মাছের বরফেই প্রাণ জুড়ানো ‘শরবত’

ঢাকা, শনিবার   ২৪ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ৯ ১৪২৭,   ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

মাছের বরফেই প্রাণ জুড়ানো ‘শরবত’

জাফর আহমেদ ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৬:৪৩ ১ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ১৮:২১ ১ অক্টোবর ২০২০

ছবি: আখের রস

ছবি: আখের রস

গরমের তীব্রতায় সামান্য স্বস্তি পেতে অনেকেই তৃষ্ণা মিটায় রাস্তার আখের রস ও লেবুর শরবতে। তবে এই শরবতে ব্যবহার করা বরফগুলো স্বাস্থ্যসম্মত কি না তা জানা নেই কারো। 

জানেন কি? মাছে যে বরফ দেয়া হয় সেই বরফ দিয়েই তৈরি হয় প্রাণ জুড়ানো এসব শরবত। এই বরফগুলো বানানো হয় কারওয়ানবাজার, কাপতানবাজার, সূত্রাপুর, যাত্রাবাড়ি এবং সোয়ারি ঘাটের বরফ কারখানায়। 

মাছের আড়ৎকে কেন্দ্র করেই গড়া ওঠেছে এই বরফ কারখানাগুলো। আসলে বরফকলে তৈরি এ বরফ মাছের জন্য বানানো হলেও অসাধু কিছু ব্যবসায়ী ভাসমান দোকান ও রেস্টুরেন্টে এই বরফ বিক্রি করে থাকেন।

রাজধানীর ফুটপাতের দোকান থেকে শুরু করে নামি-দামি ফার্স্টফুডের দোকানে অবাধে এ বরফ ব্যবহার করা হলেও দেখার কেউ নেই। অন্যদিকে এ বরফের শরবত পান করে ভয়াবহ স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়ছে মানুষজন। 

শুধু ফার্স্টফুডের রেস্টুরেন্টই নয়, গুলিস্তান, নিউমার্কেট, সদরঘাট, যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ ও গাবতলীসহ বিভিন্ন বাসস্ট্যান্ডে ও লঞ্চ টার্মিনাল এলাকায় এবং এমনকি বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ, স্কুলের সামনে বেশি বিক্রি হয় এ বরফে তৈরি শরবত। 

শরবতঅনেকেই ঠাণ্ডা ঠাণ্ডা আখের রস খেয়ে থাকেন। তবে রাস্তায় হকারদের বিক্রি করা আখের রসের বেশিরভাগেই ব্যবহৃত হয় নোংরা এই পানির বরফ। আখের রসের মেশিনের ওপরই রাখা হয় বড় একটি বরফ খণ্ড। 

আবার বরফ খল্ড খোলা থাকায় তার ওপর ধুলা ময়লা জমে। এটি না ধুয়ে আখ ভাঙিয়ে রস বিক্রি করা হয়। বরফ গলা ঠাণ্ডা পানি আখের রসের সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়ানো হয়।

নিউমার্কেটের বনলতা এলাকায় বরফ তৈরি করা হয়। সেখানকার একজনের কাছে জানতে চাওয়া হয় এ বরফ কোথায় যাবে? তিনি বলেন, ধানমন্ডি, এলিফ্যান্ট রোড ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার বিভিন্ন ভাসমান ও ফার্স্টফুডের দোকানে। 

তবে এ বরফ পরিষ্কার পানিতে তৈরি কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন,আমি জানি না। কাওরানবাজার, কাপতানবাজার, সূত্রাপুর, যাত্রাবাড়ী,সোয়ারিঘাট ও এলাকায় মাছের আড়তকে ঘিরে গড়ে উঠেছে বিভিন্ন বরফ কারখানা। 

এসব কারখানা থেকেই বরফ চলে যায় রাজধানীর ফার্স্টফুডের দোকানগুলোসহ ফুটপাতের শরবতের দোকান গুলোতে। সেই বরফেই মজাদার ,সুস্বাধু লাচ্ছি ও শরবত তৈরি হয়।

