও উদ্যোক্তা কেপিসি এন্টার প্রাইজের চেয়ারম্যান কাজী সাজেদুর রহমান, গেমিং অ্যাপটির সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও টারটেইল সলিউশনসের চেয়ারম্যান খান রিফাত সালাম এবং বাংলাদেশ ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার এসোসিয়েশনের সভাপতি আমিনুল হাকিম।

গেমিং অ্যাপটিতে ক্রিকেটের প্রায় সবধরনের ব্যাটিং স্ট্রোক এবং বোলিং অ্যাকশান যুক্ত করা হয়েছে। রয়েছে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ মোডিউল- জেনারেল, মাল্টিপ্লেয়ার এবং লিজেন্ডারি মোড।

জেনারেল মোডে একজন ইউজার বেছে নিতে পারবেন প্রতিপক্ষ দেশ; যার বিপক্ষে বাংলাদেশের হয়ে খেলবেন তিনি। মাঠে নামবেন মুশফিক হয়ে। বেছে নিতে পারেন পছন্দের টুর্নামেন্ট, খেলার মাঠ। আছে দিন-রাতের ম্যাচ, আবহাওয়া, টস, রিভিউ সিস্টেম, থার্ড আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত এবং ধারাভাষ্যকারের বর্ণনা। সব মিলে রয়েছে শতাধিক অপশন ও ফাংশন।

জুনাইদ আহমেদ পলক, বাংলাদেশের ছেলেরা একটা গেমিং অ্যাপ তৈরি করেছে। আমি দেখলাম এটা বিশ্ব মানের গেম। অল্পদিনের মধ্যেই বাংলাদেশে বিলিয়ন ডলারের গেমিং -এর বাজার তৈরি হবে এবং লক্ষাধিক তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান হবে।

তিনি আরো বলেন, যেভাবে মুশফিকুর রহিম আমাদের দেশকে অনেক জয় এনে দিয়েছেন। আগামী দিনে তার নেতৃত্বে গেমিং বিশ্বেও আমরা নেতৃত্বে দিতে পারি।

অনুষ্ঠানে মুশফিকুর রহিম বলেন, আমার নামে যখন একটা গেইম শুরু হলো তখন আমি খুব এক্সাইটেড ছিলাম। আমার মনে হচ্ছে এই গেমের মাধ্যমে বাংলাদেশে নতুন একটা যুগের সূচনা হচ্ছে। আমি সেই আশাই করছি। এর মাধ্যমে সাজিদ ভাই আর বাকিরা যে সবাইকে একটা সুস্থ বিনোদনের সুযোগ করে দিয়েছে, তার জন্য আমি কৃতজ্ঞ।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে