সরিষা ফুলের মনোমুগ্ধকর আস্তরণে রয়েছে ব্যবসায়ীক সাফল্য

ঢাকা, শনিবার   ৩১ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ১৬ ১৪২৭,   ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

সরিষা ফুলের মনোমুগ্ধকর আস্তরণে রয়েছে ব্যবসায়ীক সাফল্য

ফিচার ডেস্ক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১১:৫৪ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৫:৩৯ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

ছবি: চীনের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের সরিষা ভূমি

ছবি: চীনের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের সরিষা ভূমি

চারদিকে যেন হলুদ চাদর বিছিয়ে রেখেছে প্রকৃতি। বসন্ত এলেই চীনের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলে এক বিশাল এলাকা উজ্জ্বল হলুদ রঙে রঙিন হয়ে ওঠে। দিগন্ত ছেয়ে যায়, শত শত কোটি সরিষা ফুলের মনোমুগ্ধকর আস্তরণে। পৃথিবীর ২০ শতাংশ সরিষা তেলের উৎপাদন হয় এখানেই। এই হলুদ চাদরের ব্যাপ্তি এতোই বিশাল যে, একমাত্র মহাশূন্য থেকেই পুরো এলাকার ছবি তোলা সম্ভব। মহাশূন্য থেকে এই অঞ্চলকে পুরোপুরি তুষার শুভ্র দেখা যায়। 

আরো পড়ুন: অ্যান্টার্কটিকায় মিলল অজানা এক মাছ, এলিয়েন ভেবে সংশয়

সরিষা ভূমিএই বিশাল সরিষা ক্ষেত্রটি যাযাবর মৌয়ালদের জন্য এক তীর্থস্থান। মি. ডাই এবং তার পুত্রও যাযাবর মৌয়াল। ফুলের মধু সংগ্রহের জন্য তারা চীনের বিভিন্ন অঞ্চলে ঘুরে বেড়ান। তিনি বলেন, ‘মৌমাছি পালন আমাদের প্রধান আয়ের উৎস, আমাদের জীবনধারণ মধু সংগ্রহের উপরই নির্ভরশীল।’ যদিও আবহাওয়া তাদের অনুকূলে নেই। কীভাবে তারা মধু সংগ্রহ করে সেই দুঃসাহসিক গল্পই তুলে ধরা হলো আজকের লেখায়-

আরো পড়ুন: সাপের মাথাওয়ালা প্রজাপতি, এক কামড়ে মৃত্যু নিশ্চিত

মৌয়ালদের তীর্থস্থানমি. ডাই বলেন, ঘন মেঘ সূর্যের আলোর বাঁধা হয়ে দাঁড়ায়। ঠান্ডা আবহাওয়া মৌমাছির উড়ার জন্য উপযুক্ত নয়। এভাবে কিছুদিন চলতে থাকলে মধু সংগ্রহ করা বেশ কষ্টকর হয়ে থাকে। বাতাসে রোদের ছোঁয়া না লাগলে, মৌমাছিরা কোথাও যাবে না। মূলত এই সরিষা ভূমিতে বসন্তেই মধু সংগ্রহের উপযুক্ত সময়। 

মৌমাছি ফুলের মধু খাচ্ছে এই সময়ের মধ্যেই কৃষকরা সরিষা ফুলে কীটনাশক ছিটিয়ে দেন। ফলে জায়গাটি মৌমাছিদের জন্য ভয়ংকর হয়ে ওঠে। কীটনাশক ছড়ানোর আগেই মৌমাছিরা সেখান থেকে সরে পড়ে। তবে তার জন্যও সূর্যের পর্যাপ্ত আলো প্রয়োজন। এরপর প্রায় ১৫ লাখ মৌমাছি কাজে নেমে পড়ে। এক কৌটা মধু উৎপাদনের জন্য মৌমাছিদের প্রায় ২০ লাখেরও বেশি ফুলে চড়ে বেড়াতে হয়। মৌমাছিরা ফুলের নেকটার পান করে এবং লম্বা শীতকালের খাবারের যোগান হিসেবে মৌচাকে জমা করে। 

চারদিকে শুধু হলুদ আর হলুদমৌমাছিরা মধু উৎপাদনের চেয়েও অনেক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে। পৃথিবী জুড়ে বিভিন্ন ফুলের নিষেক ঘটাতে এদের অবদান সবচেয়ে বেশি। বিভিন্ন ফল, বীজ উৎপাদনে এদের ভূমিকা অনস্বীকার্য। তবে বর্তমানে কীটনাশক ব্যাপকহারে মৌমাছির নিধন ঘটাচ্ছে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেএমএস