কী এই ব্যালে নাচ? জানুন আদ্যোপান্ত

ঢাকা, শনিবার   ২১ মে ২০২২,   ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯,   ২০ শাওয়াল ১৪৪৩

Beximco LPG Gas

কী এই ব্যালে নাচ? জানুন আদ্যোপান্ত

ফিচার ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৫:২৬ ২৭ জানুয়ারি ২০২২   আপডেট: ১৭:২০ ২৭ জানুয়ারি ২০২২

ব্যালে বা ব্যালেট আজ বিশ্বখ্যাত নৃত্যকলা।

ব্যালে বা ব্যালেট আজ বিশ্বখ্যাত নৃত্যকলা।

কখনো প্রতিবাদ, কখনো কবিতা, কখনো নাচ-গান বা নানা প্রতিভার বুননে তরুণরা ফুটিয়ে তোলে নিজেদের অঙ্গন। নিজের ধ্যান, জ্ঞান বা মননের অর্ঘে সাজায় তাদের বেঁচে থাকার পৃথিবী। সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের সামনে ব্যালে নৃত্যের কিছু ছবি বাংলাদেশে সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক আলোচিত হয়েছে। ভাইরাল এই ছবির মানুষটি নওগাঁর মেয়ে মোবাশ্বিরা কামাল ইরা। ইরার এসব ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচনার জন্ম দিয়েছে ব্যালে নাচ নিয়ে। আসলে কী এই ব্যালে নাচ?

ব্যালে এক ধরণের নৃত্য যা ১৫ শতাব্দীতে ইতালীয় নবজাগরণের সময় আবির্ভাব হয়। পরে ফ্রান্স ও রাশিয়ার একটি কনসার্টে এটি নৃত্য হিসেবে পরিচিতি পায়। ফরাসি পরিভাষা উপর ভিত্তি করে এটি একটি ব্যাপক নৃত্যের প্রযুক্তিগত ফর্ম হয়ে ওঠে। আস্তে আস্তে নাচের এই ফর্ম বিশ্বব্যাপী প্রভাবশালী হয়ে ওঠে। ব্যালে বিশ্বের বিভিন্ন স্কুলে শেখানো শুরু হয়, যা ঐতিহাসিকভাবে তাদের নিজস্ব সংস্কৃতির অন্তর্ভুক্ত হয়ে ওঠে। শিল্পটি বেশ কয়েকটি স্বতন্ত্র উপায়ে বিবর্তিত হয়। ঐতিহ্যবাহী শাস্ত্রীয় ব্যালেগুলো সাধারণত ক্লাসিক্যাল সঙ্গীতের সাথে সম্পৃক্ত হয়। আমেরিকান নৃত্যশিল্পী জর্জ বালাঞ্জাইনের নব্য-রচনামূলক কাজগুলো প্রায়ই আধুনিক ব্যালটগুলো ব্যবহার করে। বিংশ শতাব্দীতে কোরিওগ্রাফার জর্জ ব্যালেন্সিয়ানের কল্যাণে ব্যালেট ডান্সের বিশ্বব্যাপী এর প্রসার ঘটে।  

ব্যালে বা ব্যালেট আজ বিশ্বখ্যাত নৃত্যকলা। শুধু তাই নয় নৃত্য ও নৃত্যকলা কৌশলের সে এক সমন্বিত, মহনীয়, দুর্দান্ত রূপ। ব্যালেতে নাচ, সঙ্গীত, অভিনয় এবং মিউজিক সবকিছুর সমন্বয়ে এক অপরূপ শিল্প সৃষ্টি করা হয়। ব্যালে এককভাবে বা অপেরার অংশ হিসেবেও উপস্থাপন করা হয়। এ নৃত্যে কৌশলের সঙ্গে সঙ্গীতের এক অপূর্ব মিলন ঘটে। বিশেষ করে অনিন্দ্যসুন্দর ভঙ্গি ও কৌশলের পায়ের কাজ বা টো এর কলাকৌশল তুলনাহীন।

ঐতিহ্যবাহী শাস্ত্রীয় ব্যালেগুলো সাধারণত ক্লাসিক্যাল সঙ্গীতের সাথে সম্পৃক্ত হয়। ছবি : সংগৃহীত

ব্যালে নাচের পজিশনের মূল ব্যাপারটাই টো বা পায়ের পাতার উপর মুভমেন্ট। ক্লাসিক্যাল মুভমেন্টের সাথে যোগ হয় পায়ের পাতার কারুকাজ। বিংশ শতাব্দীতেই ক্লাসিক্যাল ব্যালেটে আনা নয় আধুনিকতার ছোঁয়া। যা মডার্ন ব্যালে নামে আমেরিকা ও জার্মানিতে ছড়িয়ে পড়ে।

