২৯ হাজার লিটার তেল জব্দ, জরিমানা সোয়া দুই লাখ

ঢাকা, শনিবার   ২১ মে ২০২২,   ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯,   ১৯ শাওয়াল ১৪৪৩

Beximco LPG Gas

২৯ হাজার লিটার তেল জব্দ, জরিমানা সোয়া দুই লাখ

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২০:০৪ ১৪ মে ২০২২  

সিরাজগঞ্জে ভোক্তা অধিকারের পৃথক অভিযানে ২৯ হাজার লিটার সয়াবিন তেল জব্দ- ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

সিরাজগঞ্জে ভোক্তা অধিকারের পৃথক অভিযানে ২৯ হাজার লিটার সয়াবিন তেল জব্দ- ছবি: ডেইলি বাংলাদেশ

বোতলের গায়ে লেখা দামে সয়াবিন তেল বিক্রি নিশ্চিত করতে সিরাজগঞ্জে পৃথক অভিযান চালিয়েছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর ও উপজেলা প্রশাসন। এসব অভিযানে ৬টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে দুই লাখ ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সেই সঙ্গে নায্য মূল্যে খোলাবাজারে বিক্রি করা হয়েছে মজুতকৃত ২৯ হাজার লিটার তেল।

শনিবার দুপুর থেকে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত উল্লাপাড়া ও শাহজাদপুর উপজেলার বিভিন্ন বাজারে এসব অভিযান চলে। অভিযানের সময় পুলিশ ও আনসার সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লাপাড়ার ইউএনও উজ্জল হোসেন বলেন, পৌর এলাকার ঘোষগাঁতীতে মেসার্স অর্নব ট্রেডার্স ও মেসার্স দত্ত অ্যান্ড ব্রাদার্সের গোডাউনে বিপুল পরিমাণ বোতলজাত সয়াবিন তেল মজুত করা হয়েছে। এমন সংবাদে শনিবার বিকেলে অভিযান চালিয়ে ২৬ হাজার লিটার সয়াবিন তেল জব্দ করা হয়েছে। একই সঙ্গে অবৈধভাবে তেল মজুত রাখার দায়ে দুই প্রতিষ্ঠানকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া জব্দকৃত সয়াবিন তেল নির্ধারিত মূল্যে ভোক্তাদের কাছে বিক্রি করা হয়েছে।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর সিরাজগঞ্জের সহকারী পরিচালক মাহমুদ হাসান রনি বলেন, বেশি দামে বিক্রির আশায় সয়াবিন তেল মজুত করে রাখা হয়। এ কারণে বাজারে তেলের কৃত্রিম সংকট দেখা দেয়। এমন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার দুপুরে শাহজাদপুর উপজেলার দ্বারিয়াপুর বাজারে অভিযান চালানো হয়। এ সময় সরকার অ্যান্ড ব্রাদার্সে ২ হাজার ৮০০ লিটার খোলা ও ২০০ লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল পাওয়া যায়। তেল মজুত রাখার দায়ে ঐ প্রতিষ্ঠানকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

তিনি আরো বলেন, একই বাজারের মাসুদ স্টোর ও ভাই ভাই স্টোরকে ৫০ হাজার  টাকা ও তেলের সঙ্গে অন্যান্য পণ্য কিনতে বাধ্য করার অভিযোগে আরেকটি দোকানে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। জরিমানার পাশাপাশি তাদের সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া অভিযানে বেশকিছু ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে সতর্ক করা হয়েছে। জনস্বার্থে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

সিরাজগঞ্জের জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহম্মদ বলেন, বাজারে ভোজ্যতেলের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে কেউ যেন স্বার্থ হাসিল করতে না পারে সেজন্য অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে কঠোর অবস্থানে রয়েছি।

ডেইলি বাংলাদেশ/এআর

English HighlightsREAD MORE »