প্রয়োজনীয় বই নেই, লাইব্রেরি বিমুখ হচ্ছে শাবিপ্রবি শিক্ষার্থীরা

ঢাকা, শুক্রবার   ২১ জানুয়ারি ২০২২,   ৮ মাঘ ১৪২৮,   ১৬ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

প্রয়োজনীয় বই নেই, লাইব্রেরি বিমুখ হচ্ছে শাবিপ্রবি শিক্ষার্থীরা

নাঈম আহমদ শুভ, শাবিপ্রবি ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ১৩:৫৭ ২৯ নভেম্বর ২০২১  

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি।

নানান বাধ্যবাধকতা থাকায় এবং চাহিদা অনুযায়ী বই না থাকায় লাইব্রেরি বিমুখ হচ্ছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, আমাদের চাহিদা অনুযায়ী লাইব্রেরিতে বই নেই। বাইরে থেকে বই নিয়ে ভেতরে ঢুকতে দেয়া হয় না। ভেতরে যেসব বই রাখা আছে সেগুলো অনেক পুরোনো এবং সেখানে তেমন মানসম্মত বই পাওয়া যায় না। সেজন্য আমাদের পড়াশোনা করতে অনেক সমস্যায় পড়তে হয়। 

সুসজ্জিত দৃষ্টিনন্দন চারতলা ভবনের তৃতীয় তলায় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি। এটি বিশ্ববিদ্যালয়ের গোলচত্বর এবং ডি বিল্ডিংয়ের মাঝামাঝি অবস্থিত। সপ্তাহে পাঁচদিন খোলা থাকে লাইব্রেরিটি। প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা লাইব্রেরিতে গিয়ে পড়াশোনা করতে পারে। 

সরেজমিনে দেখা যায়, কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ে গ্রুপ স্টাডি করার মতো আর কোনো রিডিং রুম নেই। এতে শিক্ষার্থীরা গ্রুপ স্টাডি করার সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এতে পড়াশোনার অবাধ সুযোগ না পাওয়ায় শিক্ষার্থীদের মধ্যে দেখা দিয়েছে হতাশা ও ক্ষোভ। 

বই নিয়ে ভিতরে ঢুকতে না পারার বিষয়ে পলিটিক্যাল স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী রাতুল দেব বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরির নাম কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি হলেও আমার কাছে মনে হয় কেন্দ্রীয় কারাগার। কারাগারে যেমনি কোনোকিছু বাহির থেকে নিয়ে ঢুকা যায় না। তেমনি এই লাইব্রেরিতে ও কোনো প্রয়োজনীয় বই নিয়ে ঢুকা যায় না।

একই বিভাগের আরেক শিক্ষার্থী আনিকা ইসলাম চৌধুরী সাদিয়া বলেন, অনেক খোঁজাখুঁজি করে পড়ার উপযোগী কোনো মানসম্মত বই পাই না। বেশিরভাগ বই ইংরেজি লেখকদের পুরোনো বই। সেগুলো পড়ার প্রতি আগ্রহ নেই। এজন্য লাইব্রেরিতে আসতে মন চায় না। বর্তমান সময়োপযোগী ইংরেজি বইয়ের পাশাপাশি বাংলা লেখকদের বই থাকলে পড়তে ভালো লাগতো। 

সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষার্থী সানজিদা নওরিন সুবর্ণা বলেন, লাইব্রেরি ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ে আর কোনো রিডিং রুম নেই। বই নিয়ে ঢুকতে পারি না ভেতরে। ফলে প্রয়োজনীয় বই না থাকায় ভালোভাবে পড়ালেখাও করতে পারি না।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগের ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের গ্রন্থাগারিক অধ্যাপক ড. আজিজুল বাতেন বলেন, লাইব্রেরিতে বই নিয়ে ঢুকা যায় না এটা হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্ট্রাল পলিসি। সাধারণত কিছু সমস্যা আছে বলেই এই সিদ্ধান্ত আগে থেকেই হয়ে আসছে। এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্র থেকে পরিবর্তন না হলে একজন গ্রন্থাগারিক হিসেবে আমার পক্ষে পরিবর্তন করা সম্ভব নয়। 

শিক্ষার্থীদের চাহিদা অনুযায়ী বই না পাওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, লাইব্রেরিতে যেসব বই প্রতি বছর অন্তর্ভুক্ত করা হয় সেগুলো বিভাগের মাধ্যমে আসে। প্রত্যেক বিভাগ থেকে রিকুইজিশন সংগ্রহ করা হয়। বিভাগের শিক্ষকরা যেসব বইয়ের সুপারিশ করেন সে অনুযায়ী বই সংগ্রহ করা হয়। তাই শিক্ষার্থীদের চাহিদা গুলো নিজ নিজ বিভাগে জানাতে হবে। যেকোনো বিভাগ শিক্ষার্থীদের চাহিদা অনুযায়ী বইয়ের বিষয়ে আমাদের অবগত করলে পরবর্তীতে আমরা সে অনুযায়ী বই সংগ্রহ করতে পারব।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম

English HighlightsREAD MORE »