যে ভুলে খুলনা মেডিকেলে অক্সিজেন প্লান্ট স্থাপনে বিলম্ব

ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০,   আশ্বিন ১৪ ১৪২৭,   ১১ সফর ১৪৪২

যে ভুলে খুলনা মেডিকেলে অক্সিজেন প্লান্ট স্থাপনে বিলম্ব

শরীফা খাতুন শিউলী, খুলনা ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:২৭ ২৪ জুলাই ২০২০   আপডেট: ২১:৪৩ ২৪ জুলাই ২০২০

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল

স্বাস্থ্য অধিদফতরের এক ভুলে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে লিক্যুইড অক্সিজেন প্লান্ট স্থাপনে বিলম্ব হচ্ছে। এ কারণে করোনা রোগীদের সেবা দেয়ার জন্য পর্যাপ্ত হাই-ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা থাকলেও তা সঠিকভাবে ব্যবহার হচ্ছে না। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের আন্তরিকতার পরও রোগীরা কাঙ্খিত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।

জানা গেছে, করোনা রোগীদের নিরবচ্ছিন ও উচ্চমাত্রায় অক্সিজেন সরবরাহ করার জন্য সরকার সারাদেশে জরুরি ভিত্তিতে লিকুইড অক্সিজেন প্লান্ট স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে ১ জুলাই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব ড. বিলকিস বেগম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, কোভিড-১৯ ব্যবস্থাপনার অংশ হিসেবে করোনা রোগীদের নিরবচ্ছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহের জন্য দেশের ২৩টি হাসপাতালে লিকুইড অক্সিজেন প্লান্ট স্থাপনের জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম সরাসরি ক্রয়ের অনুমতি দেয়া হল।

অপর এক বিজ্ঞপ্তিতে আরো ৩৯টি সরকারি হাসপাতালকে দ্রুত লিকুইড অক্সিজেন প্লান্ট স্থাপনে সরাসরি অনুমতি দেয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এই ৬২ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২০টি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ২৫টি ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতাল, পাঁচটি বিশেষায়িত হাসপাতাল ও ১২টি ১০০ শয্যার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। এতগুলো হাসপাতালের মধ্যে স্থান পায়নি খুলনা বিভাগের একমাত্র করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল খুলনা মেডিকেল কলেজ।

তালিকায় রয়েছে শহীদ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালের নাম। যাদের আগে থেকে লিকুইড অক্সিজেন প্লান্ট রয়েছে। অপর নামটি খুলনা সদর হাসপাতালের, যারা এখনো করোনার চিকিৎসা শুরুই করেনি। এতে খুলনার করোনা চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা কমিটি হতাশা প্রকাশ করেছে। তারা তাৎক্ষণিক মন্ত্রণালয়ে যোগযোগ করলে বিষয়টি অনাকাঙ্ক্ষিত ভুল উল্লেখ করে সংশোধনের আশ্বাস দেয়া হয়। এরপর ২০ দিন পার হলেও ভুল সংশোধনে কোনো অগ্রগতি লক্ষ্য করা যায়নি। এ কারণে করোনার চিকিৎসায় অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ হাই-ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা পর্যাপ্ত পরিমাণে থাকলেও তা সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারছে না খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

খুমেক হাসপাতাল জানায়, একাধিকবার খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র, বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে আলাদা চিঠি দিলেও অদৃশ্য কারণে ভুল সংশোধন বিলম্বিত হচ্ছে।

খুলনা মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ডা. মো. মেহেদী নেওয়াজ বলেন, আমরা বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার মাধ্যমে পর্যাপ্ত হাই-ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা সংগ্রহ করেছি। কিন্তু লিকুইড অক্সিজেন প্লান্টের অভাবে তা পুরোপুরি ব্যবহার করা যাচ্ছে না। সিলিন্ডার নির্ভর অক্সিজেন দিয়ে হাই-ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা ব্যবহার করা যায় না।

তিনি আরো বলেন, শুনেছি খুলনা মেডিকেলের নামে বরাদ্দ হওয়া অক্সিজেন প্লান্টের অনুমতিপত্রে ভুলে আবু নাসের হাসপাতালের নাম এসেছে। এরপর আমি নিজে একাধিবার চিঠি দিয়েছি, মেয়র ও বিভাগীয় কমিশনার মহোদয় ঢাকায় যোগাযোগ রাখছেন। কিন্তু এখনো সংশোধনী আসেনি। ফলে এ প্রক্রিয়া থমকে আছে। দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে রোগীদের।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর