করোনার নমুনা পরীক্ষার নামে অতিরিক্ত অর্থ আদায়

ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৮ মে ২০২১,   জ্যৈষ্ঠ ৪ ১৪২৮,   ০৫ শাওয়াল ১৪৪২

রামগঞ্জ সরকারি হাসপাতাল

করোনার নমুনা পরীক্ষার নামে অতিরিক্ত অর্থ আদায়

রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৯:২৯ ১১ এপ্রিল ২০২১   আপডেট: ১৯:৩৪ ১১ এপ্রিল ২০২১

রামগঞ্জ সরকারি হাসপাতালে করোনাভাইরাসের নমুনা জমা দেয়ার লাইন

রামগঞ্জ সরকারি হাসপাতালে করোনাভাইরাসের নমুনা জমা দেয়ার লাইন

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ সরকারি হাসপাতালে করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার নামে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করা হচ্ছে। সরকার নির্ধারিত ফি ১০০ টাকা হলেও এ হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে ২০০ থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত। সেবা নিতে আসা অসহায় মানুষের কাছ থেকে টাকাগুলো নিচ্ছেন নমুনা সংগ্রহের বুথে নিয়োজিত সহকারী কম্পিউটার অপারেটর তুহিন ও পরিচ্ছন্নতাকর্মী ইউসুফ।

রোববার দুপুরে হাসপাতালে গিয়ে এ অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। অতিরিক্ত টাকা নেয়ার খবর ছড়িয়ে পড়লে সেবাগ্রহীতাদের মাঝে ক্ষোভের সঞ্চার হয়।

সরেজমিনে দেখা গেছে, ৩০-৪০ জন মানুষ রামগঞ্জ সরকারি হাসপাতালের করোনাভাইরাসের নমুনা সংগ্রহের বুথের সামনে লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন। প্রত্যেকের হাতেই ২০০ থেকে ৫০০ টাকা। সবার কাছ থেকে টাকা নিয়ে সরকারি ফি ১০০ টাকার রশিদ ধরিয়ে দিচ্ছেন কম্পিউটার অপারেটর তুহিন ও পরিচ্ছন্নতা কর্মী মো. ইউসুফ।

নমুনা পরীক্ষা করাতে আসা আব্দুর রহিম, মো. ওসমান, সোনিয়া আক্তারসহ অনেকে বলেন, তুহিন ও ইউসুফ আমাদের কাছ থেকে ৩০০ টাকা করে নিয়ে ১০০ টাকার স্লিপ দিয়েছে। জিজ্ঞেস করলে বলছে বাকি টাকা তাদের চা খাওয়ার জন্য রেখেছে। পরে বিষয়টি আমরা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা গুণময় পোদ্দারকে জানাতে গেলে তাকে অফিসে পাইনি।

অতিরিক্ত টাকা আদায়ের বিষয়ে কম্পিউটার অপারেটর মো. তুহিন বলেন, মো. ইউসুফ এখানে ঠিকাদারের মাধ্যমে চুক্তিভিত্তিক কাজ করে। তার জন্যই রোগীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করা হচ্ছে। এটা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ জানে।

রামগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. গুণময় পোদ্দার বলেন, করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার জন্য অতিরিক্ত টাকা নেয়ার বিষয়ে আমি কিছু জানি না। বিষয়টি খতিয়ে দেখছি। সত্যতা পেলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর