সব কেন্দ্রেই পাঠানো হয়েছে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন

ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০২ ডিসেম্বর ২০২১,   অগ্রহায়ণ ১৮ ১৪২৮,   ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩

সব কেন্দ্রেই পাঠানো হয়েছে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন

শিক্ষাঙ্গন প্রতিবেদক ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

 প্রকাশিত: ২৩:৪১ ১৬ অক্টোবর ২০২১  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

আগামীকাল রোববার (১৭ অক্টোবর) গুচ্ছভুক্ত ২০ বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এদিন বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। পরীক্ষা আয়োজনের সকল প্রস্তুতি শেষ করেছে ভর্তি পরীক্ষা আয়োজক কমিটি।

ভর্তি পরীক্ষা আয়োজক কমিটি সূত্রে জানা গেছে, শনিবার (১৬ অক্টোবর) সকাল থেকে কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে পরীক্ষার জন্য নির্ধারিত কেন্দ্রগুলোতে প্রশ্ন পাঠানো হয়েছে। নির্দিষ্ট বক্সে সিলগালা করে প্রশ্ন পাঠানো হয়েছে। সিলগালাকৃত বক্সে অত্যাধুনিক সফটওয়্যার ব্যবহার করা হয়েছে। নির্ধারিত সময়ের আগে প্রশ্ন খোলা হলে সয়ংক্রিয়ভাবে মনিটরিং টিমের কাছে মেসেজ চলে যাবে।

সূত্র আরও জানায়, ভর্তি পরীক্ষায় ডিজিটাল জালিয়াতি রোধ করতে কেন্দ্রগুলোকে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় থাকতে বলা হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতাও নেওয়া হচ্ছে। প্রশ্নফাঁসের কোনো ধরনের গুজব ছড়ানো হলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা আয়োজক কমিটির যুগ্ম আহবায়ক ও শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বলেন, পরীক্ষা আয়োজনের জন্য আমাদের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। পরীক্ষায় ডিজিটাল জালিয়াতি রোধেও যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

শাবিপ্রবি উপাচার্য বলেন, পরীক্ষা শুরুর অন্তত ৩০ মিনিট পূর্বে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে হবে। পরীক্ষা কেন্দ্রে ঘরি, ক্যালকুলেটরসহ ডিজিটাল কোনো ডিভাইস নিয়ে যাওয়া যাবে না। কেউ যদি পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বনের চেষ্টা করে তাহলে তাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে তুলে দেওয়া হবে।

গুচ্ছ ভর্তিপরীক্ষার আসনবিন্যাস মতে, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪৭১০ জন, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩১৬৩ জন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ১০৯১৫ জন, শেরে-ই বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫০০০ জন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩০০০ জন, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১১৫৩৯ জন, ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১২০০ জন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ৭১০৮ জন, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৭৪৯৩ জন।

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬০০০ জন, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬০৪৫ জন, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০০০ জন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ৭০৮৫ জন, হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৭০২৫ জন, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৮৫১৩ জন, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩৪৬২ জন,কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৫০৫ জন।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ৭৬৮৮ জন, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬০০০ জন, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪০০০ জন, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩৬০০ জন, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৯৮০ জন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬৯১২ জন, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩৪৫৮ জন, রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৮০০ জন এবং বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৭০০ জন ভর্তি পরীক্ষার্থী অংশ নেবে।

প্রসঙ্গত, আগামীকাল ১৭ অক্টোবর ‘এ’ ইউনিট, ২৪ অক্টোবর ‘বি’ ইউনিট এবং ১ নভেম্বর ‘সি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।  দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

ডেইলি বাংলাদেশ/জেডএম