রাস্তায় বিক্রি হওয়া শরবতনীলক্ষেত, গুলিস্তান, যাত্রাবাড়ী এলাকার কয়েকজন বরফকল শ্রমিক কাজী জানান, সাধারণত ওয়াসার সাপ্লাইয়ের পানিতে তৈরি করা হয় এ বরফ। এসব বরফ মূলত মাছ প্রক্রিয়াজাতকরণের জন্যই তৈরি করা হয়। 

এ বরফ শরবত ও রেস্টুরেন্ট দোকানিরা কিনে নিয়ে শরবত বানান। তবে রেস্টুরেন্ট বা ফার্স্টফুডের দোকানগুলোর জন্য অর্ডারে আলাদাভাবে কোনো ধরনের বরফ বানানো হয় না।

রাজধানীর বঙ্গমার্কেটে ভ্যানে করে বরফ সাপ্লাই দেন রায়হান চৌকিদার। তিনি বলেন,কারখানায় অর্ডার করলে বরফ দিয়ে যাই। এছাড়া বিভিন্ন শরবত ও রেস্টুরেন্ট দোকানেও দেয়া হয়। সব বরফ একই, শরবত ও রেস্টুরেন্ট দোকান জন্য আলাদা করে বানানো হয় না।

এই বিষয় বরফ মালিকদের সঙ্গে কথা বললে তারা জানান, শুধু মাছ প্রক্রিয়াজাতকরণের জন্য বরফ বিক্রি করি, সেটি অন্য কাজে ব্যবহৃত হলে এর জন্য তো আমরা দায়ী নয়।

জানা গেছে, বাসার ফ্রিজে বরফ তৈরি করলে কারখানার মতো এতো সাদা হয় না। কারখানার বরফে ট্যালকম পাউডার দিয়ে সাদা করা হয়। এতে করে বরফ সাদা এবং শক্ত হয়।

লেবুর শরবত বিক্রি হচ্ছেসদরঘাটে আখের রস বিক্রেতা বাবুল মিয়া ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, রোদের সময় বরফ দিয়ে আখের রস বিক্রি করলে বেশি চলে। বরফ না থাকলে অনেকে রস খায় না। 

গুলিস্তান লেবুর শরবত বিক্রিতা সাব্বির ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, আমরা অর্ডার করলে কারখানা থেকে বরফ দিয়ে যায়। কোন পানি দিয়ে বরফ বানায় তা জানি না। বরফ ছাড়া লেবুর শরবত চলে না।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও চিকিৎসকরা মনে করেন, ফুটপাথের বানানো এ শরবত পানে চরম স্বাস্থ্যঝুঁকি রয়েছে। কেউ রাস্তার এই শরবত পান করলে কিডনিজনিত সমস্যা, পানিবাহিত রোগ, গ্যাস্ট্রিক, হেপাটাইটিস বি-ভাইরাস, লিভারের জটিলতা, পাকস্থলীতে প্রদাহ, খাদ্যনালিতে সমস্যা ও পেপটিক আলসারসহ মারাত্মক জটিল রোগে আক্রান্ত হতে পারেন।

মাছ বাজারের বরফ কারখানায় দেখা যায় নোংরা পরিবেশে তৈরি হচ্ছে বরফ। স্যাঁতস্যাঁতে মেঝেতে খালি গায়ে শ্রমিকরা এই বরফ তৈরির কাজ করছে। সরাসরি নোংরা পানি দিয়ে এই বরফ তৈরি করা হচ্ছে। 

যারা এই বরফ তৈরির সঙ্গে জড়িত, তাদের পোশাকও পরিচ্ছন্ন নয়। আবার বরফ তৈরি হয়ে গেলে তা চট বিছিয়ে ফ্লোরেই রাখা হচ্ছে। ওই ফ্লোরেই আবার জুতা-স্যান্ডেল পায়ে দিয়ে সবাই ঘোরাঘুরি করছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস/টিআরএইচ