ছেঁড়া ও ময়লা টাকা অচল নয়, যেভাবে ব্যবহার করবেন

ঢাকা, বুধবার   ২১ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ৭ ১৪২৭,   ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

ছেঁড়া ও ময়লা টাকা অচল নয়, যেভাবে ব্যবহার করবেন

নিজস্ব প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৭:৫৭ ৯ আগস্ট ২০২০  

ছেঁড়া ও ময়লা হলেই টাকা অচল হয় না। ছবি: সংগৃহীত

ছেঁড়া ও ময়লা হলেই টাকা অচল হয় না। ছবি: সংগৃহীত

মতিঝিল থেকে রিকশায় শাহবাগ যাচ্ছিলাম। পৌঁছে ভাড়া দিতে গিয়ে ঘটলো বিপত্তি। পকেটে থাকা পঞ্চাশ টাকার নোটটি ছেঁড়া। রিকশাচালক নিতে রাজি হচ্ছেন না, তার ওপর নেই ভাংতি টাকা। পরে ব্যাগ হাতড়ে অনেক কষ্টে খুচরো দিয়ে ভাড়া দিলাম। বিরক্তও লাগছিল, ছেঁড়া টাকাটা নিয়ে এখন কী করব?

আপনিও কি কখনো এমন সমস্যার মুখোমুখি হয়েছেন? বাস্তবে সবাই কম-বেশি এমন পরিস্থিতিতে পড়ে যান। কিন্তু ছেঁড়া নোট পাল্টে নেয়ার কথা অনেক সময়ই মাথায় আসে না। আসলে ছেঁড়া–ফাটা নোট বদলে নেয়ার বিষয়ে সামান্য ধারণা না থাকার কারণে অনেককেই এই ভোগান্তি পোহাতে হয়। অনেক সময় ছেঁড়া বড় নোট বাজারে চলবে কি-না, এই দুশ্চিন্তায় উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন গ্রাহক। ব্যাগের এক কোনায় পড়েই থাকে অচল নোটটি।

তবে এসব নোট ব্যাগের কোনায় না রেখে আপনি সরাসরি চলে যেতে পারেন ব্যাংকে। দেশের যেকোনো ব্যাংকের শাখাতেই ছেঁড়া নোট পরিবর্তন করে বিনিময়মূল্য প্রদান করা হয়ে থাকে। ‘ছেঁড়া ফাটা ও ময়লা নোট গ্রহণ করা হয়’ এই মর্মে নোটিশ স্থাপন করতেও ব্যাংকগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

নোটিশে উল্লেখ থাকবে, ময়লা অবিকৃত নোটের বিনিময়মূল্য জমা দানের সঙ্গেই প্রদান করা হয়। ছেঁড়া নোটের কোনো অংশ যদি অনুপস্থিত থাকে এবং বিদ্যমান অংশ যদি ৯০ শতাংশের অধিক হয়, তবে সম্পূর্ণ বিনিময়মূল্য সরাসরি কাউন্টারের মাধ্যমে প্রদান করা হয়। একইভাবে, কোনো নোট যদি একাধিক খণ্ডে খণ্ডিত না হয় এবং নোটের সম্পূর্ণ অংশ বিদ্যমান থাকে, সে ক্ষেত্রেও নোটের সম্পূর্ণ বিনিময় মূল্য কাউন্টারেই প্রদান করা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যমতে, ছেঁড়া–ফাটা নোট বদলযোগ্য হয়, অবস্থাভেদে ১০০ ভাগ, ৭৫ ভাগ, ৫০ ভাগ রিফান্ড করা হয়। সাধারণত ৫১ শতাংশের কম ছেঁড়া থাকলে নোটের পুরো মূল্যমানই প্রদান করা হয়। তবে একটি নোটের অর্ধেকও কম অংশ থাকলে, তা আর রিফান্ড করা হয় না।

ছেঁড়া-ফাটা ও ময়লা টাকা সম্পর্কে ধারণা না থাকার কারণে বিভিন্ন দালাল শ্রেণি বাট্টায় টাকা বিনিময়ের ব্যবসা করে। অথচ বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলেও কোনো না কোনো ব্যাংকের শাখা আছে। খানিকটা সচতেন হলেই ছেঁড়া ও ময়লা নোটের বদলে নতুন নোট সংগ্রহ করতে পারেন।

ডেইলি বাংলাদেশ/এনকে