আরো পড়ুন : আলোচিত ব্যালে নাচের ছবির গল্প

ব্যালেট নাচ মূলত তিন প্রকার। যথা ক্লাসিক ব্যালেট, মডার্ন ব্যালেট, কমেডি ব্যালেট। ক্লাসিক ব্যালেট দাঁড়িয়ে আছে ট্র্যাডিশনাল ব্যালের টেকনিকের উপর। ভিন্ন ভিন্ন ধরনটা নির্ভর করে এরিয়া অফ অরিজিনের উপর। যেমন ফ্রেঞ্চ ব্যালেট, রাশিয়ান ব্যালেট, ইতালিয়ান ব্যালেট। কিছু ব্যালের নাম নির্ধারণ করা হয়েছে তার ক্রিয়েটরের নামে। ক্লাসিক্যাল ব্যালেট মুভমেন্টের সাথে যোগ হয়েছে ফাস্ট মুভমেন্ট টেম্পো। এখানে রয়েছে ক্লাসিক্যাল ও মডার্ন নাচের সমন্বয়। এই নাচ মাঝে মাঝে নগ্ন পায়ে নাচা হয়। ব্যালে নাচে নভেল, মিথ বা ফেইরি টেলসের গল্পগুলোও ফুটিয়ে তোলা হয়। স্লিপিং বিউটির মতো বিখ্যাত গল্পগুলোর ব্যালে নাচের তেমন উদাহরণ। মডার্ন টেকনিক অফ ব্যালেট ডান্স যা আমেরিকাতেই বেশি শেখানো হয়।

বাংলাদেশে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া মোবাশ্বিরা কামাল ইরা। ছবি : সংগৃহীত

ব্যালে ড্যান্স কোরিওগ্রাফি আর পারফর্ম করা হয় বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নৃত্যশিল্পীদের মধ্য দিয়ে। আগের দিনে ব্যালেট পরিবেশনের সময় দর্শকরা গ্যালারীতে বসতো, ড্যান্সফ্লোর বা স্টেজের তিনদিকে। আধুনিক ব্যালেট পরিবেশিত হয় মূকাভিনয়, গান ও মিউজিক দিয়ে।

ব্যালে নাচের পোশাকের একটা বিশেষত্ব আছে। খুব ছোট ফ্রিলে ফুলের মাঝে দাঁড়িয়ে থাকা একটি ফুল কন্যার মতোই লাগে ব্যালে নাচের নৃত্যশিল্পীদেরকে। এই নাচের জন্য আছে নরম কাপড়ের জুতা। সাধারণত আঁটসাঁট উঁচু খোঁপা বেধে দেওয়া হয় নৃত্যশিল্পীদেরকে নাচের মুভমেন্টের সুবিধার জন্য।

 আধুনিক ব্যালেট পরিবেশিত হয় মূকাভিনয়, গান ও মিউজিক দিয়ে।

৮ থেকে ১০ বছর বয়সটাই ব্যালে শিক্ষা শুরুর প্রকৃত বয়স। ব্যালেট শুধু মেয়েদের নাচই নয়। ছেলেরাও ব্যালেট শিখতে পারে তবে তাদের জন্য রয়েছে কিছুটা ভিন্ন মাত্রার খাটো পোশাক। ব্যালে নাচের প্রশিক্ষণ শারীরিক নমনীয়তা বৃদ্ধি করে ও শরীর সুগঠিত করে তোলে। ধৈর্য আর কঠোর অনুশীলনের মাধ্যমেই একজন হয়ে উঠতে পারে পারফেক্ট ব্যালেরিনা।

এখনকার নাচের শিল্পীরা দেশের বাইরে থেকে শিখে-পড়ে আসছে। নাচের শিক্ষার্থী এখন প্রচুর। তারা টেলিভিশন, মঞ্চ বিভিন্ন জায়গায় কাজের সুযোগ পাচ্ছে। এতে দেশের নৃত্য কিছুটা সমৃদ্ধ হয়েছে। ইউটিউবে এখন সারা বিশ্বের নাচ দেখা যায়। তাই আগের থেকে কিছুটা বেড়েছে আধুনিক নৃত্যের ব্যাপ্তি। বাংলাদেশেও ব্যালে নাচের চর্চা কিছুটা বেড়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/কেবি

English HighlightsREAD MORE »